1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভাইরাল ভিডিও

বিশ্বের সবচেয়ে বড় ‘বেড়াল' হারকিউলিস

হারকিউলিস আসলে একটি ‘লাইগার', অর্থাৎ সিংহ আর বাঘের সংমিশ্রণ৷ গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে তার নাম আছে বিশ্বের বৃহত্তম, জীবন্ত, অ-মেদবহুল মার্জার হিসেবে৷ সেই জীবটি যদি আবার যায় লন্ডন শহরে...!

হারকিউলিসের ওজন ৪১৮ কিলোগ্রাম; সে লম্বায় ৩ মিটার ৩৩ সেন্টিমিটার; দাঁড়ানো অবস্থায় তার কাঁধের উচ্চতা এক মিটার ২৫ সেন্টিমিটার৷ সে হলcf লায়ন (বাবা) আর টাইগার (মা) মিলিয়ে লাইগার৷ লাইগারদের আজকাল মুক্ত প্রকৃতিতে পাওয়ার উপায় নেই৷ এককালে নাকি এশিয়ায় যেমন বাঘ, তেমন সিংহ ছিল; তখন নাকি বনে-জঙ্গলে লাইগারদেরও দেখা পাওয়া যেতো৷

হারকিউলিসের এই ভাইরাল ভিডিওটি প্রকাশিত হয় বছর তিনেক আগে৷ তারপর থেকে এ পর্যন্ত কয়েক লক্ষ বার ক্লিক করা হয়েছে৷ তার বাস আজ যুক্তরাষ্ট্রের সাউথ ক্যারোলাইনা রাজ্যের মির্টল বিচ সাফারি ওয়াইল্ডলাইফ রিজার্ভে৷ আগে থাকত মায়ামির জাঙ্গল আইল্যান্ড অ্যানিমাল থিম পার্কে৷ অনেকদিন ধরেই সে বিখ্যাত৷

তিন বছর বয়সেই তার ওজন দাঁড়িয়েছিল ৪০৮ কিলো৷ ২০০৫ সালে তাকে টুডে শো, গুড মর্নিং অ্যামেরিকা, অ্যান্ডারসন কুপার ৩৬০ ইত্যাদি শো-তে দেখা গেছে৷

ভাইরাল ভিডিও-তে হারকিউলিসকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে লন্ডনে৷ সেখানে প্রথমেই সে বিটলসদের অ্যাবি রোড অ্যালবামের সেই প্রখ্যাত জেব্রাটির উপর ভুঁড়ি পেতে শুয়ে৷ তারপর তাকে দেখা যাচ্ছে একটি লন্ডন ট্যাক্সির পাশে৷ এইভাবেই এই ছোট্ট ভিডিওটিতে হারকিউলিসের সাইজের একটা আন্দাজ দেওয়া চেষ্টা করা হয়েছে৷ একবার সে আন্ডারগ্রাউন্ড স্টেশনের প্রবেশমুখে, একবার ব্রিটেনের নিজস্ব লালরঙা টেলিফোন কেবিনের পাশে৷ শেষমেষ ছাদখোলা একটি দোতলা টুর বাস থেকে তাকে মাংসের টুকরো খাওয়ানো হচ্ছে৷

এই নেহাৎ ভালোমানুষ হুলোবেড়ালটিকে হিংস্র শ্বাপদ বলে ভাবতেই পারা যায় না৷ মনে হয় গলা জড়িয়ে ধরে আদর করি৷ হারকিউলিসেরও বোধহয় তা'তে আপত্তি হবে না৷ সে তো আজও বুঝে উঠতে পারেনি, সে বাঘ না সিংহ...৷

এসি/এসিবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়