1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বুথ ফেরত সমীক্ষায় বিজেপির জয়লাভের ইঙ্গিত

সোমবার ভারতে লোকসভা নির্বাচনে ভোট গ্রহণ পর্ব শেষ হয়েছে৷ নবম ও শেষ দফায় ভোট হয় পশ্চিমবঙ্গ, বিহার ও উত্তর প্রদেশের ৪১টি আসনে৷ তবে সকলের দৃষ্টি কেন্দ্রীভূত ছিল উত্তর প্রদেশের বারাণসী আসনের দিকে৷

এদিকে, বুথ ফেরত সমীক্ষায় নির্বাচনে বিজেপির জয়লাভের ইঙ্গিত পাওয়া গেছে৷

সংসদের ৫৪৩টি আসনের মধ্যে সোমবার শেষ দফায় ভোট হয় পশ্চিমবঙ্গের ১৭টি, বিহারের ৬টি এবং উত্তর প্রদেশের ১৮টি আসনে৷ এবারের নির্বাচনে ভোটের আনুপাতিক হার ৬৬ শতাংশের বেশি, যেটাকে গত তিনটি সাধারণ নির্বাচনের তুলনায় সর্বাধিক বলা যায়৷

ভোটপর্ব শেষ হবার পর বুথ ফেরত সমীক্ষায় এখন পর্যন্ত ফলাফলের যে আভাস পাওয়া গেছে, তাতে দেখা যাচ্ছে, বিজেপি ভাল ফল করেছে আসাম, বিহার, ঝাড়খন্ড এবং সীমান্ধ্রে৷ পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি দাঁত ফোটাতে পারেনি৷ তৃণমূলের আসন বেড়ে হয়েছে ২০৷ তবে বেশি বেড়েছে বামফ্রন্টের৷ বামদল ১৫টি৷ ভরাডুবি হয়েছে ওড়িষাতে৷ সিংহভাগ গেছে শাসক দল বিজু জনতা দলের দখলে৷ তবে চূড়ান্ত ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করতে হবে শুক্রবার পর্যন্ত৷

সোমবারের ভোটে যেসব হেভিওয়েট প্রার্থীর রাজনৈতিক ভাগ্য ইভিএম (ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন) বন্দি হয়, তাঁদের মধ্যে আছেন আজমগড় আসনে সমাজবাদী পার্টির সুপ্রীমো মুলায়েম সিং, বারাণসী আসনে বিজেপির প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নরেন্দ্র মোদী, আম আদমি পার্টির অরবিন্দ কেজরিওয়াল, পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল প্রার্থী সুদীপ বন্দোপাধ্যায় (উত্তর কোলকাতা), দীনেশ ত্রিবেদি (ব্যারাকপুর), সৌগত রায় (দমদম), কংগ্রেসের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অধীর চৌধুরি (বহরমপুর), সিপিআই-এমের প্রাক্তন বামফ্রন্ট অর্থমন্ত্রী অসীম দাসগুপ্ত (দমদম), সুভাষিনী আলি (ব্যারাকপুর) এবং বিজেপির তপন শিকদার প্রমুখ৷

তবে গোটা দেশের নজর কেন্দ্রীভূত বারাণসী আসনের ফলাফলের দিকে৷ যেটা মোদীর কাছে এক মর্যাদার প্রশ্ন৷ দিল্লির সিংহাসনে বসার পথ মসৃণ করতে বিজেপিকে উত্তর প্রদেশের ৮০টি আসনের মধ্যে পেতে হবে কমপক্ষে ৪০টি আসন৷ সেই লক্ষ্য নিয়েই মোদী চেয়েছেন মোদী ঢেউ-এ বারাণসীকে প্লাবিত করতে৷ ভোট প্রচারে তিনি একাই চষে বেড়িয়েছেন দেশ জুড়ে প্রায় তিন লাখ কিলোমিটার৷ তারমধ্যে উত্তর প্রদেশেই প্রায় ৪০ হাজার কিলোমিটার৷ জনসভা করেছেন ৪৪০টি৷ মোদী এখন হয়ে দাঁড়িয়েছেন বিজেপির প্রতীক, অর্থাৎ মোদীই বিজেপি বা বিজেপিই মোদী৷ তবু বারাণসী কেন্দ্রে কিন্তু বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছেন আম আদমি পার্টির প্রধান দিল্লির ৪৯ দিনের মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল৷

পশ্চিমবঙ্গে ভোট হয় রক্তাক্ত আবহে৷ বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ হয় শাসকদল ও বিরোধী দলগুলির মধ্যে৷ আহত হন ২২ জনের বেশি৷ তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ মারপিট, ভাঙচুর, হুমকি দেয়া, ভয় দেখানো এইসব কিছুই করেছে তৃণমূল সমর্থকেরা৷ নাগরিক সমাজ মনে করছে ভোটের সময় সাবেক বামফ্রন্টের কৌশল নিয়েছে এবার তৃণমূল৷ বিজেপি এই প্রথম পশ্চিমবঙ্গে অন্যান্য বারের চেয়ে এবারে প্রার্থী দিয়েছে অনেক বেশি৷ বিজেপিকে আটকাতে মুখ্যমন্ত্রী কোনো কিছু করতে বাকি রাখেননি, এমন কী ব্যক্তিগত স্তরে গালাগালির পর্যায়ে নেমে আসতেও দ্বিধা করেননি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়