1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

বিমানের রক্ষণাবেক্ষণে অবহেলার অবকাশ নেই

যাত্রী বা পণ্যবাহী বিমানের রক্ষণাবেক্ষণ সহজ কাজ নয়৷ দুর্ঘটনার আশঙ্কা এড়াতে সেগুলির নিয়মিত ও বিস্তারিত পরীক্ষার প্রয়োজন৷ জার্মানির ফ্রাংকফুর্ট ও হামবুর্গ শহরে এমন জটিল কাজের জন্য এলাহি ব্যবস্থা রয়েছে৷

বিশাল মাপের বিমান এক মহাদেশ থেকে অন্য মহাদেশে যাত্রী ও পণ্য পরিবহণ করে৷ প্রযু্ক্তির ব্যাপক প্রয়োগের মাধ্যমে অবিরাম পরিবহণের এই প্রক্রিয়া নিরাপদ রাখা হয়৷

ফ্রাংকফুর্ট বিমানবন্দরে ‘লিমা চার্লি ইন্ডিয়া’ নামের পণ্যবাহী বিমান অবতরণ করেছে৷ প্রায় ৭,২০০ ঘণ্টা ওড়ার পর বোয়িং এমডি১১ মডেলের বিমানটির খোলনলচে পরীক্ষা করতে হবে৷ এমন খুঁটিনাটি পরীক্ষার মাধ্যমেই বিমান চলাচলের ক্ষেত্রে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়৷ লুফৎহানসা বিমান সংস্থার বিশাল হ্যাঙারের মধ্যে মিস্ত্রীরা প্রায় ৫,০০০ ঘণ্টা ধরে প্রত্যেকটি যন্ত্রাংশ খুঁটিয়ে পরীক্ষা করেন৷ সীমিত সময়ের মধ্যে সব কাজ শেষ করতে হয়৷

বিমানের ডানার ফ্ল্যাপগুলির দিকে বিশেষ নজর দেওয়া হয়৷ ঘণ্টায় ৩০০ কিলোমিটার বেগে এই বোয়িং পরিবহণ বিমানটি অবতরণ করে, যা বেশিরভাগ বিমানের তুলনায় অনেক বেশি৷ সে সময়ে বিমানের কোনো অংশের ক্ষতি হলে চলবে না৷ অবতরণের সময়ে পিছনের ইঞ্জিনও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে৷ সবকিছু নিখুঁতভাবে চললে ইঞ্জিনিয়াররা সন্তুষ্ট হন৷

অলিভার গেবাউয়ার এই বিমানের রক্ষণাবেক্ষণের ক্ষেত্রে সমন্বয়ের কাজ করেন৷ তিনি বলেন, ‘‘এমডি-১১ এক থ্রি-জেট বিমান৷ লুফৎহানসা কার্গো এটিকে পরিবহণের কাজে লাগায়৷ একে ‘আকাশের রানি’ বলা হয়৷ বিশাল আকারের এই বিমান অনেক মালপত্র নিয়ে দীর্ঘ দূরত্ব পাড়ি দিতে পারে৷’’

হামবুর্গ শহরে লুফৎহানসা কোম্পানির কারিগরি শাখার হ্যাঙারে এয়ারবাস ৩৪০ বিমানের আপাদমস্তক রক্ষণাবেক্ষণ হচ্ছে৷ ছ'বছর আগে প্রথম উড়ালের পর থেকে ‘গল্ফ ট্যাংগো’ নামের এই যাত্রীবাহী বিমান ২ কোটি কিলোমিটারের বেশি যাত্রা করেছে৷ বিমানটি এখনো ‘ফিট’ আছে কিনা, তা জানতে অনেক পরীক্ষা করতে হবে৷ বিশ্বের অন্য কোথাও এমন ব্যবস্থা নেই৷ এখানে ইঞ্জিনগুলিকে পূর্ণ শক্তিতে চালানো হয়৷ দেখা গেলো, এই বিমানের ইঞ্জিন ভালোভাবেই চলছে৷

তেলের ট্যাংকের মধ্যে একটা ফাটল শনাক্ত করা গেছে৷ সেটি দ্রুত মেরামত করতে হবে৷ বিমানের মিস্ত্রী ওলাফ সিব কাজে নেমে পড়েছেন৷ বেশ কসরত করে ট্যাংকের মধ্যে প্রবেশ করতে হয়৷ এমন কাজের পরিবেশ সহজ নয়৷ যে আধারে কয়েক টন এভিয়েশন ফুয়েল ভরা হয়, সেখানে মিস্ত্রীদের অতি সাবধানে কাজ করতে হয়৷ বাতাস তেলের বাস্পে ভরা, অতএব বিস্ফোরণের আশঙ্কা রয়েছে৷ বিমানের মিস্ত্রী ওলাফ সিব বলেন, ‘‘ট্যাংকের মধ্যে এমন যন্ত্রপাতি ব্যবহার করতে হয়, যা বিস্ফোরণ ঘটাবে না৷ যেমন উপরে বিশেষ ধরনের বাতি জ্বলছে৷ যে কোনো আলো নিয়ে ট্যাংকে নামা চলে না৷’’

ফাটলের মেরামতির কাজ শেষ৷ কোনো বিপদ ঘটেনি৷ এদিকে ফ্রাংকফুর্টের হ্যাঙারে আট দিন ধরে বিস্তারিত রক্ষণাবেক্ষণের পর পরিবহণ বিমানটি আবার উড়ালের জন্য প্রস্তুত৷ শেষ বার সব যন্ত্রাংশ পরীক্ষা করে সব স্টিকার দূর করা হচ্ছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক