1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

বোর্নিও দ্বীপের লিলিপুট ব্যাঙের গপ্পো

কত দিকে যে বিজ্ঞানের দৃষ্টি প্রসারিত ভাবলেও অবাক লাগে৷ বিশ্বের ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র জিনিসের সন্ধানী বিজ্ঞান এবার খুঁজে পেয়েছে বিশ্বের ক্ষুদ্রতম ব্যাঙ৷

default

এই ব্যাঙটির চেয়েও ছোট নেফেনটিকোলা

এক্কেবারে ছোট্ট৷ যাকে বলে একটা মটরশুঁটির মত ছোট্ট৷ ইংরেজিতে যাকে বলা হয়ে থাকে পি-নাট৷ সেরকমই তার শরীরের মোট সাইজ৷ সে একটি ব্যাঙ৷ এই মুহূর্তে বেশ বিখ্যাত এবং অনেকটাই সেলেব্রিটি স্ট্যাটাস৷ তার ছবি পত্রপত্রিকায় ছাপা হচ্ছে, টিভির পর্দায় তাকে দেখা যাচ্ছে৷ কারণ, তিনি হলেন বিশ্বের ক্ষুদ্রতম ব্যাঙ৷

নামটা একটু খটোমটো বটে৷ চট করে মনে রাখা সম্ভব নয়৷ নাম হল মিক্রোহাইলা নেফেনটিকোলা৷ মানে একেবারে বৈজ্ঞানিক নাম৷ বিজ্ঞানীরা বলছেন, প্রথম এই ব্যাঙের অস্তিত্ব জানা যায় বোর্নিও দ্বীপে, এশিয়ায়৷ পরে জানা গেছে এই ক্ষুদ্রতম ব্যাঙেরা অনেকগুলো মহাদেশের বাসিন্দা৷ আফ্রিকা থেকে ইউরোপ হয়ে দক্ষিণ অ্যামেরিকা পর্যন্ত ছড়িয়ে ছিটিয়ে বসবাস করছেন এঁদের জাতভাইরা৷

খটোমটো নাম মনে রাখা কঠিন, আসুন এই ব্যাঙবাবাজিকে টিকোলা নামে ডাকা যাক৷

তো, বিজ্ঞানীরা এতোটুকু একটা টিকোলা ব্যাঙের কথা জেনে দেখা যাচ্ছে বেশ অনেকখানি উত্তেজিত৷ কুয়ালালামপুরের বিশ্ব বিজ্ঞান গবেষণাগারের খানদানি পত্রিকা জুটাস্কার নতুন সংস্করণে এই ব্যাঙের জীবনচর্চা নিয়ে অনেক কথা লেখা হয়েছে৷ ছাপা হয়েছে বেশ কিছু ছবি৷ টিকোলার আবিষ্কর্ত্তাদের দাবি, আকারে এরা ১০.৬ থেকে ১২.৮ মিলিমিটার পর্যন্ত হয়৷ কিন্তু অন্যসব দিকে যেকোন ব্যাঙের মতই এরা স্বাভাবিক৷

শুধু চেহারাখানাই যা একটু লিলিপুটের মত৷

প্রতিবেদন: সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়

সম্পাদনা: আরাফাতুল ইসলাম