1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

বিশ্বকাপ নিয়ে মেতেছে বাঙালিও

বিশ্ব ফুটবলে বাংলাদেশের অবস্থান ১৫৭, কিন্তু বিশ্বকাপ নিয়ে বাঙালির মাতামাতি দেখলে তা কে বলবে ! আকাশ থেকে কেউ যদি এখন বাংলাদেশের কোন এলাকার দিকে তাকায় তাহলে মনে হবে দেশটি এখন আর্জেন্টিনা নয়তো ব্রাজিলের৷

default

বিশ্বকাপ যেন বাঙালির দৈনন্দীন জীবনে এক নতুন উত্তেজনা নিয়ে এসেছে

মনে হবেই না বা কেন ? বাংলাদেশের প্রায় সবগুলো বাড়ির ছাদই যে এখন ছেয়ে আছে নীল-সাদা নয়তো হলুদ-সবুজ পতাকায়৷ আবেগী বাঙালি নিজের পতাকা ওড়াতে ভুলে গেলেও বিশ্বকাপে তার প্রিয় দলের পতাকাটি ওড়াতে ঠিকই ভোলে না৷ আর্জেন্টিনা নাকি ব্রাজিল, এই রেষারেষি এখন কেবল ক্লাব কিংবা পাড়া মহল্লাতে নয়, ঘরের খাবার টেবিলে পর্যন্ত গড়িয়েছে৷ কখনো কখনো সেটা দেখা যায় স্বামী স্ত্রীর ঝগড়াতেও৷ এক মাসের এই বিশ্বকাপ জ্বরই পারে বাংলাদেশের মানুষকে তাদের দুঃখ বেদনাকে দুরে সরিয়ে রাখতে, অনেক না পাওয়ার অভাবকে ভুলে থাকতে৷ আর্জেন্টিনা আর ব্রাজিলের এই ঠেলাতে পড়ে বিশ্বের আর সব শক্তিশালী দেশগুলো পাত্তা পায় না তৃতীয় বিশ্বের এই দেশটিতে৷ গুটিকয়েক ইটালি, জার্মানি কিংবা ইংল্যান্ডের সমর্থকদের হয়তো দেখা যায়, কিন্তু সেটা শুধু নিজেদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ৷

যা-ই হোক, ফুটবল বিশ্বকাপ যেমন বাঙ্গালির দৈনন্দীন জীবনে এক নতুন উত্তেজনা নিয়ে এসেছে, তেমনি অনেকের ব্যবসাতেও এখন পোয়া বারো৷ যেমন ফতুল্লার একটি তৈরি পোশাক কারখানার মালিক আবদুল কাহহার বললেন, বিশ্ব আর্থিক মন্দার কারণে গত কয়েকমাস ধরে আমাদের ব্যবসায় মন্দা চলছে৷ কিন্তু গত দুই সপ্তাহে আমাকে আরও ৫০ জন শ্রমিক খাটাতে হয়েছে কেবল পতাকা সেলাইয়ের কাজে৷ আগামী মাসে আমি শ্রমিকদের ঠিকমত বেতন দিতে পারবো৷ ঢাকার ছোট একটি দোকানের বিক্রেতা ফয়েজ আহমেদ টিটু জানান, যে গত এক সপ্তাহ ধরে তিনি প্রতিদিন দুই হাজার পতাকা বিক্রি করছেন৷ এজন্য তাকে এক ডজন বাড়তি লোক ভাড়া করতে হয়েছে৷

আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল নিয়ে বাঙালির এই আবেগের কারণ কি? ক্রীড়া লেখক মোতাহার হোসাইন মাসুম বলেলেন, ১৯৮২ সাল থেকে প্রথম টিভিতে বিশ্বকাপের খেলা দেখানো শুরু হয়৷ তখনই ব্রাজিলীয় ফুটবলের সৌন্দর্য সকলের মন কেড়ে নেয়৷ চার বছর পর আর্জেন্টিনার মারাদোনা ভেল্কি দেখান৷ এর পর থেকে সমর্থকরা এই দুটি দেশকেই তাদের মনে জায়গা দিয়েছে৷

প্রতিবেদন : রিয়াজুল ইসলাম

সম্পাদনা : দেবারতি গুহ

সংশ্লিষ্ট বিষয়