1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘ব্লগারদের সাংবাদিক হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া উচিত'

ডয়চে ভেলের দ্য বব্স প্রতিযোগিতার বাংলা ভাষার জুরি শহিদুল আলম৷ দৃকের প্রতিষ্ঠাতা এই আলোকচিত্রী ব্লগার মনে করেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশেও ব্লগারদের সাংবাদিক হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া উচিত৷

গত তিন বছর ধরে দ্য বব্স প্রতিযোগিতার সঙ্গে সম্পৃক্ত রয়েছেন শহিদুল আলম৷ এই প্রতিযোগিতায় থাকা ১৪টি ভাষার একটি, বাংলা ভাষার জুরি বা বিচারক তিনি৷ দ্য বব্স জুরিমণ্ডলী সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘‘প্রতিযোগিতায় বিভিন্ন দেশের অসাধারণ কিছু বিচারক রয়েছেন৷ তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যমে পৃথিবীটাকেও ভিন্নভাবে বোঝা যায় এবং নেটওয়ার্কটাও বাড়ে৷''

বাংলা ভাষার ঈর্ষণীয় সাফল্য

গত তিনটি প্রতিযোগিতাতেই একটি করে জুরি অ্যাওয়ার্ড অর্জন করেছে বাংলা ব্লগ বা অনলাইন উদ্যোগ৷ ১৪টি ভাষার মধ্যকার এই প্রতিযোগিতায় ছয়টি বিভাগে জুরি অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়৷ ফলে বিভিন্ন ভাষার মধ্যে তীব্র প্রতিযোগিতা হয়৷ এই প্রতিযোগিতায় বাংলার সাফল্য অনেক ভাষার জন্যই ঈর্ষণীয়৷ চলতি বছরের সাফল্য প্রসঙ্গে শহিদুল বলেন, ‘‘শুধু জুরি অ্যাওয়ার্ডই নয়, ইন্টারনেটে ভোটাভুটিতে ছয়টি গুরুত্বপূর্ণ বিভাগের দু'টিতে বাংলাদেশ জয় পেয়েছে৷ এতে বোঝা যায়, বাংলাদেশের ব্লগিং এখন কোন পর্যায়ে এসেছে এবং আমাদের জন্য এটা কতটা গুরুত্বপূর্ণ৷''

দ্য বব্স ২০১৪ আয়োজনে ‘সেরা উদ্ভাবন' বিভাগে ‘জুরি' এবং ‘পিপলস চয়েস' অ্যাওয়ার্ড জয় করেছে বাংলাব্রেইল প্রকল্প৷ এছাড়া গ্লোবাল মিডিয়া ফোরাম বিভাগে বাংলাদেশের নারী বিষয়ক ওয়েবসাইট ‘উইম্যান চ্যাপ্টার' জিতেছে পিপলস চয়েস অ্যাওয়ার্ড৷ অনলাইন ভোটে ‘পিপলস চয়েস বাংলা' বিভাগে জিতেছে বিজ্ঞান বিষয়ক ব্লগ ‘জিরো টু ইনফিনিটি'৷

বাংলা ব্লগারদের এই সাফল্যে সন্তুষ্ট শহিদুল৷ জার্মানির রাজধানী বার্লিনে ডয়চে ভেলেকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘‘দ্য বব্স-এর মাধ্যমে বিভিন্ন প্রকল্পকে স্বীকৃতি দিয়া হচ্ছে৷ এবং এক অর্থে তাদের আরো ক্ষমতাবান করা হচ্ছে৷ এই প্রকল্পগুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প৷ এবং এগুলোর বাস্তবায়ন যদি হয়, সেটাই হবে সবচেয়ে বড় স্বার্থকতা৷''

যাদের অনুসরণ করা যায়

ডয়চে ভেলের সেরা অনলাইন অ্যাক্টিভিজম অ্যাওয়ার্ড দ্য বব্স বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ব্লগোস্ফেয়ারের হালনাগাদ তথ্য জানাতে সহায়তা করে বলে মনে করে শহিদুল৷ অন্যান্য ভাষার কিছু ব্লগ তিনি পছন্দ করেছেন, যা বাংলাদেশেও প্রয়োজন৷ উদাহরণ হিসেবে তিনি জানান ‘আই পেইড এ ব্রাইব' নামক একটি ব্লগের কথা৷ শহিদুল বলেন, ‘‘ভারতের একটা ব্লগ আমার কাছে বিশেষভাবে ভালো লেগেছে৷ সাধারণ জনগণ যাঁর যেখানে ঘুস দিতে হয়েছে, সেই তথ্য এই ব্লগে প্রকাশ করা হয়৷ এবং সেটার ভিত্তিতে একটা প্রতিক্রিয়া হওয়ার সুযোগ রয়েছে৷ আমাদের দেশে এরকম একটা জিনিস থাকলে অত্যন্ত কাজে লাগবে৷''

Shahidul Alam Gründer und Management Direktor von Drik

‘অন্যান্য দেশে যেমন ব্লগারদের সাংবাদিক হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে, ভবিষ্যতে আমাদের দেশেও সেটা হবে আশা করি'

বাংলাদেশে ঘুস এক বড় সমস্যা বলে মনে করেন শহিদুল আলম৷ তিনি বলেন, ‘‘ঘুস আমাদের জীবনের প্রত্যেক জায়গায় কোনো না কোনোভাবে দিতে হয়৷ এবং এটা এড়ানোর সুযোগ খুব কম৷ এটা ধরাও কঠিন৷ এবং আমরা এক অর্থে জিম্মি৷ এটা যদি আমাদের সমাজ থেকে বের করা যেত, তাহলে বিশাল একটা অবদান রাখা হতো৷''

ডয়চে ভেলেকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তুরস্কের একটি ব্লগের কথাও বিশেষভাবে উল্লেখ করেন শহিদুল৷ তিনি বলেন, ‘‘ক্ষমতাসীনদের কার যোগাযোগ কার সাথে তা প্রকাশ করে এই ব্লগ৷ এভাবে আত্মীয়তা কোথায়, লেনদেনের সম্পর্ক কোথায়, স্বার্থ কার কোথায় আছে – তা খুটিয়ে দেখা হয়৷ আমাদের দেশেও এরকম প্রকল্প থাকা উচিত৷''

ব্লগারদের হয়রানি, গ্রেপ্তার

সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশে ব্লগারদের হয়রানি বেড়েছে বলে মনে করেন শহিদুল আলম৷ গত এক বছরে বেশ কয়েকজন ব্লগার গ্রেপ্তার হয়েছেন৷ কেউ কেউ বাংলাদেশ ছাড়তেও বাধ্য হয়েছেন৷ শহিদুল জানান, ব্লগারদের রক্ষায় সবার এগিয়ে আসতে হবে৷ তিনি বলেন, ‘‘ব্লগাররা নিঃস্বার্থে, নিজের মতো করে, বিনা পারিশ্রমিকে যে কাজটা করে যাচ্ছে, সেটাকে সমাজসেবা হিসেবে দেখা দরকার৷ এবং তাদেরকে সহায়তা করার জন্য আমাদের সকলেরই পাশে দাঁড়ানো উচিত৷''

দ্য বব্স প্রতিযোগিতা এবং এর সঙ্গে সম্পৃক্ত আন্তর্জাতিক নেটওয়ার্ক ব্লগারদের সাহস যোগাচ্ছে বলেও মনে করেন শহিদুল৷ এর ফলে ব্লগাররা আর নিজেদের একা মনে করছে না৷ তিনি বলেন, ‘‘অন্যান্য দেশে যেমন ব্লগারদের সাংবাদিক হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে, ভবিষ্যতে আমাদের দেশেও সেটা হবে আশা করি৷''

সাক্ষাৎকার: আরাফাতুল ইসলাম, বার্লিন থেকে

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়