1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

ব্রাজিল বিশ্বকাপের বল ব্রাজুকা বৃত্তান্ত

বিশ্বকাপ মাঠে গড়াতে বাকি মাত্র দশ দিন৷ প্রতিবারের মতো এবারো বিশ্বকাপের নতুন বল নিয়ে চলছে তর্ক-বিতর্ক, গবেষণা৷ খেলোয়াড়দের আশা, ‘ব্রাজুকা’ এবার ভাল খেলাই দেখাবে৷ তবে গতবারের অভিজ্ঞতার কারণে সংশয়ও পুরোপুরি কাটছে না৷

default

এবার বিশ্বকাপে এই ব্রাজুকা বলটিই থাকবে সবার পায়ে

২০০২ সালে দক্ষিণ কোরিয়া-জাপান বিশ্বকাপের বল ‘ফেভারনোভা' নাকি ছিল অনেক বেশি হালকা আর ‘বাউন্সি'৷ এর চার বছর পর জার্মানি বিশ্বকাপের বল ‘টিমগাইস্ট'- এর বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে, সেটি নাকি অতিরিক্ত ‘পিছল'৷ আর ২০১০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপের বল ‘জাবুলানি' তো অনেক খেলোয়াড়কে রীতিমতো ভড়কে দিয়েছিল৷

ব্যাপক সমালোচনার পর এবার অনেকের মতামত নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেই ব্রাজুকা তৈরি করেছে বিশ্বখ্যাত ক্রীড়া সামগ্রী প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান আডিডাস৷ জার্মান এই কোম্পানির দাবি, ব্রাজুকাই হলো বিশ্বের সবচেয়ে বেশি পরীক্ষিত বল৷

Flash-Galerie Fußbälle

২০০২ সালের বিশ্বকাপে ব্যবহৃত ‘ফেভারনোভা' বলটি নাকি ছিল অনেক বেশি হালকা আর ‘বাউন্সি'

রূপ তার ব্রাজিলীয়

নতুন বলের সঙ্গে খেলোয়াড়দের পরিচিত করতে গত ডিসেম্বরে ‘ব্রাজুকা' উন্মোচনের পরপরই বিশ্বকাপে থাকা সবকটি দেশে বলটি সরবরাহ করে আডিডাস৷ আর গত বৃহস্পতিবার বিশ্বের সামনে আনা হয় ফাইনাল ম্যাচের বলটি, যার নাম দেয়া হয়েছে ‘ব্রাজুকা ফাইনাল রিও'৷

গত দুই বছরে জিনেদিন জিদান, লিওনেল মেসি, ইকার কাসিয়াস, বাস্তিয়ান শোয়াইনস্টাইগারের মতো ছয়শ খেলোয়াড় ব্রাজুকা পরখ করে দেখেছেন৷ বায়ার্ন মিউনিখ, এসি মিলানের মতো দলের বিশেষজ্ঞরা এই বল নিয়ে মতামত দিয়েছেন৷ ব্রাজুকার মন বুঝতে নাম আর চেহারা বদলে খেলানো হয়েছে অনূর্ধ্ব-২০ বিশ্বকাপ আর একটি আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচেও৷

এবারের বিশ্বকাপ বলের জন্য ব্রাজুকা নামটি ঘোষণা করা হয় ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে৷ তার আগে নাম নির্বাচনের জন্য ভোটাভুটিরও আয়োজন করে ব্রাজিলের বিশ্বকাপ আয়োজন কমিটি ও আডিডাস৷

ফিফার ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী, ব্রাজুকা হলো ব্রাজিলের একটি চলতি শব্দ, যার মানে হলো ‘ব্রাজিলীয়'৷ এ বলের নকশা আর রঙে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে দক্ষিণ অ্যামেরিকার বর্ণময় জীবন ও ফুটবল নিয়ে তাদের উত্তেজনার আবহ৷

জাবুলানি বনাম ব্রাজুকা

গত বিশ্বকাপের বল জাবুলানি বাতাসে ভাসতে ভাসতেই বিচবলের মতো গতিপথ পাল্টে ফেলত বলে খেলোয়াড়দের, বিশেষ করে গোলরক্ষকদের সমালোচনার মুখে পড়তে হয় আডিডাসকে৷ ব্রাজিলের লুইস ফাবিয়ানোতো এই বলকে ‘অতিপ্রাকৃতিক' আখ্যাই দিয়ে ফেলেছিলেন৷

সাধারণ ফুটবল ৩২টি প্যানেল বা টুকরো জোড়া দিয়ে তৈরি করা হলেও জাবুলানি তৈরি করা হয়েছিল আটটি প্যানেলে৷ আর ব্রাজুকার ওপরের অংশ তৈরি হয়েছে প্রোপেলার আকৃতির ছয়টি প্যানেল জোড়া দিয়ে৷ আডিডাসের দাবি, প্যানেলগুলো এমনভাবে জোড়া দেয়া হয়েছে, যাতে বলের গতিপথ হবে অনেক বেশি সুস্থির৷ ব্রাজুকার পিঠও জাবুলানির মতো অতোটা মসৃণ হবে না৷

আডিডাস বলছে, ব্রাজুকার প্যানেলের এই অভূতপূর্ব আকৃতির কারণে উড়ন্ত বলে আসবে আরো গতি৷ বৃষ্টিতে ভিজলেও বলের আকার বা ওজন বদলাবে না৷

‘ল্যাব টেস্ট'

ব্রাজুকা কেমন হবে তা বুঝতে রীতিমতো গবেষণা চালিয়েছেন জাপানের সুকুবা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই গবেষক৷ ব্রাজুকার পাশাপাশি জাবুলানি, টিমগাইস্ট আর ২০১৩ সালের কনফেডারেশন কাপের বল কাফুসা নিয়ে নানাভাবে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখেছেন তাঁরা৷

এই দুই গবেষক বলছেন, গত বিশ্বকাপের বল জাবুলানির আচরণ বোঝা আসলেই কঠিন ছিল৷ কিন্তু ব্রাজুকার বাতাস কাটার ধরন তার তুলনায় অনেক ভাল৷

সুকুবা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্পোর্টস সায়েন্সের অধ্যাপক তাকেশি আসাই বলেন, এক সময় জাপানি নিনজারা যে ধরনের তারকা আকৃতির অস্ত্র ছুড়ে মানুষ বধ করত, ব্রাজুকার প্যানেলগুলো তৈরি হয়েছে একই নকশায়৷ আর সেগুলো যেভাবে পরস্পরের সাথে সেলাই করা হয়েছে, সেটাই হলো বলটির মূল শক্তির জায়গা৷

বিশ্বকাপের আগে যেটুকু দেখা গেছে তাতে ব্রাজুকাকে নিয়ে ব্রাজিলের গোলরক্ষক জুলিও সিজারের কণ্ঠে আশার কথাই ঝরেছে৷ অন্যরাও এ বলকে পছন্দ করবেন বলে তাঁর বিশ্বাস৷

জেকে/জেডএইচ (রয়টার্স, এএফপি, ফিফা, উইকিপিডিয়া)

নির্বাচিত প্রতিবেদন