1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

বিশ্বকাপে কেলেঙ্কারি: মারাদোনা থেকে সুয়ারেজ

জমে উঠেছে বিশ্বকাপ৷ অঘটন, বড় বড় দলের বিদায়, অসাধারণ গোল – সবই দেখা যাচ্ছে৷ অনাকাঙ্খিত ঘটনাও ঘটছে৷ সর্বশেষ ঘটনা লুইস সুয়ারেজের ইটালির ডিফেন্ডার কিয়েলিনির পিঠ কামড়ানো৷ বিশ্বকাপে অবশ্য এর চেয়ে বড় কেলেঙ্কারিও হয়েছে৷

মারাদোনার ‘ঈশ্বরের হাত'

ব্রাজিল বিশ্বকাপে মঙ্গলবার ইটালির বিপক্ষে মুখ এবং দাঁতের ‘ভুল ব্যবহার' করেছেন উরুগুয়ের ফরোয়ার্ড লুইস সুয়ারেজ৷ স্বাভাবিক অবস্থায় পূর্ণ বয়স্ক মানুষ কামড় দেয় খাবারে, সুয়ারেজ কিনা বিশ্বকাপের মতো বড় আসরে কামড় বসিয়েছেন ইটালির জর্জো কিয়েলিনির পিঠে! ফলে এবারের আসরে সুয়ারেজের ভবিষ্যৎ সংকটাপন্ন৷

Fußball-WM '86: Maradona und Bilardo jubeln

ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা গোলটিও করেছিলেন মারাদোনা

১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপে কিন্তু মাথার বদলে হাত ব্যবহার করেও পার পেয়ে গিয়েছিলেন দিয়েগো মারাদোনা৷ কোয়ার্টার ফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে হেড না করে, হাত দিয়ে গোল করেছিলেন ‘আর্জেন্টাইন ফুটবল ঈশ্বর'৷ টিউনিসিয়ার রেফারি আলী বিন-নাসের বুঝতে পারেননি৷ মারাদোনার হাত দিয়ে করা গোলে এগিয়ে যায় আর্জেন্টিনা৷ তারপর অবশ্য ইংল্যান্ডের ছয়জন খেলোয়াড়কে কাটিয়ে ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা গোলটিও করেছিলেন মারাদোনা৷ তবে বেশি আলোচনা হয় সেই হাত দিয়ে করা গোল নিয়েই৷ ২-১ গোলে হেরে কোয়ার্টার ফাইনল থেকেই বিদায় নিয়েছিল ইংল্যান্ড৷ ম্যাচ শেষে হাতের গোল সম্পর্কে মারাদোনা বলেছিলেন, ‘‘গোলটি হয়েছে আসলে খানিকটা মারাদোনার মাথা আর ঈশ্বরের হাতের সমন্বয়ে৷'' সেই থেকে ‘ঈশ্বরের হাত' বললে সবার মনে পড়ে যায় মারাদোনার সেই হাত দিয়ে করা গোলটির কথা৷ সেবার মারাদোনা শুধু হাত দিয়ে গোলই করেননি, আর্জেন্টিনাকে বিশ্বকাপও জিতিয়েছিলেন প্রায় একক নৈপুণ্যে৷

গোল নয়, তবু গোল

১৯৬৬ বিশ্বকাপের ফাইনাল৷ তখনকার পশ্চিম জার্মানির মুখোমুখি স্বাগতিক ইংল্যান্ড৷ ম্যাচে তখন ২-২ সমতা৷ ইংল্যান্ডের স্ট্রাইকার জিওফ হার্স্টের গোলার মতো একটা শট থেকে বল পোস্টে লেগে গোল লাইন বরাবর পড়েই ফিরে আসে মাঠে৷ ইংল্যান্ডের খেলোয়াড়রা ‘গোল' দাবি করলে জার্মানরা প্রতিবাদে ফেটে পড়েন৷ জার্মানদের দাবি, বল গোল লাইন পার হয়নি, সুতরাং গোল হয়নি৷ সে আমলে ‘গোল লাইন প্রযুক্তি' বা এমন পরিস্থিতিতে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে সহায়ক হবে এমন কোনো প্রযুক্তির শরণাপন্ন হবার সুযোগ ছিল না৷ তাই রেফারি লাইন্সম্যানের মতামত জানতে চাইলেন৷ সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের লাইন্সম্যান বললেন, ‘গোল'৷ শেষ পর্যন্ত ৪-২ গোলে ম্যাচ জিতে বিশ্বকাপ জিতেছিল ইংল্যান্ড৷ কিন্তু লাইন্সম্যানের সেদিনের সিদ্ধান্তকে জার্মানরা এখনো মেনে নেয়নি৷

গোল, তবু গোল নয়!

২০০২ বিশ্বকাপে রেফারির ভুলের চরম মূল্য দিতে হয়েছিল ইটালিকে৷ সহ-আয়োজক দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষে তাদের সেই ম্যাচে রেফারি কিছু ভুল ছিল রীতিমতো দৃষ্টিকটু৷ ম্যাচ পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন ইকুয়েডরের বায়রন মরেনো৷ ম্যাচের শুরুর দিকেই দক্ষিণ কোরিয়াকে একটা মরেনো পেনাল্টি দিয়েছিলেন, যা আদৌ পেনাল্টি ছিল না৷ তারপর ইটালির ফরোয়ার্ড ফ্রান্চেসকো টটিকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে ‘ডাইভ' দেয়ার অভিযোগে দেখালেন লাল কার্ড৷ অতিরিক্ত সময়ে বাতিল করলেন ইটালির গোল৷ অথচ ‘অফসাইড'-এর অজুহাতে বাতিল না করলে সেটাই হতো ‘গোল্ডেন গোল', ইটালি জিতে যেত৷ অথচ ফল হলো উল্টো৷ ২-১ গোলে হেরে বিদায় নিল ইটালি৷ রেফারি বায়রন মরেনোর ম্যাচ পরিচালনার দক্ষতা এবং বিশ্বাসযোগ্যতা এখনো প্রশ্নবিদ্ধ৷ ২০১১ সালে যুক্তরাষ্ট্রে হেরোইন পাচার করতে গিয়ে ধরা পড়েন মরেনো৷ আড়াই বছরের জেল হয়েছিল তাঁর৷

Zinedine Zidane Statue

কে ঢুঁশ মেরে মাতেরাৎসিকে ফেলে দেন জিদান

ঢুঁশ মেরে জিদানের বিদায়

২০০৬ বিশ্বকাপের ফাইনাল স্মরণীয় হয়ে থাকবে ইটালির চতুর্থ শিরোপা জয় আর জিনেদিন জিদানের দুঃখজনক বিদায়ের কারণে৷ পেনাল্টি থেকে জিদানের করা গোলে প্রথমে এগিয়ে যায় ফ্রান্স৷ তারপর ইটালির হয়ে গোল করে ম্যাচে সমতা ফেরান মার্কো মাতেরাৎসি৷ পরের ঘটনাটির নায়ক-খলনায়কও তাঁরা৷ অতিরিক্ত সময়ে হঠাৎ বুকে ঢুঁশ মেরে মাতেরাৎসিকে ফেলে দেন জিদান৷ সঙ্গে সঙ্গেই লাল কার্ড৷ মাথা নীচু করে মাঠ ছেড়ে যান ‘জিজু'৷ পরে জিদান জানান, তাঁর বোনকে নিয়ে মাতেরাৎসি আপত্তিকর কথা বলার কারণেই মেজাজ ধরে রাখতে পারেননি৷ ফ্রান্সকে দ্বিতীয় শিরোপা জেতানোর কাছাকাছি গিয়েও ‘খলনায়ক'-এর মতো মাঠ ছাড়ার পর আর কোনো পেশাদারি ফুটবল ম্যাচ খেলেননি জিনেদিন জিদান৷

আবার মারাদোনা

নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে তখন সবে ফুটবলে ফিরেছেন দিয়েগো মারাদোনা৷ ১৯৯৪ বিশ্বকাপে এলেন আবার আসর মাতানোর লক্ষ্য নিয়ে৷ কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত সেই আসরে নায়ক না হয়ে ‘খলনায়ক' হয়েই দেশে ফিরতে হয় তাঁকে৷ নিষিদ্ধ ড্রাগ নেয়ার অভিযোগ পরীক্ষা-নিরীক্ষায় প্রমাণিত হওয়ার পর কেঁদেকেটে যুক্তরাষ্ট্র ছাড়তে হয় মারাদোনাকে৷#

Diego Maradona Fußball Flash-Galerie

নায়ক না হয়ে ‘খলনায়ক' হয়েই দেশে ফিরতে হয় তাঁকে

গোলরক্ষকের নিষ্ঠুরতা

১৯৮২ সালের আসরে ফ্রান্সের বিপক্ষে তখনকার পশ্চিম জার্মানির গোলরক্ষক টনি শুমাখার যে কাণ্ড করেছিলেন তেমনটি ফুটবলে কমই দেখা যায়৷ সেমিফাইনালে জার্মানির প্রতিপক্ষ ছিল ফ্রান্স৷ ম্যাচের এক পর্যায়ে পেনাল্টি বক্সের কাছে বল নিয়ে পাত্রিক বাতিস্তা ছুটে এলে তাঁর ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েন শুমাখার৷ মাটিতে পড়ে গিয়ে জ্ঞান হারান বাতিস্তা৷ পরিষ্কার ফাউল৷ শুমাখারকে লাল কার্ড দেখালে সেটাই হতো উপযুক্ত শাস্তি৷ কিন্তু রেফারি ফ্রি-কিক দেননি, হলুদ কার্ডও দেখাননি শুমাখারকে!

পাতানো ম্যাচ

বিশ্বকাপে পাতানো ম্যাচ খেলার অভিযোগ অনেকবারই উঠেছে৷ তবে দু'পক্ষের সমঝোতার ম্যাচের সবচেয়ে লজ্জাজনক দৃষ্টান্ত হয়ে আছে ১৯৮২ সালের আসরের জার্মানি-অস্ট্রিয়া ম্যাচ৷ এক বা দুই গোলে জার্মানি জিতলে দু'দলই উঠে যাবে দ্বিতীয় রাউন্ডে৷ অস্ট্রিয়া জিতলে বিদায় নেবে জার্মানি৷ ম্যাচ ড্র হলে বা জার্মানি দুটোর চেয়ে বেশি গোলে জিতলে শেষ হয়ে যাবে অস্ট্রিয়ার বিশ্বকাপ অভিযান৷ জার্মানি বা অস্ট্রিয়া বাদ পড়লে পরের পর্বে উঠে যেত আলজেরিয়া৷ কিন্তু প্রতিবেশী দেশ জার্মানি আর অস্ট্রিয়া তা হতে দেয়নি৷ দশ মিনিটের মধ্যে ১-০ গোলে এগিয়ে যায় জার্মানি৷ তারপর থেকে দু'দলের খেলোয়াড়রা শুধু বল নিজেদের মধ্যে আদান-প্রদান করেই সময় পার করে৷ ফলে জার্মানি আর অস্ট্রিয়া পরের পর্বে উঠলেও বিদায় নিতে হয় আলজেরিয়াকে৷

এসিবি/ডিজি (এপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়