1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

‘বিষে বিষক্ষয়' করতে আসরে হ্যাকার

হ্যাকাররা ভার্চুয়াল জগতে কাজ করলেও বাস্তব জগতেও বড় ক্ষতি করতে পারে৷ ‘বিষে বিষক্ষয়ের' নীতি মেনে অনেক সংস্থা তাদের মোকাবিলা করতে নিজেরাই হ্যাকার নিয়োগ করে৷ হামলার আগেই দুর্বলতা ও ত্রুটি শনাক্ত করা তাদের কাজ৷

ভিডিও দেখুন 04:17

হ্যাকার মোকাবিলা করবে হ্যাকার

তথ্য প্রযুক্তির ছাত্র ও হ্যাকার হিসেবে তাঁরা নাকি বিশ্বের কল্যাণ চান৷ হ্যাকার-রা অন্যের কম্পিউটারে ঢুকে পড়ে৷ তবে এই দু'জনের কোনো কু-মতলব নেই৷ ২১ বছর বয়সি এই দুই তরুণ ‘বাউন্টি হান্টার'-এর মতো৷ বিভিন্ন কোম্পানির হয়ে তাঁরা তথ্যভাণ্ডার ও সফটওয়্যারের মধ্যে ‘বাগ' বা নিরাপত্তার ফাঁক-ফোকর খোঁজেন৷ ‘বাগ বাউন্টি'-র ক্ষেত্রে সবচেয়ে লাভজনক কোম্পানিগুলি হলো ফেসবুক, গুগল বা টুইটার৷ হয়তো বা পে-প্যাল৷ তবে আগে ভাবতে হয়, সেখানে কতটা পাবো এবং তার জন্য কতটা সময়ের প্রয়োজন৷ এবং তা থেকে কত টাকা পাওয়া যাবে৷ গুগল-এর ক্ষেত্রে ধরে নেওয়া যেতে পারে, যে সেখানে সহজে ফাঁক-ফোকর খুঁজে পাওয়া যাবে না৷ কিন্তু পেলে অনেক বেশি টাকা পাওয়ার সম্ভাবনা আছে৷''

দুজনেই প্রায় ৩০,০০০ ইউরো করে আয় করেছেন৷ উচ্চশিক্ষা ও প্রশিক্ষণের পাশাপাশি শখের চাকরির মতো৷ কিন্তু টাকার জন্য তাঁরা এটা করেন না৷ স্বঘোষিত ‘গবেষক' হিসেবে সেবাস্টিয়ান নেফ মনে করেন, ‘‘প্রেরণা ও বড় কিছু আবিষ্কারের উত্তেজনা থেকেই এই তাগিদ আসে৷ কিছু মানুষ এক্সট্রিম স্পোর্টস নিয়ে মেতে ওঠে, বাকিরা হ্যাকিং করে৷''

এই ব্যক্তিও এমনটা করেছিলেন – তবে ৩০ বছর আগে৷ এখন তিনি জার্মান টেলিকম কোম্পানিতে কাজ করেন৷ বলেন, সাইবার সিকিউরিটি তাঁদের জন্য বড় বিষয়৷ বিষয়টিকে গুরুত্ব না দিলে কোটি কোটি টাকার লোকসান হতে পারে৷ মার্কুস শ্মাল ‘ডয়চে টেলিকম' কোম্পানির তথ্য প্রযুক্তি নিরাপত্তার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা৷ গত ৩ বছর ধরে তিনি নিজে হ্যাকার-দের কাজে লাগাচ্ছেন৷

এখনো পর্যন্ত সিস্টেমের মধ্যে প্রায় ১,৫০০ ফাঁক-ফোকর শনাক্ত করিয়ে তিনি ঠিক সময় পদক্ষেপ নিতে পেরেছেন৷ ফলে অন্য কেউ অনলাইন স্টোর-এ দাম বদলে বা তথ্যভাণ্ডারে গ্রাহকদের তথ্য চুরি করতে পারেনি৷ আইটি সিকিউরিটি প্রধান মার্কুস শ্মাল বলেন, ‘‘আমরা এই সমস্যার মোকাবিলা করছি৷ যত ভালো প্রসেস হোক না কেন, নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার গ্যারেন্টি দেওয়া সম্ভব নয়৷ সিস্টেমগুলি ইন্টারনেটে রয়েছে, হামলাকারীরা যে কোনো সময় বানচাল করার চেষ্টা করতে পারে৷ সেটা আজ অসম্ভব নয়৷ প্রতিটি দুর্বলতা শনাক্ত করতে পারলে ক্ষতির মাত্রা কমানো সম্ভব৷''

এই দুই হ্যাকার পাডারবর্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেন৷ এখনো পর্যন্ত তাঁদের সেরা কাজ হলো পে-প্যাল ওয়েবসাইট-এর এক মারাত্মক দুর্বলতা শনাক্ত করা৷ তাদের সোর্স কোড-এর মধ্যে এক ত্রুটির কারণে যে কেউ তাদের সার্ভার থেকে তথ্য ডাউনলোড করতে পারতো৷ এই ভুল ধরিয়ে দিয়ে তাঁরা ১৫,০০০ ইউরো আয় করেছিলেন৷ বিশ্ব ভ্রমণের বাজেট উঠে এসেছিল৷

এবার এই দুই তরুণ শিল্পক্ষেত্রে প্লান্টের কাজকর্মের ত্রুটি খুঁজছেন৷ তথ্য প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ এবং হ্যাকার টিম শেফার্স বলেন, ‘‘কোনো কম্পিউটার সিস্টেমের মধ্যে বাইনারি কোড বা ডেটাব্যাংকের ত্রুটি এ ক্ষেত্রে মূল বিষয় নয়৷ বাস্তবে তার প্রভাব পড়লে বিপদ ঘটতে পারে৷ কোথাও কোনো পাম্প বিকল হয়ে গেলে, আলোর নিয়ন্ত্রণে ভুল হলে অথবা স্মার্টফোনে গোলমাল হলে বাস্তব জগতে তার বিশাল পরিণাম দেখা যায়৷ গ্রাহক সংক্রান্ত তথ্য চুরির তুলনায় তার পরিণাম অনেক মারাত্মক হতে পারে৷''

মার্কুস শ্মাল শুধু ‘বাউন্টি হান্টার'-দের উপর ভরসা করেন না৷ তাঁর কোম্পানি ডয়চে টেলেকম গ্রাহকদের আস্থা হারাতে চায় না৷ তারা নিজেরাই হ্যাকিং বন্ধে নিরাপত্তা সফটওয়্যার তৈরি করে৷

হামলার ধরন প্রতিদিন বদলে যাচ্ছে৷ তাই শ্মাল আগে থেকেই তাদের জন্য ‘হানিপট' বা ফাঁদ পেতে রাখেন৷ মার্কুস শ্মাল বলেন, ‘‘অর্থাৎ আমরা ইন্টারনেটে এমন একটি ওয়েব সার্ভার, ওয়েব পর্টাল তৈরি করেছি, যা হামলাকারীর কাছে দুর্বল মনে হতে পারে৷ তারপর সার্চ ইঞ্জিনে তার প্রচার করেছি৷ তারপর হামলার অপেক্ষায় থাকি৷ তখন জানতে পারি কারা কীভাবে আমাদের উপর হামলা চালায়৷''

যে সব হ্যাকাররা ‘বাউন্টি হান্টার' হিসেবে বিভিন্ন কোম্পানির জন্য কাজ করেন, তাঁদের কিছু নিয়ম মেনে চলতে হয়৷ প্রথমত ত্রুটি খুঁজে পেলে তা শোধরানোর আগে পাঁচ-কান করা যায় না৷ না হলে পারিশ্রমিক জোটে না৷

গ্রিট হোফমান/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়