1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

ব্রকোলি এবং টমেটোর সত্ত্ব নিয়ে লড়াই

ব্রকোলি কিংবা টমেটোর মত সব্জির পেটেন্ট! অনেক কিছুর মতো এ দুটিরও পেটেন্টের দাবিদাররাও এখন মিউনিখে৷ সেখানেই ইউরোপীয় পেটেন্ট অফিসে চলছে আপিল সুরাহার প্রস্তুতি৷

Tomato, ব্রকোলি, টমেটো, পেটেন্ট, Patent

টকটকে লাল রঙের টমেটো কিংবা সবুজ মাথার ব্রকোলি৷ দুটিই খুবই পরিচিত সব্জি৷ মানুষের খাদ্য তালিকায় নিত্য থাকা এই দুটির পেটেন্ট কোন কৃষক বা কৃষিবিদের কাছে নেই, রয়েছে বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের হাতে৷ ধরা যাক ব্রকোলির কথা৷ ক্যান্সার নিরোধক উপাদান নিজেরা খুঁজে বের করেছেন, এই কারণ দেখিয়ে ব্রকোলির সত্ত্ব দাবি করে বসে ব্রিটিশ কোম্পানি ‘প্লান্ট বায়োসাইয়েন্স লিমিটেড' নামের একটি প্রতিষ্ঠান৷ ২০০২ সালে ইউরোপীয় পেটেন্ট অফিস থেকে তাদের এ জন্য ছাড়পত্রও দেয়া হয়৷ কিন্তু সুইজারল্যান্ডের একটি কোম্পানি এই ছাড়পত্রের বিরোধিতা করে ঠুকে দেয় মামলা৷ তাদের ভাষ্য, বায়োলজ্যিক্যাল উপাদানের বিষয়ে কোন সত্ত্ব দাবি করা যায় না৷

চলুন এবার টমেটোর গল্প শোনা যাক৷ কম পানি খরচে বিশেষ এক টমেটোর জাত নিজেরা উদ্ভাবন করেছেন, এই দাবি রেখে ইসরায়েলের এক কোম্পানি ২০০০ সালে পেয়ে যায় ইউরোপীয় পেটেন্ট অফিসের ছাড়পত্র৷ আরেক কোম্পানি একই ধরণের কারণ দেখিয়ে এর চার বছর পরে, অর্থাৎ ২০০৪ সালে আর্জি জানায় এই সিদ্ধান্ত বাতিলের৷ ব্রকোলি এবং এবং টমেটোর সত্ত্ব নিয়ে এই আপিলগুলোর এখনো সুরাহা হয়নি৷ মিউনিখের ইউরোপীয় পেটেন্ট অফিসে এখন প্রস্তুতি চলছে আপিলের সুরাহা করার৷

বিষয়টি নিয়ে বেশ চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে৷ জার্মানির অধিকাংশ মানুষের দাবি, সব্জিকে রাখতে হবে পেটেন্ট কাঠামোর বাইরে৷ যে জিনিস মানুষের দৈনিক খাবারের তালিকায় থাকছে, হাজার হাজার কৃষক যে সব্জি উৎপাদন করে জীবিকা নির্বাহ করছে, সেগুলোর আবার সত্ত্ব কী? প্রশ্ন তাদের৷ তাদের মত, এ ধরণের সত্ত্ব প্রদান মানেই হলো কৃষক এবং ভোক্তাদের ক্ষতি করা৷ জার্মান টেলিভিশন চ্যানেল এআরডি'কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে গ্রিনপিস'এর পেটেন্ট উপদেষ্টা ক্রিস্ট্রিয়ান টেন'এর এ বিষয়ে মত, এ ধরণের পেটেন্ট দেয়া মানেই হলো বাজারকে নিয়ন্ত্রণ করা, মানুষের সিদ্ধান্ত গ্রহণকে সীমিত করা এবং উচ্চমূল্যের অবস্থা সৃষ্টি করা৷

প্রতিবেদন: সাগর সরওয়ার

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন