1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ভারতের নির্বাচন উপমহাদেশের রাজনীতিতে অশনিসংকেত

ভারতের সাধারণ নির্বাচনে বিজেপি বাংলাদেশ নিয়ে যেসব নেতিবাচক কথা বলেছে, তার বিরুদ্ধে শক্ত প্রতিবাদ জানানো উচিত৷ আর এ প্রতিবাদ শুধু বাংলাদেশে নয়, ভারতের ভিতর থেকেও হওয়া উচিত বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা৷

ভারতের নির্বাচনে, বিশেষ করে নির্বাচনি প্রচার-প্রচারণায় বাংলাদেশের নানা ইস্যু উঠে এসেছে৷ বিজেপি এবং বিজেপির প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নরেন্দ্র মোদীর নানা বক্তব্য বাংলাদেশে ব্যাপক সমালোচিত হয়েছে৷ সর্বশেষ বিজেপির এক নেতার বাংলাদেশের ভূখণ্ডের এক তৃতীয়াংশের মালিকানা দাবি বিস্ময় এবং উদ্বেগের সৃষ্টি করেছে৷ আবারো এটা প্রমাণিত হয়েছে যে, বিজেপি যেসব কথা বলছে তা নেতিবাচক উগ্র ধর্মীয় রজিনীতির বৈশিষ্ট্য৷

এর আগেও মোদীর ‘বাংলাদেশি হিন্দুদের ভারতে পুনর্বাসন' এবং ‘পূর্বভারতীয় রাজ্যে বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীদের কারণে বেকারত্ব' – এ দুটি বক্তব্য সমালোচনার জন্ম দেয়৷

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক ড. শান্তনু মজুমদার ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘মোদী বা বিজেপির এ সব বক্তব্য ভারতে ধর্মীয় সংখ্যাগুরুদের ভোট টানার একটি কৌশল৷ তবে ভোটের পর হয়ত তাদের এই অবস্থান থাকবে না৷ বিশেষ করে বাংলাদেশের ভুখণ্ডের এক তৃতীয়াংশের মালিকানা দাবি তো রীতিমত হাস্যকর৷ কেউ চাইলেও তাঁর সে আশা পূরণ হবে না৷''

শান্তনু মজুমদার বলেন, ‘‘ভোট টানার এই কৌশল শুধু ভারতে নয়, বিশ্বের আরো অনেক দেশের রাজনীতিবিদদের মধ্যে দেখা যায়৷ যেমন বাংলাদেশ সাম্প্রতিক এক পক্ষ ভোটের সময় ভারতবিরোধী নানা প্রচারণা চালিয়েছিল৷''

অবশ্য মোদীর বা বিজেপির এ সব কথার শক্ত প্রতিবাদ হওয়া উচিত বলেও মনে করেন শান্তনু মজুমদার৷ ‘‘আর সেটা হওয়া উচিত শুধু বাংলাদেশে নয়, ভারতেও৷ দুই দেশের যে প্রগতিশীল শক্তি আছে, তাঁদের এই সব ‘ভোটবাজদের' বিরুদ্ধে সরব হওয়া উচিত৷''

শান্তনু মজুমদার বলেন, ভারতে এ ধরণের কথার যে প্রতিবাদ হচ্ছে না, তা নয়৷ তবে এই প্রতিবাদকে তিনি যথেষ্ট এবং বলিষ্ঠ বলে বলে মনে করেন না৷

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইনের অধ্যাপক শেখ হাফিজুর রহমান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলাদেশের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মোদীর বক্তব্য দুর্ভাগ্যজনক এবং অনাকাঙ্খিত৷ মোদীও ভোট টানার জন্য হিন্দু-মুসলমান ইস্যু ছাড়া বাংলাদেশের ভূখণ্ড নিয়ে কথা বলেছেন৷ শুধু ভোটের জন্য একজন রাজনীতিবিদ কতটা নীচু মানসিকতার পরিচয় দিতে পারেন, মোদী তার উদাহরণ৷''

হাফিজুর রহমান বলেন, ‘‘তবে এই ধর্ম, সংখ্যাগুরু-সংখ্যালঘু এবং প্রতিবেশী রাষ্ট্র নিয়ে প্রচারণার রাজনীতি বাংলাদেশেও আছে৷ আসলে ধর্মীয় উগ্রবাদীরা সবখানেই সক্রিয়৷'' তিনি বলেন, ‘‘বিজেপি এবং মোদীর বক্তব্য ও আচরণের প্রতিক্রিয়া বাংলাদেশের রাজনীতিতে এরই মধ্যে দেখা যাচ্ছে৷ তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রী হয়ে যদি তার তৎপরতা অব্যাহত রাখেন, তাহলে প্রতিক্রিয়া আরো স্পষ্ট হবে৷ প্রতিক্রিয়াশীলরা ফায়দা লোটার সুযোগ পাবে৷''

অধ্যাপক হাফিজুর রহমান মনে করেন, ‘‘শুধু বাংলাদেশ নয়, মোদী ভারতের প্রধানমন্ত্রী হলে তার নেতিবাচক প্রভাব পড়বে পুরো উপমহাদেশের রাজনীতিতে৷ যা উপমহাদেশের রাজনীতির জন্য এক অশনিসংকেত৷ আর এ আশঙ্কা ভারতের প্রগতিশীল শক্তিরও৷ নোবেল জয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন তো আগেই তাঁর এ আশঙ্কার কথা বলেছিলেন৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়