1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বৌদ্ধধর্মের নামে চলছে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা

এইভাবেই ঘটনাগুলে ঘটছে মিয়ানমারে, শ্রীলঙ্কায়, থাইল্যান্ডে৷ উগ্রপন্থিরা মুসলিমদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষের আগুন ছড়ানোর জন্য বৌদ্ধধর্মের মতো একটি শান্তিপূর্ণ ধর্মাদর্শের অপব্যবহার করছে৷

মার্কিন টাইম ম্যাগাজিনের সর্বাধুনিক সংস্করণ ছিল ‘‘বৌদ্ধ সন্ত্রাসের মুখচ্ছবি'' নিয়ে৷ ধর্মীয় উত্তেজনা ছড়াতে পারে আশঙ্কায় সংস্করণটি মিয়ানমার ও শ্রীলঙ্কায় নিষিদ্ধ করা হয়৷ উভয় দেশেই বিগত দেড় বছরে সংখ্যালঘু মুসলিমরা একাধিকবার উত্তেজিত বৌদ্ধ জনতার আক্রমণের শিকার হয়েছে৷

গত বছর মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে দু'টি সন্ত্রাসের ঢেউয়ে প্রায় দু'শো রোহিঙ্গা মুসলিম নিহত হন এবং লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা ঘর ছেড়ে পালাতে বাধ্য হন৷ দৃশ্যত স্থানীয় নেতারা রোহিঙ্গাদের প্রতি বিদ্বেষের প্ররোচনা দিয়েছিলেন৷ একাধিক বৌদ্ধ ভিক্ষু রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সহিংসতায় অংশ নেন বলে প্রকাশ৷

মিয়ানমারের বিন লাদেন

Sittwe Kämpfe zwischen Muslimen und Buddhisten

এ বছরের মার্চ মাসে মিয়ানমারের মেইখতিলা শহরের দাঙ্গায় ৪২ জন প্রাণ হারায়

এ বছরের মার্চ মাসে মিয়ানমারের মেইখতিলা শহরের দাঙ্গায় ৪২ জন প্রাণ হারায়৷ দেশের বিভিন্ন এলাকায় মুসলিমদের উপর আক্রমণ অব্যাহত আছে, যার একটি কারণ ধর্মীয় নেতা আশিন ভিরাথু’র অগ্নিগর্ভ বক্তৃতা৷ ভিরাথু নিজেকে ‘বর্মী বিন লাদেন' বলে বর্ণনা করে থাকেন এবং তাঁকে নিয়েই ছিল টাইম ম্যাগাজিনের কাহিনি৷

সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশিত ভিরাথুর বক্তৃতায় যে আন্দোলনের বার্তা প্রচার করা হয়েছে, তার নাম ‘৯৬৯'৷ এটি একটি উগ্র জাতীয়তাবাদী গোষ্ঠী, যাদের ‘মিয়ানমারের নব্য নাৎসি' বলেও অভিহিত করা হয়েছে৷ গোষ্ঠীটির অভিযানের একটি অঙ্গ হলো, স্থানীয় বৌদ্ধ বাসিন্দারা তাঁদের দোকানপাট, বাড়িঘর এবং সরকারি যানবাহনে ‘৯৬৯' স্টিকার ও পোস্টার লাগাবে৷

মুসলিমদের পুড়িয়ে দেওয়া দোকানের ধ্বংসাবশেষের উপর ‘৯৬৯' সংখ্যাটি স্প্রে-পেইন্ট করা হয়েছে৷ আশিন ভিরাথু মুসলিম দোকানপাট ও ব্যবসা বয়কট করার এবং আন্তঃ-ধর্ম বিবাহ নিষিদ্ধ করার ডাক দিয়েছেন৷ কিন্তু এ সব খুঁটিনাটির চেয়েও বড় প্রশ্ন হলো: বৌদ্ধধর্মের মতো একটি অহিংস ধর্মের মানুষদের মধ্যে এ ধরনের বিদ্বেষ ছড়ানো কি করে সম্ভব হলো?

Myanmar Gewalt zwischen Rohingya Muslime und Buddhisten

গত দেড় বছরে সংখ্যালঘু মুসলিমরা একাধিকবার উত্তেজিত বৌদ্ধ জনতার আক্রমণের শিকার হয়েছে

যারা নীরব, তাদের সোচ্চার হতে হবে

মিয়ানমারে বিদ্বেষ ও অসহিষ্ণুতা ছড়ানোর ফলে মধ্যমপন্থি বৌদ্ধরাও যে খুব স্বস্তি বোধ করছেন, এমন নয়৷ এমনকি রাখাইন প্রদেশের জাতীয়তাবাদীদের হাতে মধ্যমপন্থি বৌদ্ধদের হত্যার ঘটনাও ঘটেছে, কেননা তারা হয়ত রোহিঙ্গাদের চাল বেচেছে কিংবা অন্য কোনো সেবা দিয়েছে৷ বলতে কি, কিছু কিছু এলাকায় মধ্যমপন্থি বৌদ্ধরা মুসলিমদের যতটা ভয় করে, তার চেয়ে বেশি ভয় করে ‘৯৬৯' আন্দোলনের সদস্যদের৷

অনেকটা বাকি বিশ্বে সাধারণ, ধর্মপ্রিয়, নিরীহ মুসলিমদের মতোই, মধ্যমপন্থি বৌদ্ধদেরও বেরিয়ে এসে জানাতে হবে যে, এই সহিংসতা বৌদ্ধধর্মের বৈশিষ্ট্য কিংবা অঙ্গ নয়৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন