1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ভারতের বর্তমান লোকসংখ্যা ১২১ কোটি

২০১১ সালের আদম আদমশুমারি অনুসারে ভারতের জনসংখ্যা ১৮ কোটির মত বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২১ কোটি৷ তবে পুরুষের চেয়ে মহিলার অনুপাত যথেষ্ট কম৷

default

আজ নতুনদিল্লিতে জনগণনার প্রাথমিক রিপোর্ট প্রকাশ করেন সেন্সাস কমিশনার সি. চন্দ্রমৌলি৷

২০১১ সালের নতুন আদমশুমারি রিপোর্ট অনুসারে ভারতের জনসংখ্যা গত দশ বছরে বেড়েছে ১৮ কোটির বেশি, যা গত ৯০ বছরের তুলনায় কম৷ এই নিয়ে ভারতের বর্তমান মোট জনসংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১২১ কোটি৷ এর মধ্যে পুরুষের সংখ্যা ৬২ কোটি ৩৭ লাখ আর মহিলার সংখ্যা ৫৮ কোটি ৬৫ লাখ৷ ভারতের জনসংখ্যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইন্দোনেশিয়া, ব্রাজিল, জাপান ও বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় সমান৷ বিশ্বের মোট জনসংখ্যার ১৭.৫%৷ চীন এখনো সবথেকে জনবহুল৷ বিশ্বের মোট জনসংখ্যার ১৯.৪% মানুষের বাস চীনে৷ ভারতের সবথেকে জনবহুল রাজ্য হলো উত্তরপ্রদেশ৷ লোকসংখ্যা ২০ কোটি৷ আর সবথেকে কম লোকসংখ্যা কেন্দ্রশাসিত লাক্ষাদ্বীপে৷ লোকসংখ্যা মাত্র সাড়ে ৬৪ হাজার৷

ভারতে স্ত্রী-পুরুষের আনুপাতিক হারে পুরুষের সংখ্যা মহিলাদের চেয়ে বেশি৷ প্রতি এক হাজার পুরুষ পিছু মহিলা সংখ্যা – ৯১৪ স্বাধীনতার পর এই ব্যবধান সবচেয়ে বেশি৷ আজ নতুন দিল্লিতে ২০১১ সালের আদম আদমশুমারির প্রাথমিক রিপোর্ট প্রকাশ করে সেন্সাস কমিশনার সি.চন্দ্রমৌলি বলেন, এটা উদ্বেগের বিষয়৷ উল্লেখ্য, ভারতের কিছু কিছু রাজ্যে কন্যাভ্রুণ হত্যার হার বেশি৷ কন্যাকে আর্থিক বোঝা বলে মনে করা হয়৷

পরিসংখ্যান অনুযায়ী ভারতে সাক্ষরতার হার ঊর্ধ্বমুখ৷ সাক্ষরতার হার ৭৪ শতাংশ – ২০০১ সালে যেটা ছিল ৬৫ শতাংশের মত৷ নিরক্ষরতার হার ২৬ শতাংশ৷ সাক্ষরতার দিক থেকে ছেলেদের তুলনায় মেয়েরা এগিয়ে৷ কেরালায় সাক্ষরতার হার সবথেকে বেশি – ৯৪ শতাংশ, তারপর লাক্ষাদ্বীপ – ৯২ শতাংশ৷ সাক্ষরতার হার সবথেকে কম বিহারে – ৬৩ শতাংশ৷

জনগণনার কাজ শুরু হয় গত বছর৷ ২৫ লাখ কর্মী ৬৩ হাজার গ্রাম ও ৬ হাজার শহরের বাড়ি বাড়ি গিয়ে জনগণনা ছাড়াও বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করেন, যেমন টয়লেট, পানীয় জল, বিদ্যুৎ, মোবাইল ফোন, ইন্টারনেট এবং কে কী ধরণের বাড়িতে থাকে ইত্যাদি৷ ১৫ বছরের বেশি বয়সের প্রত্যেকের ফটো ও আঙুলের ছাপ নিয়ে ডেটাবেস তৈরি করা হচ্ছে, যার ভিত্তিতে দেয়া হবে ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন কার্ড৷ এই কার্ড ভারতের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে৷

সমস্যাটা কিন্তু অন্য জায়গায়৷ যে-সব রাজ্য জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে সফল হয়েছে, তারা কেন্দ্রের কাছ থেকে বাজেটের টাকা কম পাবে৷ কারণ বাজেট বরাদ্দ করা হয় জনসংখ্যার ভিত্তিতে৷ শুধু তাই নয়, জাতীয় সংসদে তাদের সাংসদ সংখ্যাও কমতে পারে৷

প্রতিবেদন: অনিল চট্টোপাধ্যায়, নতুনদিল্লি

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

সংশ্লিষ্ট বিষয়