1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত

ভারতে যৌন অপরাধের শেষ নেই

যৌন অপরাধ সংক্রান্ত আইন আরো কড়া হওয়া সত্ত্বেও বাস্তব পরিস্থিতি প্রায় অপরিবর্তিতই আছে৷ সম্প্রতি আরো এক পর্যায় যৌন আক্রমণ মহিলাদের প্রতি মনোভাব নিয়ে নতুন বিতর্কের সৃষ্টি করেছে৷

ভারতে বিগত কয়েক মাসে ধর্ষণ, যৌন হয়রানি ও যৌন অপব্যবহারের ঘটনা আবারো বেড়েছে – বিশেষ করে দেশের বড় শহরগুলিতে৷ তার মধ্যে তথাকথিত ‘হাই প্রোফাইল' ঘটনার কোনো কমতি নেই৷

গত সপ্তাহে দক্ষিণ ভারতের এক নামকরা অভিনেত্রীকে তাঁর চলতি গাড়ির ভিতরে ধর্ষণ করা হয় কোচি থেকে থ্রিসুরে তাঁর বাড়িতে যাবার পথে৷ অপরাধীদের মধ্যে নাকি তাঁর সাবেক ড্রাইভারও ছিল: আততায়ীরা অসহায় অভিনেত্রীর ছবি ও ভিডিও তোলে৷ ৭০টির বেশি ফিল্মে অভিনয় করেছেন এই অভিনেত্রী৷

ভিডিও দেখুন 05:24

‘‘ধর্ষণের রাজধানী'' হিসেবে পরিচিত নতুন দিল্লিতে গত সপ্তাহান্তে শহরের একটি অভিজাত এলাকায় এক ২৪ বছর বয়সি মহিলাকে ধর্ষণ করে এক পুরুষ, যে মহিলাটিকে গাড়িতে করে পার্টি থেকে বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার প্রস্তাব দেয়৷ নাগা মহিলাটি যখন পায়ে হেঁটে বাড়ি ফিরছিলেন তখন পুরুষটি তাঁর কাছে আসে৷ দিল্লিতে প্রতিদিন ছ'টি ধর্ষণের ঘটনা ঘটে বলে প্রকাশ৷

দিল্লি একা নয়

সম্প্রতি মধ্য প্রদেশ রাজ্যের ভোপাল শহরে এক ১৭ বছরের কিশোরীকে গাড়িতে তুলে প্রায় এক ঘণ্টা ধরে যৌন নিপীড়ন করা হয়৷ কিশোরীটিকে একটি অভিজাত এলাকায় টেনে গাড়িতে তোলা হয়েছিল৷ এ মাসের সূচনায় অন্ধ্রপ্রদেশ রাজ্যে এক ১৪ বছর বয়সের মানসিক প্রতিবন্ধিকে ধর্ষণের দায়ে দু'জন পুরুষকে গ্রেপ্তার করা হয়৷ তবে মহিলাদের অসহায়তা সব রাজ্যে এক নয়৷ এছাড়া অপরাধীদের শাস্তি না হওয়াটাও যৌন অপরাধ বাড়ার একটা কারণ, বলে মনে করেন আইনজীবী ব্রিন্দা গ্রোভার৷

নববর্ষে বেঙ্গালুরুতে বহু তরুণীকে যৌন হয়রানি করা হয়৷ দৃশ্যত ভারত মহিলাদের জন্য আগের মতোই একটি বিপজ্জনক দেশ৷ ২০১৫ সালে সারা দেশে ৩৪,৬৫১টি ধর্ষণের ঘটনা নথিভুক্ত করা হয় – তবে বাস্তবিক সংখ্যা এর অনেক বেশি, বলে পর্যবেক্ষকদের ধারণা৷

রাজ্য হিসেবে মহিলাদের নিরাপত্তার বিচারে সবচেয়ে বিপজ্জনক রাজ্য হলো উত্তর প্রদেশ – ভারতে মহিলাদের বিরুদ্ধে অপরাধের ১১ শতাংশ ঘটে এই রাজ্যে৷ দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে পশ্চিমবঙ্গ: ১০.১ শতাংশ৷ তৃতীয় মহারাষ্ট্র: ৯.৫ শতাংশ৷ চতুর্থ রাজস্থান: ৮.৬ শতাংশ৷

একটি সামাজিক সমস্যা

পিতৃতান্ত্রিক ভারতে ধর্ষণ করাটা পুলিশি অপরাধ, কিন্তু মহিলাদের পক্ষে ধর্ষণের শিকার হওয়াটা তাদের সারাজীবনের জন্য চিহ্নিত করে দেয়, যা কিছু কম দণ্ড নয়৷ তাই যে সব মহিলা যৌন আক্রমণের শিকার হন, তারা সে কথা পুলিশে জানাতে দ্বিধা করেন৷

অথচ ভারতে ক্রমেই আরো বেশি মহিলা শিক্ষার সুযোগ পাচ্ছেন, কাজে যাচ্ছেন, প্রকাশ্য স্থানে ঘোরাফেরা করছেন৷ তার প্রতিক্রিয়া হিসেবেই মহিলাদের উপর এই আক্রমণ, বলে মনে করেন গবেষক কল্পনা বিশ্বনাথ৷

মুরলী কৃষ্ণাণ/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়