1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বৈধতা নেয়ার সুযোগ পুরোপুরি কাজে লাগাচ্ছে বাংলাদেশ

সৌদি আরব সরকারের সাধারণ ক্ষমার সর্বোচ্চ সুযোগ নেয়ার চেষ্টা করছে বাংলাদেশ৷ তাই সেখানকার বাংলাদেশি দূতাবাসে লোকবল বাড়ানো হয়েছে৷

দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অবৈধ বাংলাদেশিদের পাসপোর্ট, কাগজপত্র প্রস্তুত এবং আবেদন তৈরিতে পালাক্রমে রাত-দিন কাজ করছেন৷

সৌদি আরবে প্রায় ২০ লাখ বাংলাদেশি রয়েছেন৷ এঁদের মধ্যে কমপক্ষে চার লাখ বাংলাদেশি সেখানে অবৈধভাবে বসবাস করছেন৷ সৌদি সরকার বাংলাদেশসহ এশিয়ার আরো কয়েকটি দেশের অবৈধ নাগরিকদদের সাধারণ ক্ষমার আওতায় বৈধ হওয়ার সুযোগ দিচ্ছে৷ গত ১০ই মে থেকে এই সুযোগ কার্যকর হয়েছে এবং ৩রা জুলাই পর্যন্ত সুযোগ বহাল থাকবে বলে জানা গেছে৷

বাংলাদেশের প্রবাসী কল্যাণ সচিব ড. জাফর আহমেদ খান ডয়চে ভেলেকে জানান, এখনও পর্যন্ত প্রায় ১ লাখ ২৫ হাজার বাংলাদেশি সেখানকার বাংলাদেশি দূতাবাসে বৈধতার জন্য কাগজপত্র জমা দিয়েছে৷

Abwracken von Schiffen in Geddani Pakistan

কমপক্ষে চার লাখ বাংলাদেশি সৌদি আরবে অবৈধভাবে বসবাস করছেন

তাঁদের কাগজপত্র দ্রুত প্রস্তুত করতে দূতাবাসে বাংলাদেশ থেকে অতিরিক্তি জনবল পাঠানো হয়েছে, দেয়া হয়েছে অতিরিক্ত বরাদ্দ৷ তাঁর আশা, শেষ সময়ের মধ্যে সব অবৈধ বাংলাদেশিই আবেদনের সুযোগ পাবেন৷ এই সুযোগ যাতে কারুর হাতছাড়া না হয়, সেজন্য প্রবাসী কল্যাণ এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সার্বক্ষণিকভাবে বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করছে৷ জাফর আহমেদ খান জানান, যাঁরা অবৈধভাবে অনেকদিন ধরে সৌদি আরবে আছেন তাঁরা দেশে ফিরতে চাইলেও ফেরার সুযোগ আছে৷ তিনি বলেন, এই প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে সৌদি আরবে বাংলাদেশিদের অবস্থান যেমন পুরোপুরি বৈধ হবে, তেমনি সেখানে বাংলাদেশ থেকে নতুন জনশক্তি রপ্তানিরও সুযোগ তৈরি হবে৷

তিনি জানান, সৌদি সরকার ইতিমধ্যেই বাংলাদেশ থেকে ১ লাখ ৭০ হাজার নতুন জনশক্তি নেয়ার কথা ঘোষণা করেছে৷ এজন্য জনশক্তি রপ্তানিকারক ১০টি প্রতিষ্ঠানকে অনুমোদনও দেয়া হয়েছে৷ ড. জাফর আহমেদ খান জানান, হয়ত এই সাধারণ ক্ষমার পরই বাংলাদেশ থেকে লোক নেয়া শুরু হবে৷ সৌদি আরবকে গৃহস্থালিসহ, বেসরকারি ও সাধারণ প্রতিষ্ঠানে বাংলাদেশি দক্ষ এবং অদক্ষ মানুষের চাহিদা জানানো হয়েছে৷

২০০৮ সাল থেকে সৌদি আরব বাংলাদেশ থেকে লোক নেয়া কমিয়ে দেয়৷ এরপর বন্ধ করে দেয় ২০০৯ সাল থেকে৷ এর প্রধাণ কারণ ছিল সৌদিকরণ নীতি৷ তখন থেকেই সৌদি আরব এবং উপসাগরীয় এলাকার লোকজনকেই একমাত্র কাজে নিয়োগ করার উত্সাহ দেয়া হয়৷ কিন্তু প্রায় পাঁচ বছরের মাথায় সেই নীতিতে পরিবর্তন এসেছে৷

এর আগে মালয়েশিয়াতেও বাংলাদেশের অবৈধ অভিবাসীরা সাধারণ ক্ষমার সুযোগ পেয়েছেন৷ সেখানেও বাংলাদেশি শ্রমিকদের জন্য দরজা খুলে গেছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়