1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ভারতীয় উদ্যোক্তারা আফ্রিকায় প্রচুর বিনিয়োগ করছেন

সারা দুনিয়ার চোখ যখন চীনের ওপর, তখন আফ্রিকা মহাদেশের বহু জায়গায় ভারতীয় নানা কোম্পানি তাদের অবস্থান জোরদার করছে৷ জ্বালানির উৎসই শুধু নয়, নিজেদের পণ্যের বাজারও খুঁজছে তারা৷ জার্মানভাষী পত্রিকায় তা নিয়েই প্রতিবেদন৷

default

আফ্রিকা মহাদেশে চীনের বিনিয়োগ সব সময়েই সংবাদ শিরোনাম হয়ে ওঠে৷ কিন্তু সেই উপস্থিতির আড়ালে ভারতের লগ্নিকারীরাও আফ্রিকায় তাদের সংশ্লিষ্টতা বৃদ্ধি করতে সচেষ্ট বলে লিখেছে সুইজারল্যান্ডের জুরিখ শহর থেকে প্রকাশিত দৈনিক ‘নয় স্যুরশার সাইটুং'৷ পত্রিকা লিখছে:

আর্সেলর মিত্তল, টাটা, তেল কোম্পানি ওএনজিসি এবং বেদান্ত রিসোর্সেস দক্ষিণ এশিয়ার এই দেশটির বড় বড় কোম্পানিগুলো খুবই সক্রিয়৷...বিদেশে ভারতের বিনিয়োগের প্রায় এক-তৃতীয়াংশই হল আফ্রিকায়৷ তৈরি করা হচ্ছে তেল শোধনাগার ও পাইপলাইন, বন্দর আর রেললাইন৷ ভারত আর আফ্রিকার দেশগুলোর মধ্যে বাণিজ্যিক লেনদেন ১৯৯১ সালের ৯৬ কোটি ৫০ লক্ষ ডলার থেকে বেড়ে হয়েছে বার্ষিক ৪০ বিলিয়ন ডলারের বেশি৷ ভারত আর দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যে পণ্যবিনিময় বৃদ্ধির বার্ষিক হার বর্তমানে গড়ে প্রায় ৩০ শতাংশ৷ এরকম বৃদ্ধি শুধু চীনের ক্ষেত্রেই দেখানো যেতে পারে৷ অবশ্য বাণিজ্য সহযোগী হিসেবে দক্ষিণ আফ্রিকায় এখনো গ্রেট ব্রিটেন, ফ্রান্স আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেরই প্রাধান্য৷

তেল, কয়লা, তামার মত খনিজ পদার্থের সন্ধানেই ছুটে যাচ্ছে ভারত আফ্রিকায়, বলছে এই সুইস পত্রিকা৷ ‘নয় স্যুরশার সাইটুং লিখছে: ভারতের আগ্রহ মূলত আফ্রিকার কাঁচামালের বিপুল আধারকে ঘিরে৷ সুদানে তেল উত্তোলন করছে ওএনজিসি৷ গ্যাবন আর আইভরি কোস্টেও এই প্রতিষ্ঠান সক্রিয়৷ আঙ্গোলা আর নাইজেরিয়ার উপকূলের অদূরে অবস্থিত তেলক্ষেত্রে প্রবেশাধিকারের চেষ্টা করছে এই সংস্থাটি বেশ জোরেশোরে৷ জাম্বিয়ার বৃহত্তম কয়লা খনি কোম্পানির ৭৯ শতাংশই বেদান্ত রিসোর্সেস প্রতিষ্ঠানের হাতে৷ টাটা স্টিল মূলত সক্রিয় আইভরি কোস্টে৷

মোবাইল ফোন নেটওয়ার্ক, মোটর গাড়ি তৈরি, আইটি - এই সব খাতও দৃষ্টি এড়িয়ে যাচ্ছেনা ভারতীয় কোম্পানিগুলোর৷ ‘নয় স্যুরশার সাইটুং' লিখছে: বিনিয়োগ আর ব্যবসা বাণিজ্যে ভারত চীনের কাছাকাছি পৌঁছতে না পারলেও বেইজিং-এর প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে তার অবস্থান যে বাড়ছে ক্রমশ তাতে আফ্রিকার দেশগুলো খুবই খুশি৷

প্রতিবেদন: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়