1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

বেদ থেকে বলিউড – জার্মানিতে ভারততত্ত্বের বিকাশ

গত সপ্তাহে বন শহরে অনুষ্ঠিত হলো দক্ষিণ এশিয়া সংক্রান্ত এক বিশাল সম্মেলন৷ দক্ষিণ এশিয়ার আধুনিক ভাষা-সংস্কৃতি ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা মত-বিনিময় করলেন৷ এই বিশ্বায়নের যুগে ইউরোপে দক্ষিণ এশিয়ার সংস্কৃতির তাৎপর্য কী?

default

জার্মানিতে বলিউড ধাঁচের নাচ আজকাল হামেশাই চোখে পড়ে

জার্মানিতে বহুকাল ধরেই ভারতের প্রতি বিশেষ আগ্রহ লক্ষ্য করা গেছে৷ ইউরোপের যেসব দেশ কোনো না কোনো সময় ভারতে উপনিবেশ গড়ে তুলেছিল, জার্মানি তাদের মধ্যে পড়ে না৷ জার্মানিতে ভারতীয়দের সংখ্যাও ছিল নগণ্য৷ তা সত্ত্বেও জার্মানির অনেক পণ্ডিত মানুষ ভারততত্ত্বের শিক্ষা-গবেষণা নিয়ে মেতে ছিলেন৷ এমনকি মহাকবি গ্যোটে'ও ভারতের ঐতিহ্যের প্রতি আকৃষ্ট হয়েছিলেন৷ মাক্স ম্যুলার'এর নাম আজ জার্মানিতে প্রায় সম্পূর্ণ অপরিচিত হলেও ভারতে তিনি আজও অমর হয়ে রয়েছেন৷

কিন্তু দিনকাল বদলেছে৷ বেদের জায়গা নিয়েছে বলিউড৷ শাহরুখ খান আজ জার্মান সংস্কৃতির মূল স্রোতের অংশ হয়ে পড়েছেন৷ ভারত আজ আর প্রাচীন সভ্যতা, হাতি ও ফকিরদের দেশ নয়৷ দরিদ্র, ক্ষুধার্ত মানুষের সেবায় মাদার টেরেসার কর্মকাণ্ডের কাহিনীও আজ আর ততটা পরিচিত নয়৷ নব্বইয়ের দশকে তথ্য-প্রযুক্তির ক্ষেত্রে ভারতের বিশাল সাফল্য এই ভাবমুর্তিতে বিশাল পরিবর্তন নিয়ে আসে৷ আজ ভারতকে উদীয়মান অর্থনৈতিক শক্তি হিসেবে গণ্য করা হচ্ছে৷ জার্মানিতে ভারতের বিনিয়োগের মাত্রা আজ ভারতে জার্মানির বিনিয়োগের উদ্যোগকে ছাড়িয়ে গেছে৷ মনে রাখতে হবে, বিষয়টা ভাবমুর্তির৷ ভারতে দারিদ্র বা ধনী-গরিবের বেড়ে চলা ফারাক আজও এক বাস্তব, তবে সেই চিত্র আপাতত পেছনের সারিতে চলে গেছে৷

Flash-Galerie Supermacht Indien - 60 Jahre demokratische Verfassung

বলিউডের দাপটে হিন্দি ভাষার প্রতি আগ্রহ বাড়ার প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে জার্মানিতে

এই প্রেক্ষাপটে আজকের ভারত তথা দক্ষিণ এশিয়া সম্পর্কে জ্ঞান অর্জনের প্রবণতাও যে নতুন এক দিকে চালিত হচ্ছে, তা মোটেই বিস্ময়কর নয়৷ বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে ভারততত্ত্বের বিকাশও ধীরে হলেও এই দিকে চালিত হচ্ছে বা হতে চলেছে৷ কিন্তু একই সঙ্গে প্রশ্ন উঠছে, শুধু চাহিদা-নির্ভর পাঠ্যক্রম জ্ঞান অর্জনের ক্ষেত্রে কতটা বাঞ্ছনীয়৷ যেমন বলিউডের দাপটে হিন্দি ভাষার প্রতি আগ্রহ বাড়ার প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে৷ এই প্রবণতার ফলে ইউরোপে বাংলা ভাষা চর্চার মাত্রা কমে যাচ্ছে৷ হাইডেলব্যার্গের মতো বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা পড়ানো হলেও গোটা ইউরোপে এমন প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা হাতে গোনা৷ তবে যাঁরা আজও বাংলা ভাষা চর্চা করছেন, তাঁদের আগ্রহে কোনো ভাটা পড়ে নি৷ বন শহরে ‘সাউথ এশিয়ান স্টাডিজ' সম্মেলনে তাঁদের সেই আগ্রহের মাত্রা দেখে বিস্ময় প্রকাশ করলেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের শ্রীলতা চট্টোপাধ্যায়৷

সম্মেলনে পণ্ডিত, অধ্যাপক ও বিশেষজ্ঞরা নানা গুরুগম্ভীর বিষয় সম্পর্কে আলোচনা করলেও তারই ফাঁকে আয়োজন করা হয়েছিল এক ‘বলিউড সন্ধ্যা'৷ বলিউডের প্রতি অ্যাকাডেমিক অবজ্ঞা, নাকি বলিউডের জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগানোর প্রচেষ্টা – এই নাচগানের আসরের উদ্দেশ্য কী ছিল?

ভবিষ্যতে দক্ষিণ এশিয়ার ভাষা-সংস্কৃতির বিষয়ে আগ্রহ ঠিক কোন দিকে মোড় নেবে তা বলা কঠিন৷ বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে ভারততত্ত্ব বা ‘সাউথ এশিয়ান স্টাডিজ' বিভাগের অস্তিত্ব, আর্থিক অনুদান, ছাত্রছাত্রীদের সংখ্যা, তাদের আগ্রহ – এই সব বিষয়ের উপর নির্ভর করবে বিবর্তনের ধারা৷ দুই বছর পর আগামী সম্মেলনে আবার খোঁজা হবে এই প্রশ্নের উত্তর৷

প্রতিবেদন: সঞ্জীব বর্মন

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

ইন্টারনেট লিংক