1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বিশ্বজুড়ে চলছে নববর্ষ পালন উৎসব

শুরু হলো নতুন বছর ২০১১৷ বিশ্বজুড়ে এখনো চলছে নতুন বছরকে বরণ করে নেয়ার উৎসব৷ এরই মধ্যে নাইজিরিয়ায় বোমার আঘাতে মারা গেছেন চারজন৷

default

বার্লিনের ব্রান্ডেনবুর্গ গেটে নববর্ষের আতশবাজি

নববর্ষ পালন শুরু হয়েছে প্রশান্ত মহাসাগরের ছোট্ট দ্বীপ কিরিবাতি থেকে৷ কারণ এই দ্বীপের মানুষরাই সবার আগে নতুন বছরের পরশ পেয়েছে৷ এরপর আস্তে আস্তে নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, জাপান, চীন, মধ্যপ্রাচ্য হয়ে ইউরোপের বাসিন্দারা বরণ করে নিয়েছে ২০১১ সালকে৷ এই মুহূর্তে উৎসব চলছে অ্যামেরিকায়৷

ধারনা করা হচ্ছে, এবার নতুন বছরের সবচেয়ে বড় উৎসবটি হয়ে গেল অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে৷ আতশবাজির খেলায় মেতে উঠেছিল সিডনির বিখ্যাত হারবার ব্রিজ এলাকা৷ প্রায় ১৫ লক্ষ মানুষ সেটা উপভোগ করেছে বলে দাবি আয়োজকদের৷

Neujahr in Vietnam Hanoi

ভিয়েতনামে নববর্ষ পালন

উৎসব শুরু হওয়ার ১২ ঘন্টা আগে থেকেই সেখানে মানুষ জড়ো হতে শুরু করেছিল বলে খবর পাওয়া গেছে৷

এদিকে ভিয়েতনাম এবার প্রথমবারের মত ধুমধাম করে বরণ করে নিল ইংরেজি নববর্ষকে৷ এর আগে তারা লুনার ক্যালেন্ডার অনুযায়ী নববর্ষ পালন করতো৷ যেটা শুরু হতো ফেব্রুয়ারির তিন তারিখে৷

অস্ট্রেলীয়রা যেমন আতশবাজি নিয়ে মেতে উঠছিল, জাপানীদের হাতে তেমন ছিল বেলুন৷ আর জার্মানিতে নববর্ষের প্রধান উৎসবটা হয়ে গেল বার্লিনের বিখ্যাত ব্রান্ডেনবুর্গ গেট এলাকায়৷ সেখানে মানুষের ঢল এত ছিল যে, রাত ১২টা বাজার দেড় ঘন্টা আগেই পুলিশকে ঐ এলাকায় মানুষের ঢোকা বন্ধ করে দিতে হয়েছিল৷

তবে বিশ্বের সবাই যে আনন্দ করে নববর্ষকে বরণ করতে পেরেছে তা কিন্তু নয়৷ এই উৎসব করতে গিয়েই নাইজিরিয়ায় প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত চারজন৷ আর আহত হয়েছেন আরও কয়েকজন৷ কোনো কোনো সংবাদ মাধ্যম নিহতের সংখ্যা ১১ বলে বলছে৷

জানা গেছে, রাজধানী আবুজার একটি বাজার এলাকায় নববর্ষ পালন করতে সমবেত হয়েছিলেন অনেকেই৷ সামরিক ব্যারাকের মধ্যে অবস্থিত মাম্মি নামের ঐ বাজারটি এধরণের উৎসব পালনের জন্য আগে থেকেই বেশ জনপ্রিয়৷ তাই সেখানে লোকজন একসঙ্গে হয়ে খাচ্ছিল, গান গাইছিল আর নাচছিল৷ কিন্তু আগে থেকে পেতে রাখা বোমার বিস্ফোরণ হলে ঐ হতাহতের ঘটনা ঘটে৷ উল্লেখ্য, এর আগে ক্রিসমাসের আগেরদিন সন্ধ্যায়ও নাইজিরিয়াতে বোমা হামলার ঘটনা ঘটেছিল৷ সেসময়ও বেশ কয়েকজিন নিহত হয়েছিলেন৷

প্রতিবেদন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম

সংশ্লিষ্ট বিষয়