1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

বেস্ট ইয়ং প্লেয়ার, গোল্ডেন বুট বিজয়ী থমাস ম্যুলার

২০ বছর বয়সী ম্যুলার আজ বিশ্বকাপের তারকা৷ জার্মান থার্ড ডিভিশন থেকে মাত্র কয়েক বছরের মধ্যে যেন রকেটে চড়ে তার এই ওপরে ওঠা৷ অথচ ভাবসাব একেবারেই ঠাণ্ডা, পেশাদারী৷

default

সস্ত্রীক ম্যুলার

মনে আছে তো? লম্বা, ঢ্যাঙা চেহারার ফরোয়ার্ড৷ বিশ্বকাপে জার্মানির প্রথম খেলাতেই অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ৪-০ গোলে অবদান রাখে, অর্থাৎ গোল করে বসে৷ পরে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে জার্মানির ৪-১ জয়ে দুটি গোল করে এই ম্যুলার৷ আর্জেন্টিনার বিরুদ্ধে কোয়ার্টার ফাইনালে খেলার তিন মিনিট যেতে না যেতে জার্মানির হয়ে হালখাতা খোলে ম্যুলার: জার্মানি জেতে ৪-০ গোলে৷ শনিবারও জার্মানি যখন উরুগুয়েকে ৩-২ গোলে হারিয়ে তৃতীয় স্থান অধিকার করে, তা'তেও ম্যুলারের একটি, অর্থাৎ পঞ্চম গোলটি ছিল৷ কিন্তু এই পাঁচটি ছাড়াও তার ছিল তিনটি এ্যাসিস্ট৷ কাজেই উরুগুয়ের দিয়েগো ফোরলান এবং নেদারল্যান্ডসের ওয়েসলে স্নাইডার'কে হারিয়ে ম্যুলারই পেলো গোল্ডেন বুট৷

এবার এই বিশ বছরের তরুণটির সঙ্গে একটু ভালো করে পরিচয় করিয়ে দেওয়া যাক৷ জন্ম ১৩ই সেপ্টেম্বর, ১৯৮৯, জার্মানির ভাইলহাইমে৷ দশ বছর বয়সে বায়ার্ন মিউনিখে যোগদান৷ তারপর বায়ার্ন এবং জার্মানির হয়ে কিশোর-তরুণ পর্যায়ে বহুদিন খেলেছে৷

Fußball WM 2010 Deutschland Argentinien Flash-Galerie

আর্জেন্টিনার বিপক্ষে গোলের পর ম্যুলার

২০০৮ সালে মিরো ক্লোজে'র বিকল্প হয়ে ৭৯ মিনিটের মাথায় হামবুর্গের বিরুদ্ধে প্রথম ফার্স্ট ডিভিশন খেলায় নামা৷ কিন্তু ২০০৮-৯'এর সীজনে তাকে বেশী বার মাঠে নামতে দেখা যায়নি৷

ম্যুলার ২০০৯'এর শেষে তাঁর বান্ধবী লিজা'কে বিবাহ করেন৷

বায়ার্নে ম্যুলারের কপাল ফেরে ওলন্দাজ কোচ লুই ফ্যান খাল আসার পর৷ ফ্যান খাল তাকে ৩৪ বার নামান, ম্যুলার ১৩টি গোল করে সেই আস্থার প্রতিদান দেন৷ জার্মানির হয়ে ম্যুলারের প্রথম খেলা এ'বছরের তেসরা মার্চ, যেদিন জার্মানি হারে আর্জেন্টিনার কাছে ১-০ গোলে৷

কাজেই ম্যুলার এখন নিজেই বলেছেন, ‘‘বিশ্বকাপের আগে যদি কেউ বলতো, তুমি পাঁচ গোল করবে - তাহলে আমি বলতুম, তোমরা সবাই পাগল নাকি?'' বিশ্বকাপের পরে কিন্তু ম্যুলার এখন হপ্তা দুয়েক ফুটবলের মুখ দেখতে চান না, স্রেফ আলসেমো করতে চান৷ তাঁর নাকি তা'তে ওজনও বাড়ে না৷ ওদিকে বিশ্বকাপে নিজের পার্ফর্মেন্স সম্পর্কে তাঁর মন্তব্য: ‘‘মন্দ নয়, কিন্তু আমি আরো ভালো হব৷'' অপরদিকে উরুগুয়ের সঙ্গে খেলার পর ফোরলান কিংবা সুয়ারেজ, কারোর সঙ্গেই জার্সি বদল করতে রাজি হননি ম্যুলার৷ স্মৃতি হিসেবে তাঁর নিজের জার্সিটাই রাখতে চেয়েছেন৷

প্রতিবেদন: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সম্পাদনা: আরাফাতুল ইসলাম