1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বিশ্বে মধ্যবিত্তদের সংখ্যা সর্বাধিক হবে ভারতে

সমীক্ষা বলছে, ২০৩০ সাল নাগাদ বিশ্বে মধ্যবিত্তদের সংখ্যা সবথেকে বেশি হবে ভারতে৷ সংখ্যাটা দাঁড়াবে ৪০ কোটির মতো৷ ভারতের মতো বিকাশমুখী দেশের পক্ষে সেটা আশীর্বাদ না অভিশাপ – প্রশ্ন সেটাই৷

ভারতের রাজনৈতিক দলগুলি ২০১৪ সালের সাধারণ নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে৷ ১২০ কোটি জনসংখ্যার দেশে তাদের কাছে পাখির চোখ হচ্ছে ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ মধ্যবিত্ত শ্রেণির ভোট ব্যাংক৷ কেন্দ্রে সরকার গড়তে এবং ফেলতে এই মধ্যবিত্তদের শক্তি অসীম৷ ২০৩০ সাল নাগাদ গোটা বিশ্বে মধ্যবিত্তদের সংখ্যা দাঁড়াবে ৫০০ কোটি৷ তার মধ্যে ভারতে মোটামুটি ৪০ থেকে ৫০ কোটি৷ বর্তমানে চীনে মধ্যবিত্তরা জনসংখ্যার ৬৫ শতাংশ, ভুটানে ৫০ শতাংশ এবং পাকিস্তানে ৪০ শতাংশ৷

কাদের বলা হবে মধ্যবিত্ত? এশিয়ান উন্নয়ন ব্যাংকের সংজ্ঞা অনুযায়ী, যাঁরা দৈনিক ২ থেকে ২০ মার্কিন ডলার খরচ করেন তাঁরা পড়েন উচ্চবিত্ত শ্রেণিতে৷ প্রশ্ন উঠেছে, যাঁরা দৈনিক দুই ডলার খরচ করেন, তাঁদের কি প্রকৃতপক্ষে মধ্যবিত্ত শ্রেণিতে ফেলা যায়? ২০১১ সালের আদমসুমারিতে পাওয়া ব্যাখ্যা অনুযায়ী, যাঁদের বাড়িতে টিভি, কম্পিউটার/ল্যাপটপ, স্কুটার/গাড়ি, ফোন/মোবাইল ফোন আছে – তাঁরাই মধ্যবিত্ত পদবাচ্য৷

১৯৯১ সালে আর্থিক সংস্কার ভারতের ইতিহাসে এক মাইলফলক৷ সেসময় খুলে দেয়া হয় বিদেশির জন্য ভারতের দরজা৷ এর দুটি দিক৷ একদিকে বিদেশি লগ্নিকারীদের জন্য মধ্যবিত্তদের বাজার, অন্যদিকে ভারতের প্রবৃদ্ধির হার বাড়ার সম্ভাবনা৷ মধ্যবিত্তদের আয় বাড়লে তাঁরা খরচ বেশি করবেন৷ খরচ বেশি করলে চাহিদা বাড়বে৷ চাহিদা বাড়লে উৎপাদন বাড়বে৷ উৎপাদন বাড়লে কর্মসংস্থানের সুযোগ বাড়বে৷ আর চক্রবৃদ্ধি হারে তার প্রভাবে আয় বাড়বে গরিবদেরও৷ উল্লেখ্য, বর্তমানে ভারতের ৩০ শতাংশ মানুষ দারিদ্রসীমার নীচে বাস করেন৷

পাশাপাশি এর চ্যালেঞ্জও বড় কম নয়৷ একবিংশ শতাব্দীতে ভারতে খাদ্য ও এনার্জি নিরাপত্তার মোকাবিলা করতে হবে৷ মুদ্রাস্ফীতি ক্রমবর্ধমান৷ গত দু'বছরে আর্থিক সংকটে মার খাচ্ছেন বেশি মধ্যবিত্তরা৷ দৈনন্দিন সংসার খরচ বাড়ছে, জমিজমা, ঘরবাড়ির দাম হচ্ছে আকাশছোঁয়া৷ তবু মধ্যবিত্তরা আশা ছাড়েননি৷

সমাজবিজ্ঞানীদের মতে, মধ্যবিত্তরা ভোগেন চাকরির মানসিকতায়৷ তাঁরা চাকরি চান, কিন্ত অন্যকে চাকরি দিতে পারেন না৷ কারণ, তাঁদের মধ্যে উদ্যোগী তৎপরতা কম৷ ঝুঁকি নেবার সাহস কম৷ কোম্পানি গঠন করাও তাঁদের নাগালের বাইরে৷

ভারতীয় সমাজে জাতিভেদ প্রকট৷ জাতপাত অনুযায়ী হয় কাজের বিন্যাস৷ যদিও এখন জাতিভেদ অনেকটা কম৷ বর্তমানে কিছু কিনতে বা বিক্রি করতে গেলে কেউ জিজ্ঞাসা করে না, তোমার জাত কী?

নির্বাচিত প্রতিবেদন