1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বোমা হামলার দায় স্বীকার করেছে ককেসাসের জঙ্গি গোষ্ঠী

রাশিয়ার রাজধানীর মেট্রো রেলে দুই নারী আত্মঘাতী বোমারুর জোড়া হামলার দায় স্বীকার করেছে এক জঙ্গি গোষ্ঠী৷ এদিকে বুধবার দক্ষিণের দাগেস্তানে নতুন বোমা হামলার ঘটনা ঘটেছে৷

default

মস্কোয় হামলায় প্রাণ হারিয়েছিল ৩৯ জন (ফাইল ফটো)

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট অবশ্য এত হামলার মাঝেও ককেশাসে কর্মকান্ড চালিয়ে যাবার ঘোষণা দিয়েছেন৷

রাশিয়ার বিক্ষুব্ধ ককেশাস অঞ্চলের একটি ইসলামী গোষ্ঠী দেশটিতে সাম্প্রতিক জোড়া বোমা হামলার দায় স্বীকার করেছে৷ সোমবার ঐ হামলায় প্রাণ হারিয়েছিল ৩৯ জন৷ জঙ্গি গোষ্ঠী ‘ককেশাসের আমীরশাহী'-র শীর্ষ নেতা ডকু উমারোভ এক ভিডিও বার্তায় এধরণের আরো হামলা চালানোর হুমকি দিয়েছে৷ তার কথায়, উত্তর ককেশাস এলাকায় রাশিয়ার নৃশংস দখলদারিত্ব ও সেখানকার শান্তিপ্রিয় মানুষদেরকে হত্যার প্রতিবাদে এই হামলা চালানো হয়েছে৷

এর আগে অবশ্য রাশিয়ার সংবাদমাধ্যমগুলো উমারোভকে উদ্ধৃত করে জানিয়েছিল যে এই হামলার সঙ্গে জঙ্গি গোষ্ঠীটির কোন সম্পর্ক নেই৷ কিন্তু ইন্টারনেটে প্রকাশিত নতুন এই ভিডিও বার্তা ঠিক উল্টো খবরটাই দিচ্ছে৷

এদিকে, বুধবার রাশিয়ার দাগেস্তানে অপর জোড়া বোমা হামলায় প্রাণ হারিয়েছে কমপক্ষে ১২ জন৷ রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট দিমিত্রি মেদভেদেভ অবশ্য এত হামলা সত্ত্বেও ককেশাসে রাশিয়ার কার্যক্রম চালিয়ে যাবার ঘোষণা দিয়েছেন৷ তিনি বলেন, ককেশাসে সব কর্মসূচী আগের মতোই চলবে, সব বাধা সত্ত্বেও৷ কারণ, বহু সমস্যার সমাধানই ককেশাসের সামাজিক এবং অর্থনৈতিক পরিস্থিতির মধ্যে রয়েছে এবং তা নিয়েও চিন্তা করতে হবে৷ শুধু বল প্রয়োগ করলেই হবে না৷

তবে রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুটিন দুই দিনের ব্যবধানে দূরবর্তী দুই জায়গায় হামলার মধ্যে সম্পর্ক থাকতে পারে বলে মনে করছেন৷ তিনি বলেন, আমরা বিশ্বাস করি এই হামলাগুলো রাশিয়াকে নিশানা করেই করা হয়েছে৷

একইসঙ্গে পুটিন উত্তর ককেশাস অঞ্চলে পুলিশের উপস্থিতি বাড়াতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী রশিদ নুরগালিয়েভকে নির্দেশ দেন৷ রশিদ হামলাকারীদের ‘নিষ্ঠুর জবাব' দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন৷

অবশ্য চেচনিয়ার মানবাধিকার কর্মকর্তারা আগে থেকেই কোন ধরণের ধারণার বশে সিদ্ধান্ত নেওয়া থেকে সরকারকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন৷ চেচেন সংসদের প্রেসিডেন্টও একই মত দিয়েছেন৷

প্রসঙ্গত, দাগেস্তান এবং উত্তর ককেশাসের বিস্তীর্ণ এলাকায় নিয়মিতই রাশিয়ার নিরাপত্তা বাহিনী এবং মুসলিম জঙ্গীদের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে থাকে৷ ২০০৯ সালে সেখানে সংঘর্ষে ১,০০০ এরও বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছে৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ক্রেমলিন সরকার সংশ্লিষ্ট এলাকায় ২৩ হাজার সেনা মোতায়েন রেখেছে৷

প্রতিবেদক: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সংশ্লিষ্ট বিষয়