1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

বিশ্বকাপ জার্সিতে বাংলাদেশ বিশ্বময়

বিশ্বকাপ সামনে রেখে সারা বিশ্বের ফুটবলপ্রেমীদের জন্য এ বছর অন্তত ৫০ কোটি ডলার মূল্যের জার্সি রপ্তানি করছে বাংলাদেশ৷ আর রানা প্লাজা ধসে নিহতদের স্মরণে বিশ্বকাপে ব্রাজিলের জার্সিতে থাকছে ‘মেড ইন বাংলাদেশ' ট্যাগ৷

বাংলাদেশের নিটওয়্যার উৎপাদক ও রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিকেএমইএর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম জানান, এ বছর বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের চাহিদা গতবারের তুলনায় ১৪ শতাংশ বেড়েছে, যার পেছনে মূল ভূমিকা রেখেছে ব্রাজিলে অনুষ্ঠেয় বিশ্বকাপ ফুটবল

‘‘আমাদের প্রায় ১০০ কারখানা বিশ্বকাপে বিভিন্ন দলের ফ্যানদের জন্য জার্সি তৈরির কাজ পেয়েছে৷ এসব কোম্পানি ঠিক কতো টাকার কাজ পেয়েছে তার সুনির্দিষ্ট তথ্য এ মুহূর্তে আমাদের হাতে না থাকলেও এর পরিমাণ ৫০ থেকে ১০০ কোটি ডলার পর্যন্ত হতে পারে৷''

হাতেম আশা করছেন, জুনে শেষ হতে যাওয়া বর্তমান অর্থ বছরে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাতের রপ্তানি আয় রেকর্ড ২৫ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছাতে পারে, যা গত অর্থবছরের চেয়ে তিন বিলিয়ন ডলার বেশি৷

এই আয়ের একটি বড় অংশ আসছে জার্সি, ট্র্যাকস্যুটসহ বিশ্বকাপকেন্দ্রিক বিভিন্ন ক্রীড়া পণ্য রপ্তানি করে৷ গার্মেন্ট পণ্য রপ্তানিতে বিশ্বের বৃহত্তম দেশ চীনের তুলনায় অনেক সস্তায় মানসম্মত পোশাক দিতে পারছে বলেই বিদেশি ক্রেতাদের কাজ পাচ্ছে বাংলাদেশি কারখানাগুলো৷

Interaktiver WM-Check 2014 Mannschaft Brasilien

বিশ্বকাপে ব্রাজিলের সব জার্সিতে ‘মেড ইন বাংলাদেশ' ট্যাগ লাগানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির ফুটবল কর্তৃপক্ষ

নাইকি, পুমা, আডিডাসের মতো বিশ্বখ্যাত ক্রীড়া পোশাক বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান এবার বিশ্বকাপ সামনে রেখে বাংলাদেশ থেকে জার্সি তৈরি করিয়ে নিচ্ছে৷ এসব জার্সি গায়ে দিয়েই বিশ্বের নানা প্রান্তে বসে ফুটবলের সবচেয়ে বড় প্রতিযোগিতা উপভোগ করবেন বিশ্বকাপে থাকা ৩২টি দেশের সমর্থকরা৷

হাতেম জানান, জার্মানি, ফ্রান্স, স্পেন, বেলজিয়াম, ইটালি ও পর্তুগালের ফুটবল সমর্থকদের জন্য কেবল তাঁর কারখানাতেই প্রায় আড়াই লাখ জার্সি তৈরি হয়েছে৷

ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, চিলির ফুটবলপ্রেমীদের জার্সি তৈরির জন্য পুমার কাছ থেকে ৩০ লাখ ডলারের অর্ডার পেয়েছেন আরেক বাংলাদেশি গার্মেন্ট ব্যবসায়ী কেএম রেজাউল হাসানাত৷

ভিয়েলাটেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান হাসানাত বলেন, ‘বিশ্বকাপ সামনে রেখে বিভিন্ন সামগ্রী রপ্তানি করে এবার বাংলাদেশের আয় এক বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেলে আমি অবাক হব না৷''

বাংলাদেশের অনেক ছোট ছোট কোম্পানি বিশ্বকাপের দেশগুলোর পাতাকা, ক্যাপসহ বিভিন্ন সামগ্রী রপ্তানি করেছে৷ তবে এর পরিমাণ কতো, সেই পরিসংখ্যান বিজিএমইএ বা বিকেএমইএর হাতে নেই৷

এক বছর আগে ভয়াবহ এক দুর্ঘটনার ফলে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাতের দুর্দশার চিত্র সারা বিশ্বের সামনে চলে আসে৷ মর্মান্তিক সেই ঘটনায় সাভারের রানা প্লাজা ধসে অন্তত ১ হাজার ১৩৮ জনের মৃত্যু হয়, যাঁদের অধিকাংশই ছিলেন ওই ভবনে থাকা পাঁচটি পোশাক কারখানার কর্মী৷

এই পোশাক শ্রমিকদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে বিশ্বকাপে ব্রাজিলের সব জার্সিতে ‘মেড ইন বাংলাদেশ' ট্যাগ লাগানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির ফুটবল কর্তৃপক্ষ৷ ফলে বিশ্বকাপে না খেললেও পোশাক শ্রমিকদের কল্যাণে ব্রাজিল বিশ্বকাপে বাংলাদেশও থাকছে৷

বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম পোশাক রপ্তানিকারক দেশ বাংলাদেশে ৪০ লাখেরও বেশি মানুষ গার্মেন্ট শিল্পের সঙ্গে জড়িত, যাঁদের একটি বড় অংশ নারী৷ দেশের মোট রপ্তানি আয়ের প্রায় ৮০ শতাংশ এ খাত থেকেই আসে৷

জেকে/জেডএইচ (এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়