1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বিশেষ দিনে বাংলাদেশ সফরে ভুটানের প্রধানমন্ত্রী

ভুটানের প্রধানমন্ত্রী শেরিং তোবগে তিন দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে শনিবার ঢাকায় এসেছেন৷ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর এটিই তাঁর প্রথম ঢাকা সফর৷ এই সফরে অর্থ-বাণিজ্য ও দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা নিয়ে একাধিক চুক্তি সই হওয়ার কথা৷

৪৩ বছর আগে ১৯৭১ সালের ৬ই ডিসেম্বর বাংলাদেশকে স্বাধীন দেশ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছিল ভুটান৷ সেই দিনটি স্মরণে রেখেই ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর ঢাকা সফরের তারিখ নির্ধারিত হয়েছে৷

শনিবার দ্রুক এয়ারের একটি বিশেষ ফ্লাইটে হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামলে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁকে স্বাগত জানান৷ এ সময় তাঁকে লাল গালিচা সংবর্ধনা ও তিন বাহিনীর পক্ষ থেকে গার্ড অব অনার দেয়া হয়৷

বিমানবন্দর থেকে ভুটানের প্রধানমন্ত্রী মুক্তিযুদ্ধের শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে যান৷

ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সেদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রিনজিন দর্জি এবং অর্থনীতি ও বাণিজ্য বিষয়ক মন্ত্রী নরবু ওয়াংচুকসহ ১০ সদস্যের প্রতিনিধি দল রয়েছেন৷ তাঁর সঙ্গে একটি বাণিজ্য প্রতিনিধি দলও এসেছেন ঢাকায়৷

এই সফরে তিনি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়াও সরকারের উচ্চ পর্যায়ের মন্ত্রী এবং নীতি নির্ধারকদের সঙ্গে বৈঠক করবেন৷ শেখ হাসিনার সঙ্গে শনিবারই তাঁর বৈঠক হওয়ার কথা৷ রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদের সঙ্গেও সাক্ষাৎ করবেন তিনি৷

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে শেরিং টোবগের দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে পাঁচ বছর মেয়াদি বাণিজ্য চুক্তি নবায়নসহ দ্বিপক্ষীয় স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে৷ এর মধ্যে রয়েছে ভুটান থেকে বিদ্যুৎ আমদানি ও ভুটানে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ রফতানি, কৃষি, স্বাস্থ্য, আন্তঃযোগাযোগ, জলজসম্পদ, শিক্ষা ও সংস্কৃতি বিনিময়৷ ঢাকায় ভুটানের দূতাবাস স্থাপনের জন্য জমি বরাদ্দ সংক্রান্ত পৃথক একটি লিজ চুক্তি স্বাক্ষরেরও কথা রয়েছে৷ পদ্মা সেতু নির্মাণের জন্য ভুটান থেকে পাথর আমদানি, বাংলাদেশ থেকে ওষুধ রফতানি বৃদ্ধিসহ বাণিজ্য সহযোগিতার বিভিন্ন দিক নিয়ে প্রতিনিধি দল পর্যায়ে আলোচনা হবে বলে জানা গেছে৷ উল্লেখ্য, বাংলাদেশ-ভুটান দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যের পরিমাণ বছরে দুই কোটি ৬০ লাখ ডলার৷

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী জানিয়েছিলেন, ভুটানের জনগণের উদ্দেশে দেওয়া এক ভাষণে তোবগে বাংলাদেশে আসার আগ্রহের কথা বলেন৷ তা শোনার পর শেখ হাসিনা তাঁকে আমন্ত্রণ জানান৷ তিন দিনের সফর শেষে আগামী ৮ই ডিসেম্বর ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর ফিরে যাওয়ার কথা রয়েছে৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়