1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ব্রান্ডেনবুর্গ: ইতিহাস যেখানে জীবন্ত হয়ে ওঠে

ছুটি কাটাতে এসে একটা শহরের প্রেমে পড়ে যাওয়া, এমন একট শহর, যা নদী দিয়ে ঘেরা এক আধা শিল্পাঞ্চল যেখানে সাড়ে আটশ বছরের পুরনো ক্যাথিড্রাল থেকে শুরু করে শিল্প সংগ্রহশালা, সব কিছু আছে৷

ভিডিও দেখুন 04:24

হাফেল নদীর তীরে ব্রান্ডেনবুর্গ শহর

সেলিং করতে এসে ব্যার্ন্ড হেলমার্স হাফেল নদীর তীরে অবস্থিত ব্রান্ডেনবুর্গ শহরকে আবিষ্কার করেন৷ স্থির করেন, এখানেই বসবাস করবেন৷ একটি ওয়াটার স্পোর্টস সেন্টার খুলে এখানেই থেকে যান তিনি৷ তাঁর ওয়াটার স্পোর্টস সেন্টারে সেলিং বোটও ভাড়া পাওয়া যায়৷ ব্যার্ন্ড বলেন, ‘‘২০ বছরের বেশি ধরে আমি হাফেল নদীর তীরে ব্রান্ডেনবুর্গ শহরে বাস করছি৷ এ শহরের মজাই হলো এই যে, শহরটা নদী দিয়ে ঘেরা, চারপাশে অপরূপ প্রাকৃতিক দৃশ্য – সেই সঙ্গে একটা ছোট শহরের যত সুযোগসুবিধা: ভালো অবকাঠামো, সরকারি পরিবহণের মাধ্যমে পটসডাম, বার্লিন ইত্যাদি বড় বড় শহরের সঙ্গে যোগাযোগ৷ এ সবের ফলে এখানকার জীবন খুব সুন্দর৷''

ব্রান্ডেনবুর্গ ক্যাথিড্রাল

নদী থেকে ব্রান্ডেনবুর্গ খুব ভালো দেখা যায়, তা সে লঞ্চ, কানু কিংবা হাউসবোট, যা থেকেই হোক না কেন৷ হাফেল নদী প্রায় ২০ কিলোমিটার জুড়ে শহরটাকে ঘিরে রেখেছে৷ ব্রান্ডেনবুর্গ ক্যাথিড্রালটি একটি দ্বীপের উপর দাঁড়িয়ে৷ ক্যাথিড্রালটি টুরিস্টদের কাছে বড় আকর্ষণ৷ ক্যাথিড্রালটি ব্রান্ডেনবুর্গ প্রদেশের প্রাচীনতম গির্জাগুলির মধ্যে পড়ে৷

২০১৫ ছিল উৎসবের বছর, কেননা এ-বছর ব্রান্ডেনবুর্গ ক্যাথিড্রাল ৮৫০ বছরে পা দেয়৷ অক্টোবর পর্যন্ত প্রায় আড়াইশ কনসার্ট, প্রার্থনাসভা, প্রদর্শনী ইত্যাদির আয়োজন করা হয়েছিল৷ ব্যার্ন্ড জানালেন, ‘‘আমার পরামর্শ হলো, ব্রান্ডেনবুর্গ ক্যাথিড্রালটা দেখে যাবেন৷ এ বছর ৮৫০ বছরে পা দিচ্ছে, গোটা এলাকার সাংস্কৃতিক কেন্দ্র বলে পরিচিত এই ক্যাথিড্রাল৷ এখান থেকেই মার্ক ব্রান্ডেনবুর্গ পত্তন করা হয়েছিল৷ গির্জাটা একটা ছোট দ্বীপের ওপর অবস্থিত, যার চারধার দিয়ে হাফেল নদীর শাখা বয়ে যাচ্ছে৷ একটা পুরনো দুর্গের ভিতের ওপর গির্জাটা তৈরি করা হয়েছে৷''

গির্জার চারপাশে সে আমলের স্লাভ জেলেদের একটা গ্রাম ছিল৷ সেটাই আজ ব্রান্ডেনবুর্গ শহরের সবচেয়ে পুরনো এলাকা৷ ব্যার্ন্ড বলেন, ‘‘আমার কাছে এই ক্যাথিড্রালের দ্বীপটা হলো শহরের সবচেয়ে সুন্দর এলাকাগুলির মধ্যে একটি৷ কেননা এখানে ছোট ছোট, সুন্দর বাড়িঘরগুলো ছাড়াও প্রচুর গাছপালা আছে৷ বেশ একটা শান্তির অনুভূতি, চারপাশ সত্যিই সুন্দর৷''

Deutschland Brandenburger Dom

এই সেই গির্জা

শিল্প সংগ্রহশালা

শহরের কেন্দ্রে আরো একটি দর্শনীয় বস্তু আছে৷ সেটা হলো শিল্প সংগ্রহশালা৷ এখানে ১৯১৪ সাল থেকে ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত, অর্থাৎ প্রায় এক শতাব্দী ধরে ইস্পাত তৈরি করা হত৷ সাবেক পূর্ব জার্মানির বৃহত্তম ইস্পাত কারখানা ছিল এখানে৷ ব্যার্ন্ড জানালেন, ‘‘ব্রান্ডেনবুর্গের একটা হাইলাইট হলো এই শিল্প সংগ্রহশালা৷ ব্রান্ডেনবুর্গ শহরের ইতিহাস যেন এখানে জীবন্ত হয়ে ওঠে৷ ব্রান্ডেনবুর্গ এককালে ১ লক্ষ ২০ হাজার অধিবাসীর ইস্পাতনগরী ছিল৷ মানুষজনের অধিকাংশ ইস্পাতের কারখানায় কাজ করতেন৷ এ সব দেখে আজও বোঝা যায়, ইস্পাতকর্মীদের কাজটা কত শক্ত ছিল৷''

সবশেষে শহরের উচ্চতম স্থান: মারিয়েনব্যার্গ পাহাড়ের ওপর ফ্রিডেন্সভার্টে টাওয়ার৷ তৈরি হয়েছিল ১৯৭৪ সালে৷ মারিয়েনব্যার্গ আর ফ্রিডেন্সভার্টে মিলিয়ে প্রায় একশ মিটার উঁচু ওপর থেকে দেখা দৃশ্যটা যেন ব্রান্ডেনবুর্গের একটা প্যানোরামা৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়