1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

ব্রাজিল অলিম্পিক: আর মাত্র ১,০০০ দিন

রাজনৈতিক প্রতিবাদ, অর্থনৈতিক কোন্দল, সামাজিক অবকাঠামো নিয়ে নানা প্রশ্নের মুখেও ২০১৪ সালের বিশ্বকাপের জন্য প্রস্তুত ব্রাজিল৷ সঙ্গে ২০১৬ সালের অলিম্পিক গেমস-এর ‘কাউন্টডাউন’-ও শুরু হয়ে গেছে সেখানে৷

শনিবার থেকে গোনা শুরু করলে আর মাত্র এক হাজার দিন পরই ব্রাজিলে শুরু হচ্ছে অলিম্পিক গেমস ২০১৬-র আসর৷ তাই ২০১৪ সালের বিশ্বকাপের পাশাপাশি অলিম্পিক গেমস-এরও প্রস্তুতিমূলক কার্যক্রম শুরু হয়েছে ব্রাজিলে৷ তার সঙ্গে শুরু হয়েছে দিন গণনা, ঠিক যেমনটা হয়েছিল বেইজিং অথবা লন্ডন অলিম্পিক গেমস-এর আগে৷

পর পর দু-দুটি বিশ্বমানের ক্রীড়া আসর – বলা বাহুল্য, প্রথমে ফুটবল বিশ্বকাপ এবং তার দু'বছরের মাথাতেই অলিম্পিক গেমস আয়োজন করা, চাট্টিখানি কথা নয়! তাই ব্রাজিলে অলিম্পিক গেমস ২০১৬-র আয়োজক কমিটির চেয়ারম্যান কার্লস নুজম্যানের কথায়, ‘‘আমরা এরই মধ্যে বুঝতে পেরেছি যে কাজটা কতটা কঠিন হতে চলেছে৷ বিশ্বকাপের আয়োজন আমরা অনেকটাই গুছিয়ে এনেছি৷ কিন্তু অলিম্পিক গেমস-এর বেশিরভাগ প্রস্তুতি এখনও বাকি৷''

চার বছর আগে, ২০০৯ সালের ২রা অক্টোবর মাদ্রিদ, টোকিও এবং মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার শহর শিকাগোকে বাদ দিয়ে ব্রাজিলকেই ২০১৬ সালের অলিম্পিক গেমস-এর ভেন্যু হিসেবে বেছে নেয়া হয়েছিল৷ তারপর থেকেই রাজধানী রিও ডি জানেইরো-তে চলছে সাজ সাজ রব৷ দেশের পরিকাঠামোগত উন্নয়ন, যেমন শহরের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, রাস্তা-ঘাট নির্মাণ, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি ইত্যাদি ক্ষেত্রে কাজ শুরু হয়ে গেছে৷ তারই মধ্যেই রয়েছে বিশ্বকাপ ফুটবল আয়োজন করার চাপ৷

জানা গেছে, দেশের প্রায় ৩০টি জায়গায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে প্রতিযোগিতার ভেন্যুগুলি ঠিক করা হয়েছে৷ এর মধ্যে মারাকানার বিখ্যাত অত্যাধুনিক স্টেডিয়ামটি যেমন আছে, তেমনই আছে বিখ্যাত সমুদ্র সৈকত কোপাকাবানা অথবা পশ্চিমের বারা বা উত্তরে অবস্থিত ডেওডোরোর মতো শহর৷ আর সেই জায়গাগুলির মধ্যে যাতে সহজেই যাতায়াত করা যায়, তার জন্য মেট্রো বা পাতাল রেলের নতুন লাইন তৈরিতে নেয়া হয়েছে নতুন পরিকল্পনা৷

অলিম্পিক ২০১৬-র ‘বাজেট' সম্পর্কে এখনই একটা স্বচ্ছ ধারণা দেয়া না গেলেও, সেটা যে পাহাড়সম হবে – তা বলা বাহুল্য৷ তাই অতি ধনী আর অত্যন্ত গরিব দেশবাসীর এই দেশের মধ্যে প্রতিবাদ-কর্মসূচিও কম হয়নি, হচ্ছেও৷ তারপরও, ব্রাজিলকে বিশ্বে একটি উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ কার্লস নুজম্যান৷

আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি আইওসি-র সদস্যরা অবশ্য ইতিমধ্যে পাঁচবার রিও ঘুরে গেছেন৷ দেখে গেছেন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাগুলির কাজ এবং অবকাঠামোগত পরিকল্পনার নীলনক্সা৷ শোনা যাচ্ছে, ২০১৪ সালে তাঁরা আবারো ফিরে আসবেন এই ‘অনন্য সুন্দর' শহরটিতে৷

ডিজি/এসবি (এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন