1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত

ভারতীয় সিনেমা হলগুলিতে জাতীয় সংগীত বাজাতেই হবে!

ছবি শুরুর আগে ভারতের সিনেমা হলগুলিতে জাতীয় সংগীত বাজানো বাধ্যতামূলক৷ সেই সময় উপস্থিত দর্শকদের উঠে দাঁড়িয়ে জাতীয় সংগীতকে সম্মান জানাতে হবে৷ গত বুধবার এই মর্মে নির্দেশিকা জারি করে সুপ্রিম কোর্ট৷

সিনেমা শুরুর আগে সিনেমা হলগুলিতে জাতীয় সংগীত বাজানো বাধ্যতামূলক করে এক নির্দেশিকা জারি করেছে সুপ্রিম কোর্ট৷ নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, যতক্ষণ জাতীয় সংগীত বাজবে, ততক্ষণ উপস্থিত সব দর্শককে উঠে দাঁড়িয়ে জাতীয় সংগীতের প্রতি উপযুক্ত সম্মান দেখাতে হবে৷ এমনকি সে সময় ‘এমার্জেন্সি গেট' ছাড়া বাইরে যাবার বা ঢোকার সব দরজা বন্ধ রাখতে হবে৷ অবশ্য উঠে দাঁড়ানোর এই বাধ্যবাধকতা থেকে শারীরিক প্রতিবন্ধীদের ছাড় দেওয়া হয়েছে৷

এছাড়া জাতীয় সংগীত বাজানোর সময় সিনেমা হলের বড় পর্দায় দেখাতে হবে জাতীয় পতাকা৷ আগামী সাত থেকে দশ দিনের মধ্যে সব সিনেমা হল এবং মাল্টিপ্লেক্সগুলিতে এই নির্দেশিকা কার্যকর করতে হবে৷ শীর্ষ আদালতের এই নির্দেশ অবিলম্বে কার্যকর করার জন্য সব রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির মুখ্য সচিবদের বলা হবে৷ ইলেকট্রনিক এবং প্রিন্ট মিডিয়াতেও তা প্রকাশ করা হবে৷ তবে আজেবাজে জায়গায় তা ছাপা যাবে না বা দেখানো যাবে না৷ আপত্তিকর কোনো বস্তুর ওপর জাতীয় পতাকা ছাপা যাবে না৷ অর্থাৎ জাতীয় সংগীতের পবিত্রতা রক্ষা করতে হবে৷

সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি দীপক মিশ্র ও অভিতাভ রায়ের ডিভিশন বেঞ্চ মন্তব্য করেন, জাতীয় সংগীতের জন্য প্রত্যেক নাগরিকের মনে একটা গর্ববোধ থাকা উচিত এবং জানা উচিত কীভাবে গানটি গাইতে হবে৷ আসলে আজকের দিনে অনেকেই জানেন না জাতীয় সংগীতের সঠিক গায়নশৈলি৷ কিন্তু এটা তাঁদের শেখা জরুরি, কারণ জাতীয় সংগীতকে শ্রদ্ধা করা বা সম্মান জানানো এক সাংবিধানিক দেশাত্মবোধ৷ প্রত্যেক নাগরিককে বুঝতে হবে এটা তাঁর দেশ, যে দেশের সম্মান রক্ষার জন্য সীমান্তের সেনা প্রহরীরা জীবন দিচ্ছেন৷ তাঁদের জন্যই এ দেশের নাগরিকরা ভোগ করছেন স্বাধীনতা ও স্বাধিকার৷

টেলিভিশন এবং বিজ্ঞাপনী প্রচারে জাতীয় সংগীতের অবমাননা বন্ধ করতে ভোপালের এক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার কর্ণধার শ্যাম নারায়ন চৌসকি শীর্ষ আদালতে আর্জি জানান৷ চৌসকির আইনজীবী বলেন, ১৯৭১ সালের জাতীয় সম্মান রক্ষা আইনের সংস্থান নানাভাবে লঙ্ঘিত হচ্ছে৷ যেমন জাতীয় সংগীত বেসুরোভাবে বিকৃত উচ্চারণে গাওয়া হচ্ছে৷ বিনোদনমূলক অনুষ্ঠানে অতিনাটকীয়ভাবে তা উপস্থাপন করা হচ্ছে৷ এমনকি জাতীয় সংগীত চলাকালে অনেককে মোবাইল ফোন ব্যবহার করতেও দেখা গেছে৷ এইসব অবমাননাকর আচরণ বন্ধ করা দরকার৷ বিষয়টির যথার্থতা খতিয়ে দেখে এই নির্দেশিকা জারি করেন শীর্ষ আদালত৷ বিচারপতিরা বলেন, জাতীয় সংগীতের প্রতি সম্মান জানানো বাধ্যতামূলক করা হলে দেশাত্মবোধ ও জাতীয়তাবাদের ধারণা তৈরি হবে৷

উল্লেখ্য, ষাটের দশকে ভারত-চীন যুদ্ধের পর থেকে সিনেমা শুরুর আগে সিনেমা হলগুলিতে জাতীয় সংগীত বাজানো শুরু হয়৷ কিন্তু জাতীয় সংগীত চলাকালীনই দর্শকরা প্রেক্ষাগৃহে ঢুকতেন বা বাইরে যেতেন৷ ফলে একটা বিশৃঙ্খল পরিবেশে জাতীয় সংগীত বাজতো৷ এ কারণে ধীরে ধীরে জাতীয় সংগীত বাজানোর নিয়ম উঠে যায়৷ কিন্তু মহারাষ্ট্র সরকার ২০০৩ সালে আবার সেই নিয়ম চালু করে৷ ওদিকে মাদ্রাজ হাইকোর্ট রায় দেয়, জাতীয় সংগীত চলাকালীন উঠে দাঁড়ানো বাধ্যতামূলক নয়৷ এতে সিনেমা দেখার আনন্দ ক্ষুণ্ণ হয়, ছবি প্রদর্শন ব্যাহত হয়৷ তাই এক মিডিয়ার তরফে এক জনমত সমীক্ষা শুরু করা হলে উঠে আসে বিতর্ক আর মতভেদ৷

কেউ কেউ মনে করেন, জাতীয় সংগীত বাজানো বাধ্যতামূলক, ঠিক আছে৷ কিন্তু উঠে দাঁড়ানোটা বাধ্যতামূলক করা ঠিক নয়৷ আবার কেউ কেউ মনে করেন, এর কোনোটাই বাধ্যতামূলক করা উচিত নয়৷ ডয়চে ভেলের সঙ্গে আলাপচারিতায় সেটাই বললেন প্রবীণ সাংবাদিক অমূল্য গাঙ্গুলি৷ তাঁর মতে, দেশাত্মবোধ বা দেশপ্রেম কোনোটাই বাইরে থেকে জোর করে চাপিয়ে দেওয়া যায় না৷ এটা আসতে হবে মনের ভেতর থেকে, সরকারের বা বিচারবিভাগের তর্জনি সংকেতে নয়৷ এ ধরনের ইস্যু নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে জনস্বার্থ অভিযোগ করারও কোনো যুক্তি দেখি না৷ স্রেফ শীর্ষ আদালতের সময় নষ্ট করা৷ যার জন্য বড় বড় মামলায় সুপ্রিম কোর্ট সময় দিতে পারে না৷ সবথেকে বড় কথা, জাতীয় সংগীত বিশেষ বিশেষ উপলক্ষ্যেই শুধু বাজানো উচিত, বলেন প্রবীণ সাংবাদিক অমূল্য গাঙ্গুলি৷

আপনি কী মনে করেন? সিনেমা হলে কি জাতীয় সংগীত বাধ্যতামূলক হওয়া উচিত? লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন