1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বিয়ে করে ইউরোপে আসছে শিশুরা

ইউরোপে বাল্যবিবাহের কথা আগে তেমন শোনা যায়নি, তবে এখন শোনা যাচ্ছে৷ নেদারল্যান্ডসে সিরিয়া থেকে বিয়ে করে আসছে শিশুরা৷ জার্মানিতেও এই হিড়িক শুরু হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে৷

ফাতিমা নামের একটি মেয়ে নেদারল্যান্ডসে এখন খুব আলোচিত ৷ গত ৩১ আগস্ট থেকে সে উধাও৷ মেয়েটির বয়স মাত্র ১৪৷ এই বয়সেই সে বিবাহিত এবং এক সন্তানের জননী৷ ১২ বছর বয়সেই মা হয় ফাতিমা৷ তখন সে ছিল সিরিয়ায়৷ কিন্তু স্বামীর সঙ্গে নেদারল্যান্ডসে আসার পর ডাক্তার দেখাতেও সে যায়নি৷ তাকে বা তার পরিবারের কাউকেই খুঁজে পাচ্ছেনা ডাচ সরকার৷

এই ঘটনা বেশ নাড়া দিয়েছে নেদারল্যান্ডসের সরকারি প্রশাসনকে৷ ধারণা করা হচ্ছে, সিরিয়া থেকে আসা ফাতিমা আবার দেশান্তরী হয়েছে৷ বালিকা বধূ ফাতিমার নিরুদ্দেশ হওয়ার রহস্য উন্মোচন করতে গিয়ে দেখা গেছে নেদারল্যান্ডসে ফাতিমার মতো মেয়ে আরো আছে৷ অনেক শিশু বয়সের মেয়েই সিরিয়া থেকে আসছে সন্তানের মা হয়ে৷

নেদারল্যান্ডস এবং ইউরোপের কয়েকটি দেশে নিজের দেশ থেকে কোনো ছেলে বা মেয়ে বিয়ে করে এলে বয়স খুব কম হলেও সেই বিয়ে মেনে নেয়া হয়৷ সে কারণে সিরিয়ার অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়েদের বিয়েকেও স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে৷ কিন্তু সাম্প্রতিক কিছু ঘটনায় বিদেশ থেকে কেউ ১৮ বছরের আগে বিয়ে করে এলে সেই বিয়েকে স্বীকৃতি না দেয়ার আইন প্রণয়নের কথা ভাবা হচ্ছে৷ নেদারল্যান্ডসের অভিবাসন মন্ত্রী ক্লাউস ডিওকফ জানিয়েছেন, আগামী ডিসেম্বরেই এ আইন কার্যকর হতে পারে৷

কেন এত কম বয়সে বিয়ে করছে সিরীয় মেয়ে শিশুরা? মানবাধিকার সংস্থা ‘টেরে ডেস ফেমেস'-এর ক্রিস্টা স্টোলে তুরস্কে গিয়েও বিষয়টা বুঝতে চেয়েছেন৷ সেখানে গিয়ে তিনি দেখেছেন, অনেক মেয়ে শিশুরই সেখানে বিয়ে হচ্ছে৷ শৈশবে সন্তানের জননীও হচ্ছে তারা৷ স্টোলে দেখেছেন, ধর্ষণ, নিপীড়ন থেকে সন্তানদের বাঁচাতেই বাবা-মা তাদের অল্প বয়সে বিয়ে দিয়ে দেন৷ বিয়ের জন্য বিদেশি, বিশেষ করে ইউরোপের পাত্রকেই বেশি পছন্দ করেন বাবা-মা, কেননা ইউরোপের কাউকে বিয়ে করলে যুদ্ধ থেকেও মুক্তি পাওয়া যায়৷

জার্মানিতেও এমন বালিকা বধূ খুব শিগগিরই বেশি হারে দেখা যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন অনেকে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়