1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ব্যাপক সহিংসতায় নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ

সহিসংতা আর কম ভোটার উপস্থিতির মধ্য দিয়ে বিরোধী দল ছাড়াই ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে৷ নির্বাচনি সহিংসতায় ১২ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে৷ এছাড়া ভোটকেন্দ্রে হামলা ও ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে৷

রবিবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ করা হয়৷ নির্বাচন প্রতিহতে হরতাল, অবরোধ দিয়ে সক্রিয় ছিল বিরোধী ১৮ দল৷

রবিবার সকালে নির্বাচন শুরুর আগে থেকেই শুরু হয় সহিংসতা৷ আর এই সহিংসতা চলে ভোট গ্রহণের পুরো সময় ধরে৷ নির্বাচন বিরোধীরা ভোটকেন্দ্রে হামলা চালায়৷ আর তা প্রতিহতে সহিংসতা আরো বিস্তৃত হয়৷ এই সহিংসতায় একজন সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারসহ সারা দেশে ১২ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে৷

Bangladesch Parlamentswahlen

নির্বাচন কমিশন সহিংসতা এবং ভোটকেন্দ্র পুড়িয়ে দেয়ার কারণে ১৩৯টি ভোটকেন্দ্রের নির্বাচন স্থগিত করেছে

রংপুর, বগুড়া, সাতক্ষীরা, চট্টগ্রাম, পাবনা, গাইবান্ধা, নীলফামারী, পিরোজপুরসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায়, ভোটকেন্দ্রে হামলা, ব্যালট পেপার ও বাক্স ছিনতাই, নির্বাচনি কর্মকর্তাদের ভোটকেন্দ্রে যেতে বাধা, ভোটকেন্দ্রে ককটেল বিস্ফোরণের সহিংস ঘটনা ঘটেছে৷ আর আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের লোকজনের বিরুদ্ধে কোথাও কোথাও ভোট ছিনতাইয়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে৷

ভোটের আগের দিন থেকে ভোট গ্রহণের দিন রবিবার পর্যন্ত ঢাকার বাইরে কমপক্ষে দেড়শ ভোটকেন্দ্রে হামলা হয়েছে৷ আর ভোটকেন্দ্র হওয়ায় পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে ১১১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান৷ সেসব প্রতিষ্ঠানের নতুন বইও পুড়ে গেছে

ঢাকায়ও কয়েকটি কেন্দ্রে সহিংসতা এবং ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে৷ আর ঢাকাসহ সারা দেশেই ভোটার উপস্থিতি ছিল কম৷ কোনো কোনো কেন্দ্র দুপুর পর্যন্ত বলতে গেলে ফাঁকাই ছিল৷ তবে ভোটার উপস্থিতি ছিল অনেক কম৷ ১৯৯৬ সালের ১৫ই ফেব্রুয়ারির একতরফা নির্বাচনে ভোট পড়েছিল ২৬ শতাংশ৷ এবার তার চেয়ে পরিস্থিতি ভাল নয়, বলে জানান নির্বাচনি কর্মকর্তারা৷

নির্বাচন কমিশন সহিংসতা এবং ভোটকেন্দ্র পুড়িয়ে দেয়ার কারণে ১৩৯টি ভোটকেন্দ্রের নির্বাচন স্থগিত করেছে৷

Bangladesch Parlamentswahlen

নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধিত ৩৭টি রাজনৈতিক দলের মধ্যে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগসহ ১২টি দল এই নির্বাচনে অংশ নিয়েছে

বাংলাদেশের নির্বাচন পর্যবেক্ষণ প্রতিষ্ঠান ব্রতী-র পরিচালক রঘুনাথ রাহা ডয়চে ভেলেকে জানান, সকালের দিকে ভোটারের উপস্থিতি ছিল খুবই কম৷ তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে ভোটকেন্দ্রে কিছু ভোটার উপস্থিতি বেড়েছে৷ কিন্তু তা খুব বেশি নয়৷ তিনি জানান সহিংসতার কারণে যারা আগ্রহী তাঁরাও ভোটকেন্দ্রে যাননি ভয়ে৷ নির্বাচন প্রতিহত করতে বিরোধী দল তৎপর থাকায় তার প্রভাব পড়েছে৷ আর একতরফা নির্বাচন হওয়ায় ভোটাররাও ভোট দিতে তেমন আগ্রহী হয়নি৷

জাতীয় নির্বাচন পর্যবেক্ষক পরিষদ, জানিপপ-এর চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ ডয়চে ভেলেকে জানান, ভোটার উপস্থিতি কম হবে এটাই স্বাভাবিক৷ কারণ এটি একটি ভিন্ন ধরণের নির্বাচন৷ একতরফার সঙ্গে আছে ব্যাপক সহিংসতা এবং বিরোধী দলের হরতাল-অবরোধ৷

রাজনৈতিক বিশ্লেষক অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ ডয়চে ভেলেকে জানান, এই নির্বাচন নিয়ে সাধারণ ভোটারদের মধ্যে তেমন আগ্রহ নেই৷ কারণ এরইমধ্যে অর্ধেকের বেশি প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন৷ প্রায় ৫২ ভাগ ভোটারের তাই ভোট নেই৷ আর এই নির্বাচন শুধু বিএনপির নেতৃত্বে বিরোধী ১৮ দলীয় জোটই বর্জন করছে না৷ সিপিবি, গণফোরাম, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ এবং বিকল্পধারার মতো মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের দল এই নির্বাচন বর্জন করেছে৷ ভারত ছাড়া আর কোনো দেশের সমর্থন নেই৷ মানুষ এই নির্বাচনকে গ্রহণ করেনি৷ তাই তারা ভোটকেন্দ্রে যায়নি বলে মনে করেন অধ্যাপক ইমতিয়াজ৷ আর সরকারপক্ষ ভোটের পরিমাণ বেশি দেখাতে ভোটকেন্দ্র দখল করা হয়েছে৷ বিরোধী দল ভোট ঠেকাতে সহিংসতা করেছে৷ সব মিলিয়ে এটি একটি অগ্রহণযোগ্য নির্বাচনে পরিণত হয়েছে৷

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘‘একটি অর্থহীন, সবার কাছে অগ্রহণযোগ্য ও হাস্যকর নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার দেশবাসীর কাছে গণধিকৃত হয়েছে৷'' তিনি বলেন দেশবাসী প্রহসনের নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করায় এই সরকার সম্পূর্ণরূপে অবৈধ হয়ে গেছে৷ এই ভোটারবিহীন একদলীয় নির্বাচন জাতির কলঙ্ক হয়ে থাকবে৷

তবে নির্বাচনকে শান্তিপূর্ণ বলেছে আওয়ামী লীগ৷ যোগাযোগমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ নেতা ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নির্বাচন শান্তিপূর্ণ এবং নিরপেক্ষ হয়েছে৷ তবে কিছু এলাকায় সহিংসতার কথা স্বীকার করেন তিনি৷ তিনি বলেন ভোটার উপস্থিতি নয়, নির্বাচন নিয়মকানুন মেনে হয়েছে কিনা, তাই দেখার বিষয়৷

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিব উদ্দিন আহমেদ নির্বাচনকে সুষ্ঠু দাবি করে বলেছেন, বিরোধী দল এই নির্বাচনে অংশ না নেয়ায় ভোটার উপস্থিতি কম হয়েছে৷ তিনি বলেন যেসব এলাকায় সহিংসতার কারণে ভোট নেয়া যায়নি সেসব এলাকায় ২৪ জানুয়ারির মধ্যে ভোট নেয়া হবে৷

নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধিত ৩৭টি রাজনৈতিক দলের মধ্যে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগসহ ১২টি দল এই নির্বাচনে অংশ নিয়েছে৷ আর প্রধান বিরোধী দল বিএনপিসহ ২৫টি দল এই নির্বাচন বর্জনের পর প্রতিহতে একই সঙ্গে হরতাল আর অবরোধ পালন করছে৷

রোববারের নির্বাচনে ৩০০ আসনের মধ্যে ১৫৩ আসনের প্রার্থীরা আগেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন৷ তাই নির্বাচন হয়েছে বাকি ১৪৭ আসনে৷ এতে মোট ভোটার ৪,৩৯,৩৭,৯৩৭ জন৷ প্রার্থী ৩৯০ জন৷ অর্ধেকেরও বেশি প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ায় মোট ভোটারের ৫২ ভাগের ভোট দেয়ার সুযোগ ছিল না৷ এমনকি এই কারণে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীও ভোট দিতে পারেননি৷

২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিদেশি পর্যবেক্ষক ছিলেন ৫৮৫ জন৷ আর এবার ভারত ও ভুটান থেকে দু'জন করে মোট ৪ জন পর্যবেক্ষক এসেছেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন