1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

ভক্তের উপহার আদালতে নিল নাওমি’কে

১৩ বছর আগে নেওয়া একটি উপহার নিয়ে বিভ্রাটে পড়েছেন নাওমি ক্যাম্পবেল৷ এই জন্য আদালতে দাঁড়াতে হলো তাঁকে৷ কারণ, উপহারটি এসেছে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে বিচারের সম্মুখীন লাইবেরিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট চার্লস টেইলরের কাছ থেকে৷

default

মডেল তারকা নাওমি ক্যাম্পবেল

মডেল তারকা নাওমি ক্যাম্পবেলের ভক্ত তো বিশ্বজুড়েই৷ আর তাদের কাছ থেকে উপহার আসবে না, তা ভাবাটাই তো অস্বাভাবিক৷ তবে কে জানতো, এই উপহারই আদালত দেখিয়ে ছাড়বে এই সুপার মডেলকে৷ আর তাও একবারে আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ আদালতে৷

যে ভক্তের জন্য ফেঁসে গেলেন নাওমি, সেই টেইলর হত্যা, ধষর্ণের মতো যুদ্ধাপরাধের জন্য দি হেগে এখন বিচারের মুখোমুখি৷ প্রতিবেশী দেশ সিয়েরা লিয়নের হীরার খনির দিকে লোলুপ নজর ছিল তাঁর৷ অভিযোগ রয়েছে, সেখানে গৃহযুদ্ধ বাঁধানোর মূল হোতা টেইলরই৷ যাতে নিহত হয় এক লাখেরও বেশি মানুষ৷ আর সেই সময় এক পক্ষের জন্য অস্ত্র কিনতে হীরা বিক্রি করতেন তিনি৷ সেই হীরারই কিছু খণ্ড গেছে নাওমির কাছে৷ আর তাতেই এই বিপত্তি৷

বিচারকের আদেশ শিরোধার্য মেনে আজ বৃহস্পতিবারই আদালতে গেলেন নাওমি৷ জানালেন, কীভাবে পাথরগুলো তাঁর কাছে এসেছে৷ ঘটনাটি ১৩ বছর আগের৷ ১৯৯৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকায় নেলসন ম্যান্ডেলার দেওয়া এক ভোজসভায় নাওমির হাতে আসে এগুলো৷ অনেক রথী-মহারথীর সঙ্গে তিনিও ছিলেন সেখানে৷ নাওমি রাখঢাক না করেই স্বীকার করলেন পাথরগুলো পাওয়ার কথা৷ তবে এই ব্রিটিশ তারকা একইসঙ্গে বললেন, তিনি জানতেনই না কে তাকে এগুলো দিয়েছে, তবে ধারণা করেছিলেন৷ নাওমির কথায়, ‘‘নৈশভোজের পর আমি ছিলাম হোটেলে, নিজের কক্ষে৷ রাতে হঠাৎ দরজায় ঠকঠক৷ খুলে দেখি দুজন লোক৷

Niederlande Kriegsverbrechertribunal Den Haag Naomi Campbell

আদালতে কোনো রাখঢাক না করেই পাথরগুলো পাওয়ার কথা স্বীকার করলেন নাওমি

একটি কৌটা বাড়িয়ে দিয়ে বললো, এটা আপনার জন্য৷ ক্লান্ত ছিলাম, তাই রাতে আর খুলে দেখতে ইচ্ছে হয়নি৷ সকালে খুলে দেখি কয়েকটি পাথর৷ ছোট, আর দেখতেও খুব একটা ভালো নয়৷'' ওই হোটেলেই ছিলেন হলিউড তারকা মিয়া ফারো৷ তাঁকে এবং নিজের এজেন্ট কার্লো হোয়াইটকে ঘটনাটি খুলে বলেন নাওমি৷ দুজনেই বলেন, সম্ভবত রিচার্ড টেইলর এগুলো পাঠিয়েছে৷ ‘‘আমার ধারণাও তাই ছিলো, বলেছিলাম তাদেরও'', বলেন নাওমি৷

টেইলরের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণের জন্য নাওমিকে আদালতে তলবের আরজি জানান আইনজীবীরা৷ আর তাতে সাড়া দেন বিচারক৷ তবে সুপার মডেলের একটি আবেদন রেখেছে আদালত৷ সেজন্য আদালতে ঢোকার আর বের হওয়ার সময়টাতে তাঁর কোনো ছবি তোলা যায়নি৷

টেইলর অবশ্য হীরা বিক্রি করে অস্ত্র কেনার অভিযোগ নাকচ করে আসছেন৷ তাঁর আইনজীবীরা বলছেন, নাওমিকে হাজির করাটা একটা ভাঁওতাবাজি৷ একটা সামান্য বিষয়কে বড় করে দেখানোর চেষ্টা হচ্ছে৷ ৬২ বছর বয়সি টেইলরকে ২০০৬ সালে গ্রেপ্তার করা হয়৷ এর পরের বছর থেকে শুরু হয় তাঁর বিচার৷

আদালত নাওমির পাশাপাশি এই বিষয়ে বক্তব্য শোনার জন্য এজেন্ট হোয়াইট ও অভিনেত্রী মিয়া ফারোকেও তলব করেছে৷ তাঁদের হাজির হতে হবে আগামী সোমবার৷ তবে নাওমি যেভাবে ভুগছেন, তাতে ভক্তদের কাছ থেকে উপহার নিতে এখন তারকারা অন্তত দুই বার ভাববেন৷

প্রতিবেদন: মনিরুল ইসলাম

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

ইন্টারনেট লিংক