1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

পাঠক ভাবনা

‘বেশি খাওয়ার লোভে এই অবস্থা'

‘মানবপাচারকারীদের নৌযানে হামলার সিদ্ধান্ত অনুমোদন' এই পোস্টটি পড়ে ফেসবুকে বেশিরভাগ পাঠকই মানুষকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বিদেশে না যাওয়ার পক্ষেই মত দিয়েছেন, তবে ভিন্নমতও রয়েছে৷

মো. শরীফ লিখেছেন, ‘‘যারা দালালদের কথা শোনে, তাদের পেছনে দৌড় দেয়, দোষ তাদেরও কম নয়৷ এত কিছু, এত ঘটনা ঘটার পরেও কিভাবে এই মানুষগুলো নিজেদের জীবনের পরিবারের মায়া-মমতা ছেড়ে ঝুঁকি নিয়ে বোটে উঠে৷ তাদের কপালে দিনের পর দিন অভুক্ত থেকে মৃত্যুর যন্ত্রণা ছাড়া আর কিছুই জুটবেনা৷''

পাঠক শরীফ দোয়া করছেন, আল্লাহ যেন এইসব গরিব অসহায় মানুষগুলোকে হেফাজত করেন৷

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থার দেয়া তথ্য অনুযায়ী, এ বছরের প্রথম চার মাসে ৫১ হাজার মানুষ ভূমধ্যসাগর দিয়ে ইউরোপে প্রবেশ করেছে৷ আর সাগরে ডুবে মারা গেছেন অন্তত ১৮শ' জন৷ ইউরোপে ভূমধ্যসাগরে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের মিছিল এবং মৃত্যু রুখতে কঠোর হবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন৷

এই তথ্য জেনে মাজহারুল ইসলামের মন্তব্য, ‘‘ভাগ্য পরিবর্তনের আশায় যারা দুর্ভাগা অভিবাসী হয়, তাদের প্রতি মানবিকতা দেখানো ইউরোপীয় দেশগুলোর নৈতিক দায়িত্ব৷''

‘মানবপাচারকারীদের নৌযানে হামলার সিদ্ধান্ত অনুমোদন' -এর সাথে একমত নন ফেসবুক বন্ধু অসিত কুমার দাস মিন্টু৷ তাঁর মতে, ‘‘কর্মসংস্থানের আশায় যারা ইউরোপে প্রবেশ করতে অভিবাসী হয়, তাদের প্রতি মানবিক দিক বিবেচনা করে আশ্রয় দেয়া যায় কিনা বিবেচনা করলে ভালো হয়৷''

জাহাঙ্গীর আলম পরোপুরি ভিন্নমত পোষণ করেন৷ তাঁর মতে, ‘‘দেশের মানুষদের দেশে থেকেই কাজ করা উচিত৷ বেশি খাওয়ার লোভে বিদেশে যেতে গিয়ে পানিতে ডুবে মরতে হয়৷ আর দেশে নাকি কাজের লোক নেই৷''

ওমর ফারুক বিজয়ের মত'ও অনেকটা জাহাঙ্গীর আলমের মতো৷ তিনি বলছেন, ‘‘আমাদের দেশেই এখন কাজ করলে নাকি দৈনিক ৪০০/৫০০ টাকা পাওয়া যায়৷''

জিম রাসেল জানাচ্ছেন, ‘‘এভাবে বিদেশে যাওয়া যে কী কষ্ট বলে বোঝানো যাবেনা৷''

মনে হয় নিজের অভিজ্ঞতা থেকে বলছেন পাঠক সাইফুল ইসলাম, ‘‘হুদাই জীবনের ঝুঁকি নিয়া মানুষ ইউরোপে আসে, কাগজের পিছে দৌড়াইতে দৌড়াইতে অর্ধেক লাইফ শেষ, আর কাজ তো সোনার হরিণ৷''

রসুল গোলাম লিখেছেন, বিশ্ব মা‌নবতা অন্ধ হ‌য়ে গি‌য়ে‌ছে৷

মানবপাচারকারীদের নৌযানে হামলার সিদ্ধান্ত প্রসঙ্গে সামুন মোক্তাদিরের মত, ‘‘হামলা কোনো সমাধান নয়৷''

অন্যদিকে অর্জুন দাসের মতে, দালালদের কথা না শোনাই ভালো৷ তাঁর ভাষায় ‘‘যারা দালালদের কথা শুনে লোভ করে তারা তো মরে৷''

কাজি সরফারাজ ও মহম্মদ আলি শাহের মতে বিষয়টি খুবই দুঃখজনক৷

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: জাহিদুল হক

নির্বাচিত প্রতিবেদন