1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

বিমান ধ্বংসের কারণ অনুসন্ধানে ডাচদের সহায়তা

মালয়েশিয়ার বিমান ধ্বংসের কারণ অনুসন্ধানে নেদারল্যান্ডস যে তদন্ত শুরু করেছে তাতে সহায়তার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে রাশিয়া৷ এক সপ্তাহ আগে প্রায় ৩০০ আরোহী নিয়ে এমএইচ১৭ ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে বিধ্বস্ত হয়৷

মালয়েশিয়ায় নিযুক্ত রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত ল্যুডমিলা ভোরোবিয়েভা বৃহস্পতিবার জানিয়েছেন, বিমান ধ্বংসের কারণ অনুসন্ধানে ইউক্রেনের চেয়ে নেদারল্যান্ডস-এর তদন্তের প্রতি আস্থা রাখছে তাঁর দেশ৷ তবে রাশিয়াপন্থি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের রাশিয়ার তৈরি মিসাইল ব্যবহার করে এমএইচ১৭ বিধ্বস্ত করেছে বলে যে দাবি পশ্চিমা সরকারগুলো করছে, তা অস্বীকার করেছেন তিনি৷ ভোরোবিয়েভা বলেন, এ ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহারের প্রশিক্ষণ বিচ্ছিন্নতাবাদীদের নেই৷

প্রসঙ্গত, ১৭ জুলাই বিধ্বস্ত বিমানটিতে ১৯৩ ডাচ নাগরিক ছিলেন৷ আমাস্টারডাম থেকে কুয়ালালামপুরগামী বিমানটি ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে বিধ্বস্ত হয়৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দাবি করেছে, রাশিয়াপন্থি বিচ্ছিন্নতাবাদীরা ভুল করে বুক ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করে বিমানটি ভূপাতিত করেছে৷ এই দাবির পক্ষে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকে অনেক রকম ছবি, ভিডিও এবং যুক্তি তুলে ধরেছেন৷ তবে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের দাবি, ইউক্রেন বিমানটি ভূপাতিত করেছে৷ এমএইচ১৭ বিমানে থাকা ২৯৮ যাত্রীর সবাই প্রাণ হারিয়েছেন৷

জাতিসংঘের বেসামরিক বিমান চলাচল সংস্থা আইসিএও-র নিয়ম অনুযায়ী, সাধারণত যে দেশে বিমানটি বিধ্বস্ত হয় সে দেশের সরকারের সেটি তদন্ত করার কথা৷ কিন্তু ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ এখন রয়েছে রাশিয়াপন্থি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হাতে৷ আর তারা ইউক্রেন সরকারকে তদন্ত করতে দেবে না বলে জানিয়েছে রাশিয়া৷

এদিকে সিডনির ডেইলি টেলিগ্রাফ এবং দ্য অস্ট্রেলিয়া পত্রিকা দাবি করেছে, নেদারল্যান্ডসের প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুটে চাচ্ছেন বিমান ধ্বংসের স্থানটির নিরাপত্তার দায়িত্ব ডাচ নেতৃত্বাধীন আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা বাহিনীর কাছে হস্তান্তর করা হোক৷ এই বাহিনীতে মালয়েশিয়া এবং অস্ট্রেলিয়ার প্রতিনিধিরাও থাকবেন৷

অস্ট্রেলিয়া এবং নেদারল্যান্ডসের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা এই বিষয়ে কিয়েভ প্রশাসনের সঙ্গে কাজ করছেন বলে জানিয়েছে একাধিক বার্তাসংস্থা৷ ইতোমধ্যে বিমান ধ্বংসে নিহতদের মরদেহ নেদারল্যান্ডসে পাঠানো শুরু করেছে ইউক্রেন৷ বুধবার কমপক্ষে চল্লিশটি মরদেহ সে দেশে পৌঁছায়৷ তবে এখনো অনেক দেহাবশেষ ইউক্রেনের উত্তরাঞ্চলে রয়ে গেছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা৷ তাই বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার কারণ এবং দেহাবশেষ অনুসন্ধানে ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে যেতে চাইছে ডাচ নেতৃত্বাধীন বাহিনী

উল্লেখ্য, মালয়েশিয়ার বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার ঘটনায় রাশিয়ার উপর আন্তর্জাতিক মহলের চাপ আরো বেড়েছে৷ ২০১৮ সলের বিশ্বকাপ সে দেশ থেকে সরিয়ে নেয়ার ব্যাপারেও আলাপ-আলোচনা হচ্ছে জার্মানিতে৷ ইউরোপীয় ইউনিয়ন সে দেশের উপর নিষেধাজ্ঞা বাড়ানার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷

এআই / এসবি (রয়টার্স, এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়