1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

বিশ্বকাপের পরও জার্মানির কোচ থাকছেন ল্যোভ

তাঁর অধীনে একটাও শিরোপা জেতেনি জার্মানি৷ ব্রাজিল বিশ্বকাপেও দল কাঙ্খিত সাফল্য না পেলে চাকরি হারানোর আশঙ্কা জাগতেই পারে ইওয়াখিম ল্যোভের মনে৷ চুক্তির মেয়াদ দু বছর বাড়িয়ে সেই শঙ্কা দূর করেছে জার্মান ফুটবল ফেডারেশন৷

২০০৬ সাল থেকে জার্মান জাতীয় ফুটবল দলের কোচ ইওয়াখিম ল্যোভ৷ সাত বছরে তাঁর অধীনে কোনো বড় আসরেই একেবারে হতাশ করেনি জার্মানি৷ বিশ্বকাপ এবং ইউরো থেকে সেমিফাইনালের আগে বিদায় নেয়নি একবারও৷ জার্মানি তৃতীয় হয়ে ২০০৬ বিশ্বকাপ শেষ করার পর কোচের পদ থেকে সরে দাঁড়ানো ইয়ুর্গেন ক্লিনসমানের জায়গাটা ভালোভাবেই ল্যোভ নিয়েছেন- এটুকু অন্তত বলাই যায়৷ সাত বছরে ৯৯ ম্যাচে ৬৮টি জয়, ১৬ জয় আর ১৫ হার- কোচ হিসেবে ল্যোভকে পেয়ে ভালোই তো করছে তিনবারের বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়নরা৷ কিন্তু এমন গৌরবের অতীত যাদের, ট্রফির দেখা না পেলে তাদের তো অতৃপ্তি থাকে৷ সেই অতৃপ্তি আছে ঠিকই৷ তবে বড় সাফল্যের জন্য ৫৮ বছর বয়সি বর্তমান কোচের ওপর আস্থা রাখাই ঠিক মনে করছে জার্মান ফুটবল ফেডারেশন (ডিএফবি)৷ তাই শুক্রবার ২০১৬ সালের ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপ পর্যন্ত চুক্তির মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে৷ এক সংবাদ সম্মেলনে এ খবর দেয়ার সময় ডিএফবির সভাপতি ভল্ফগাং নিয়েরসবাখ কোচ ইওয়াখিম ল্যোভের প্রশংসা করে বলেছেন, ‘‘২০০৬ বিশ্বকাপের পর থেকে জাতীয় দল প্রত্যেকটি বিশ্বকাপ এবং ইউরোর শেষ চারে উঠেছে, দারুণভাবে ২০১৪ বিশ্বকাপের বাছাইপর্বও পেরিয়েছে৷ ল্যোভ এবং দলের খেলোয়াড়দের এ জন্য কৃতিত্ব দিতেই হবে৷ ডিএফবি তাঁদের প্রতি আস্থা বজায় রাখতে চায়৷ ''

আগের চুক্তি অনুযায়ী ব্রাজিলে অনুষ্ঠেয় ২০১৪ বিশ্বকাপ পর্যন্তই জার্মানির কোচ থাকার কথা ছিল ল্যোভের৷ চুক্তির মেয়াদ আরো দু বছর বাড়ায় ল্যোভ খুশি, ডিএফবিকে ধন্যবাদ জানানোর পাশাপাশি তিনি বলেছেন, ‘‘দলকে এগিয়ে নিতে পারলে আমি অন্যরকমের প্রেরণা পাই৷ এগোনোর পথ এখনো ফুরিয়ে যায়নি৷ এখন সবাই মিলে আমরা অভীষ্ট লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যেতে চাই৷'' সেই লক্ষ্য যে বিশ্বকাপ জয় তা বোধহয় না বললেও চলে৷ ফিফা ব়্যাংকিং অনুযায়ী এ মুহূর্তে বিশ্বের দ্বিতীয় সেরা দল জার্মানি৷ ফিলিপ লামের দল বিশ্বকাপে সেরা হলে জার্মান ফুটবলের জন্য সেটাই হবে ল্যোভের কাছ থেকে সবচেয়ে বড় পাওয়া৷

এসিবি/জেডএইচ (এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়