1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ব্রিটেন থাকবে, না যাবে?

আবদার না মানলে ঘরের ছেলে ঘর ছেড়ে চলে যাবার ভয় দেখায়৷ শেষ পর্যন্ত কিছু আবদার মেনে তাকে হয়তো শান্ত করা যায়৷ কিন্তু সব দাবি মানা সম্ভব হয় না৷ ব্রিটেন তার ইউরোপীয় পরিবারে থাকবে না বিদায় নেবে, তা নিয়ে চলছে জল্পনা-কল্পনা৷

গত কয়েক বছর ধরে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সময়টা ভালো যাচ্ছে না৷ আর্থিক ও অর্থনৈতিক সংকট, গ্রিস সহ দক্ষিণ ইউরোপের দেশগুলির দুর্বলতা কাটানোর চ্যালেঞ্জ শেষ হতে না হতেই শরণার্থীদের ঢল৷ ফলে অভিন্ন মুদ্রা ইউরো, মুক্ত সীমানার প্রতীক শেঙেন চুক্তির মতো অর্জন বার বার হুমকির মুখে পড়ছে৷ এবার ইইউ-র গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ব্রিটেন এই রাষ্ট্রজোট ত্যাগ করার হুমকি দিচ্ছে৷

#Brexit সংক্রান্ত আলোচনায় গোটা দেশ দুই শিবিরে বিভক্ত৷ আপাতত পাল্লাভারি #LeaveEU শিবিরের৷

অন্যদিকে #StrongerIn শিবির যুক্তি দিয়ে মানুষকে ইইউ-ত্যাগ করার পরিণাম সম্পর্কে সচেতন করে দেবার চেষ্টা করছে৷

সে দেশের সরকারের দাবি মেনে সংস্কার না করলে গণভোটে ভোটাররা ইইউ ত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নিতে পারেন৷ সরকারের দাবি মানলেও যে ভোটাররা ইতিবাচক রায় দেবেন, তারও কোনো নিশ্চয়তা নেই৷

এই অবস্থায় ২০১৫ সালের শেষ ইইউ শীর্ষ সম্মেলনে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন ও ইইউ-র বাকি নেতারা এ বিষয়ে আলোচনা করেছেন৷ ক্যামেরন আলোচনার ফলাফলে অত্যন্ত সন্তুষ্ট৷

তবে ইইউ নেতারা ব্রিটেনকে সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, যে অনেক বিষয়ে আলোচনার ঊর্ধ্বে৷

ব্রিটেনের মধ্যেও ইইউ ছেড়ে চলে যাবার প্রশ্নে সতর্ক করে দিচ্ছে ইইউ-পন্থি এক শিবির৷ প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী স্যার জন মেজর এই শিবিরের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন৷

সংকলন: সঞ্জীব বর্মন

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়