1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

বিশ্বব্যাপী বাড়ছে ভেজাল ওষুধের দৌরাত্ম্য

বিশ্ববাজারে বাড়ছে জাল বা ভুয়া ওষুধ৷ এ ধরনের ভেজার ওষুধের বাণিজ্য লাভজনক হওয়ায় বেড়েই চলেছে ভেজাল ওষুধের বাজারজাতকরণ৷ সীমান্তে সহযোগিতার মাধ্যমে এই ভয়াবহ বাণিজ্য রোধের প্রচেষ্টা চলছে৷

ভেজাল ওষুধ, যেটা তৈরি হচ্ছে আর্সেনিকের মতো বিষ দিয়ে৷ শুধু তাই নয়, কখনও কখনও কোনো কোনো ওষুধে উপাদান বলতে থাকে চারকোল আর পানি৷ প্রতি বছর আন্তর্জাতিক অপরাধ সিন্ডিকেট এসব ভেজাল ওষুধ বাজারজাত করে কোটি কোটি টাকা উপার্জন করছে৷

দেখা যাচ্ছে, বেশিরভাগ ওষুধই বিক্রি হচ্ছে ইন্টারনেটে৷ এগুলো যে কাজ করে না তাই নয়, তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে মৃত্যুর কারণও হতে পারে এগুলো৷ এই যেমন, প্রতি বছর আফ্রিকায় ম্যালেরিয়া ও যক্ষার জন্য ভেজাল ওষুধ খেয়ে মৃত্যু হচ্ছে কমপক্ষে ৭ লাখ মানুষের৷

জার্মানিসহ বিশ্বের বেশিরভাগ দেশেই অবাধে বিক্রি হচ্ছে এসব ওষুধ৷ কোলোন শুল্ক অধিদপ্তরের কর্তৃপক্ষ রুথ হালিটি জানালেন সংখ্যাটা দিন দিন বাড়ছে৷ এ বছরের প্রথম ৬ মাসে কোলোন কাস্টমস ১৪ লাখ ভেজাল বড়ি, পাউডার এবং অ্যাম্পুল আটক করেছে, যা গত বছরের চেয়ে ১৫ ভাগ বেশি৷

সন্দেহজনক চালান

হালিটি জানালেন, সন্দেহভাজন পার্সেল বা প্যাকেট নজরে এলে সেগুলো ল্যাবরেটরিতে পাঠানো হয় পরীক্ষা-নীরিক্ষার জন্য৷

Drogenkonsum Dänemark

জার্মানিসহ বিশ্বের বেশিরভাগ দেশে অবাধে বিক্রি হচ্ছে ভেজাল ওষুধ

একটি সংঘবদ্ধ অপরাধ চক্র ভেজাল ওষুধ তৈরি ও বাজারজাতকরণের সাথে জড়িত বলে জানালেন তিনি৷ এক্ষেত্রে লাভের পরিমাণটা ২৫ হাজার ভাগ বেশি৷

আন্তর্জাতিক সহযোগিতা

ভেজাল ওষুধের বিশ্বব্যাপী নেটওয়ার্কের কারণে প্রতিটি দেশের সীমান্তে কড়া নিরাপত্তার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সেসব দেশের কর্তৃপক্ষ৷ ২০১৩ সালের মাঝামাঝি থেকে যৌথবাহিনী চালানগুলো পরীক্ষা করে দেখেন এবং তল্লাশি চালান৷ এ কয়েক মাসে পুলিশ জাহাজগুলোতে তল্লাশি চালিয়ে ১ কোটি জাল ওষুধ জব্দ করেছে এবং দু'শো জনকে আটক করেছে৷

ইউরোপীয় ইউনিয়নও ভেজাল ওষুধ রোধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার কথা ভাবছে৷ ২০১৭ সালের মধ্যে সব ওষুধের প্যাকেটে নিরাপত্তা কোড দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা৷ এমনকি অনলাইনেও এমন কোড রাখার চিন্তাভাবনা হচ্ছে৷

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, অনলাইনে যেসব ওষুধ বিক্রি হয়, তার প্রায় সবগুলোই ভেজাল৷

কেবল ম্যালেরিয়ার ওষুধই নয়, হৃদরোগ বা রক্তচাপ, এমনকি এইচআইভির চিকিৎসাতেও ব্যবহার হচ্ছে ভেজাল ওষুধ৷ সংস্থাটি জানিয়েছে, ১৯৯০ দশকের মাঝামাঝিতে নাইজারে মেনিনজাইটিস রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিলে যে ওষুধ দেয়া হয়েছিল, সেটা ছিল ভেজাল৷ আর সে কারণে মৃত্যু হয়েছিল আড়াই হাজার মানুষের৷

এপিবি/ডিজি (হাইমো ফিশার)

নির্বাচিত প্রতিবেদন