1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ভাতা কমালে জার্মানিতে আশ্রয়ের আকর্ষণও কমবে

জার্মানিতে আশ্রয়প্রার্থীদের সরাসরি সহায়তার বদলে আর্থিক ভাতা দেবার প্রবণতা বাড়ছে৷ সব মিলিয়ে মাসে তার অঙ্ক দাঁড়াচ্ছে ৩৫৯ ইউরো৷ আবেদন সম্পর্কে ফয়সালা হওয়া পর্যন্ত জীবনধারণের জন্য এই ন্যূনতম বরাদ্দ স্থির করা হয়৷

জার্মানির ভাতা অন্যত্র মাসিক বেতনের সমান

বলকান অঞ্চলের পশ্চিমাঞ্চলের অনেক দেশে বহু মানুষের আয়ের অঙ্ক জার্মানিতে আশ্রয়প্রার্থীদের ভাতার সমান৷ তার উপর এই সব দেশে সহজে কাজ খুঁজে পাওয়াও কঠিন৷ তাই সেখানকার অনেক মানুষ সুদিনের আশায় কেন জার্মানির উদ্দেশ্যে পাড়ি দিচ্ছেন, তা বোঝা কঠিন নয়৷ তবে খুব কম আবেদনই শেষ পর্যন্ত স্বীকৃতি পায়৷ কারণ জার্মানির আইন অনুযায়ী শুধু সেই সব মানুষই রাজনৈতিক আশ্রয় পেতে পারেন, যারা দেশে নিপীড়নের শিকার হচ্ছেন৷

যারা দারিদ্রকে রাজনৈতিক আশ্রয়ের কারণ হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার পক্ষে, তাদের মনে রাখতে হবে যে বিশ্বের জনসংখ্যার একটা বড় অংশই সে ক্ষেত্রে জার্মানিতে আসার অধিকার পেতে পারে৷ এই মুহূর্তে জার্মানিতে আশ্রয়প্রার্থীদের প্রায় ৪০ শতাংশই এসেছেন বলকান অঞ্চলে পশ্চিমের দেশগুলি থেকে৷ এই সব মানুষকেও আশ্রয়ের আবেদনের প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হচ্ছে, তাদের জন্য খাদ্য ও আশ্রয়ের ব্যবস্থা করতে হচ্ছে৷ ফলে যুদ্ধ ও গৃহযুদ্ধের কারণে যারা জার্মানিতে আশ্রয় নিয়েছেন, তাঁরা অনেক সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন৷

Christoph Hasselbach

ক্রিস্টফ হাসেলবাখ, ডয়চে ভেলে

বাসের টিকিট না আর্থিক ভাতা?

আশ্রয়প্রার্থীদের নগদ অর্থের বদলে কিছু ক্ষেত্রে বিশেষ কিছু সুবিধা দেওয়া যায় কিনা, তা নিয়ে ভাবনাচিন্তা করছে জার্মানির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়৷ বিশেষ করে জার্মানির অনেক রাজ্যে কয়েক মাস আগেই প্রাপ্য ভাতা দেবার যে চল রয়েছে, ফেডারেল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তা মোটেই পছন্দ নয়৷ আশ্রয়প্রার্থীরা সেই অর্থ হাতে পেয়ে আদম ব্যবসায়ীদের ঋণ মেটানোর চেষ্টা করেন, এমনটা অনেক ক্ষেত্রে দেখা গেছে৷

ফলে অর্থের বদলে সুযোগ সুবিধা দেবার আইডিয়া অবশ্যই ঠিক৷ এর ফলে মানবিক মর্যাদারও ক্ষতি হবে না৷ কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে নগদ অর্থ বা বাসের টিকিট সেই মর্যাদার কোনো পরিবর্তন ঘটায় না৷ অন্যদিকে এই ব্যবস্থা চালু হলে জার্মানিতে আশ্রয়ের আকর্ষণ কমে যেতে পারে৷ বর্তমানে আবেদন নাকচ হবার সম্ভাবনা বেশি হলেও প্রক্রিয়া চলাকালীন বড় অঙ্কের আর্থিক ভাতার লোভ আর সে ক্ষেত্রে থাকবে না৷ এমন বার্তার গুরুত্ব আছে বৈকি৷

এই মুহূর্তে জার্মানিতে অনেকেরই মনে শরণার্থীদের প্রতি উদার মনোভাব সম্পর্কে ভুল ধারণা রয়েছে৷ জার্মানিতে যে শরণার্থী থাকতে চায়, কোনো না কোনো পথে তার সেই উপায় রয়েছে৷ অনেক নাগরিকের ধারণা, রাষ্ট্র এ ক্ষেত্রে তার নিয়ন্ত্রণ হারাচ্ছে৷ এর ফলে শরণার্থীদের স্বাগত জানানোর প্রবণতাও কমছে৷ এই প্রেক্ষারটে জার্মান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর প্রস্তাব এক গুরুত্বপূর্ণ প্রতীকী পদক্ষেপ হতে পারে৷ এমনটা হলে রাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রণ সম্পর্কে সাধারণ মানুষের আস্থা আবার ফিরে আসবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়