1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ভারতের গুজরাটে দাঙ্গার ঘটনায় ১১ জনের যাবজ্জীবন

২০০২ সালে গুজরাটে দাঙ্গার সময় ৬৯ জন মুসলমান হত্যার দায়ে ১১ জন হিন্দুকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন ভারতের এক আদালত৷ মুসলিম অধ্যুষিত এক আবাসিক এলাকায় আগুন ধরিয়ে তাদের হত্যা করা হয়েছিল৷

একই অভিযোগে আরও ১২ জনের বিরুদ্ধে সাত বছরের ও একজনের বিরুদ্ধে ১০ বছরের কারাদণ্ডের রায় দেন আহমেদাবাদের এক বিশেষ আদালত৷ এর আগে গত সপ্তাহে একই মামলায় ৩৬ জনকে মুক্ত করে দেয়ার রায় দিয়েছিলেন একই আদালত৷ ২০০৯ সালে শুরু হওয়া এই মামলার কাজ বিভিন্ন সময়ে বাধাপ্রাপ্ত হয়৷ এই দীর্ঘ সময়ে অভিযুক্ত ছয়জন মারা যান৷ নিখোঁজ হন আরও একজন৷

দাঙ্গার সূত্রপাত হিন্দুদের প্রাণহানির ঘটনা দিয়ে৷ ২৭ ফেব্রুয়ারি একটি ট্রেনে আগুন লেগে ৫৯ জন হিন্দু নিহত হন৷ অগ্নিকাণ্ডের জন্য মুসলমানদের দায়ী করে তাদের উপর হামলা শুরু করে হিন্দুরা৷ যদিও ট্রেনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় মুসলমানদের জড়িত থাকার বিষয়টি প্রমাণিত হয়নি৷

ট্রেনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার পরদিন ২৮ ফেব্রুয়ারি গুজরাটের আহমেদাবাদ শহরের ‘গুলবার্গ সোসাইটি’ আবাসিক এলাকায় হামলা চালায় হিন্দুরা৷ এতে ৬৯ জন মুসলিম প্রাণ হারান৷ এর মধ্যে একজন ছিলেন সাবেক সাংসদ এহসান জাফরি৷ তাঁর স্ত্রী জাকিয়া জাফরি ১১ জনকে যাবজ্জীবন দেয়ার রায়ে রায়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন৷ তিনি হত্যাকাণ্ডের দায়ে অভিযুক্তদের মৃত্যুদণ্ড চেয়েছিলেন৷ তবে বিশেষ আদালতের বিচারক পি বি দেশাই বলেছেন, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ‘অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের' বিষয়টি বিচারকরা প্রমাণ করতে পারেননি বলে মৃত্যুদণ্ডের দাবি প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে৷

সপ্তাহখানেক ধরে চলা দাঙ্গায় এক হাজারেরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়৷ সেই সময় গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন ভারতের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ রাজ্যের প্রধান হিসেবে দাঙ্গা নিরসনে ভূমিকা না রাখায় আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলো মোদির সমালোচনা করেছে৷ তবে ভারতের সুপ্রিম কোর্টের গঠন করা একটি তদন্ত কমিটি মোদির বিরুদ্ধে এমন কোনো প্রমাণ পায়নি যার ভিত্তিতে তাঁর বিচার শুরু করা যায়৷ দাঙ্গা সংশ্লিষ্ট মোট ১০টি ঘটনা তদন্তে ২০০৮ সালে কমিটি গঠন করে সুপ্রিম কোর্ট৷

জেডএইচ/ডিজি (এএফপি, ডিপিএ, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন