1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বিশ্ব শান্তির আহ্বানে হিমালয়ের পথে পুস্কর শাহ

বিশ্ব শান্তির মন্ত্র বুকে নিয়ে বিশ্বের দেড়শ’টি দেশ ঘুরে এবার ঐসব দেশের জাতীয় পতাকা মাউন্ট এভারেস্টে উত্তোলন করতে যাচ্ছেন পুস্কর শাহ৷ সাইকেলে করে সড়ক পথে ১১ বছরে এতোগুলো দেশ ভ্রমণের কৃতিত্ব এই নেপালি অভিযাত্রীর৷

default

মাউন্ট এভারেস্ট

চলতি সপ্তাহেই হিমালয়ের চূড়ায় চারটি মহাদেশের মোট দেড়শ' দেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করবেন শাহ৷ তিনি বলেন, ‘‘আমি বিশ্ব ভ্রমণের সময় যেসব পতাকা সংগ্রহ করেছি, সেগুলো হিমালয়ের চূড়ায় সাজিয়ে দিতে চাই৷'' ‘‘শান্তির বার্তা ছড়িয়ে দেওয়া এবং বিশ্বকে দেখাটাই ছিল আমার লক্ষ্য,'' বলেন শাহ৷

বিশ্ব ভ্রমণ শেষ করে অবশ্য পুস্কর শাহ স্বগতোক্তি করেছেন এই বলে যে, তাঁর পাগুলো সম্ভবত যথেষ্টই শাস্তি পেয়েছে৷ তবুও তাঁর বিশ্বাস,

গোটা বিশ্ব জুড়ে চলমান যুদ্ধের বিরুদ্ধে তাঁর শান্তিপূর্ণ লড়াইয়ের চূড়ান্ত পরিণতিই হবে মাউন্ট এভারেস্টে এই পতাকাগুলো স্থাপন৷ বিশ্ব শান্তির প্রচারাভিযানে তাঁর এমন দুঃসাহসিক যাত্রার পেছনে আরেকটি ঘটনা তাঁকে উৎসাহ জুগিয়েছে৷ তা হলো, একজন গোর্খা যোদ্ধা হিসেবে ভারতীয় সেনাবাহিনীর হাতে তাঁর পিতার খুন৷

তাঁর নিজের গ্রামে পুস্কর শাহের পরিচিতি রয়েছে ‘জীবন্ত শহীদ' হিসেবে৷ কারণ ১৯৯০ সালে মাত্র বিশ বছর বয়সে নেপালের তৎকালীন রাজার বিরুদ্ধে বিক্ষোভের সময় গুলি খেয়েছিলেন তরুণ শাহ৷ এতে তিনি এতোটাই মারাত্মকভাবে আহত হয়েছিলেন যে, তাঁর বেঁচে ওঠার ব্যাপারে কারো আশা ছিল না৷ অবশ্য ঐ বিক্ষোভের সফল পরিণতি ছিল নেপালে গণতন্ত্রের পুনঃপ্রতিষ্ঠা৷

পুস্কর শাহ'র সাইকেল ভ্রমণের শুরুটা ছিল বেশ উদ্বেগজনক৷ কারণ তিনি বিভিন্ন দেশের এক গোছা মানচিত্র আর নগদ মাত্র ১০০ নেপালি রুপি নিয়ে শুরু করেন এই বিশ্ব ভ্রমণ৷ ১০০ নেপালি রুপি হলো মাত্র ১.০৪ ডলার৷ তিনি বলেন, ‘‘এটা কোন আরামদায়ক ভ্রমণ ছিল না৷ পথিমধ্যে আমি যেসব মানুষের সাথে সাক্ষাৎ করেছি তাঁদের বদান্যতা আর অনুগ্রহ আমাকে এগিয়ে নিয়েছে এতটা পথ৷'' জানা গেছে, শাহ প্রতিদিন ১০ ঘণ্টা করে সাইকেল চালাতেন৷ সাইকেল চালিয়ে পেরিয়েছেন মোট দুই লক্ষ বিশ হাজার কিলোমিটার৷

প্রতিবেদক: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সংশ্লিষ্ট বিষয়