1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বিমানের ককপিটের দরজা যেভাবে কাজ করে

আধুনিক ককপিট দরজাগুলোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা বেশ শক্তিশালী৷ তবে জরুরি প্রয়োজনে পাইলটকে সহায়তা করতে সেগুলো বাইরে থেকে খোলা সম্ভব৷ সমস্যা হচ্ছে, দরজার মূল লক থাকে ভেতরে, যা বিপজ্জনকও৷

গত ২৪ মার্চ ফ্রান্সের আল্পসে জার্মানউইংসের একটি বিমান বিধ্বস্তের পর ককপিটের দরজা নিয়ে নতুন আলোচনা শুরু হয়েছে৷ ২০০১ সালে টুইন টাওয়ারে বিমান হামলার ঘটনার পর ককপিটের দরজা আরো মজবুত ও শক্তিশালী করে বিমান নির্মাতারা৷ উদ্দেশ্য, বিমানটি কেউ অপহরণ করার চেষ্টা করলে যাতে ককপিটে ঢুকতে না পারে৷ আর পাইলটের অনুমতি ছাড়া যাতে সেটি কোনোভাবে খোলাও না যায়৷ এমনকি কেবিন থেকে সেটি খোলার কোড থাকলেও পাইলট চাইলে সেই কোড অকার্যকর করতে পারেন সামান্য একটি সুইচ টিপে৷ চলুন জানা যাক, এই দরজা ঠিক কিভাবে কাজ করে৷

এক্সেস কোডসহ ইলেকট্রনিক লক

টুইন টাওয়ারে বিমান হামলার এক বছর পর ককপিটের নতুন দরজা বিষয়ে একটি ভিডিও প্রকাশ করে এয়ারবাস৷ এতে দেখা যাচ্ছে, ককপিটের দরজায় মূলত পাঁচটি উপাদানের সমন্বয় ঘটানো হয়েছে৷ এতে রয়েছে ‘বুলেটপ্রুফ' পাত এবং তিনটি ইলেকট্রনিক খিল৷ দরজার সামনে কে দাঁড়িয়ে আছেন পাইলটরা তা দেখতে পারেন৷ আছে একটি ভিডিও ক্যামেরা, যা দরজার সামনের এলাকা এবং যাত্রীদের চলাফেরার দিকে নজর রাখতে পাইলটকে সহায়তা করে৷

ককপিটের কন্ট্রোল প্যানেলেই একটি লিভার রয়েছে যা ব্যবহার করে দরজার নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিবর্তন করতে পারেন পাইলট৷ আর সেই লিভারে থাকা সেটিংসগুলো হচ্ছে ‘নর্ম,' ‘লক' এবং ‘আনলক৷' পাশাপাশি ককপিটের বাইরের অংশ অর্থাৎ কেবিন এলাকায় রয়েছে একটি কিবোর্ড৷ এই বোর্ডে সবুজ এবং লাল বাতি থাকে৷ থাকে টেলিফোন যা ব্যবহার করে ক্রুরা পাইলটের সঙ্গে কথা বলতে পারেন৷

অনুপ্রবেশকারীদের রোখার ব্যবস্থা

সাধারণত দু'জন পাইলট ককপিটের মধ্যে থাকেন এবং দরজাটি বন্ধ থাকে৷ এটি বাইরে থেকে খোলা যায়না, কারণ দরজায় কোনো হাতল নেই৷ তবে সাধারণ অবস্থায় দরজা থাকে ‘নর্ম' মোডে, যার অর্থ ইলেকট্রিক খিলগুলো সক্রিয় নেই৷

কেবিন ক্রুরা ককপিটে যেতে চাইলে সাধারণত পাইলটকে ফোন করেন৷ পাইলট তখন লিভারটি টেনে দরজা আনলক করে দেন৷ এর বাইরে কেউ যদি দরজায় নক করেন কিংবা ধাক্কা দেয়ার চেষ্টা করেন, তখন পাইলট সেটিকে সন্দেহভাজন আচরণ মনে করে৷ সেরকম পরিস্থিতিতে পাইলট দরজার লিভার টেনে সেটিকে পুরোপুরি ‘লক' করে দেন৷ আর তখন কেবিন থেকে দরজা জোর করে খোলা কার্যত অসম্ভব হয়ে যায়৷

জরুরি অবস্থায় যা করা যায়

যে-কোনো জরুরি পরিস্থিতি মোকাবিলায় দরজা খুলতে কেবিন ক্রুদের কাছে একটি কোড থাকে৷ পাইলটের যদি জরুরি সাহায্য প্রয়োজন হয়, যেমন তারা যদি বেহুশ হয়ে পড়েন কিংবা কোনরকম গ্যাস বিষের শিকার হন, তখন এই ব্যবস্থায় দরজা খোলা সম্ভব৷ তবে এখানেও কিন্তু রয়েছে৷ কেবিন ক্রু বাইরে থেকে এই কোড দেয়ার পর পাইলটের সামনে কন্ট্রোল প্যানেলে একটি ‘ওপেন' বোতাম জ্বলতে থাকে৷ আর ককপিটে তখন এমার্জেন্সি এলার্ম বাজতে থাকে৷ ত্রিশ সেকেন্ড পর্যন্ত পাইলট যদি সাড়া না দেন, তখন দরজাটি মাত্র পাঁচ সেকেন্ডের জন্য খুলে যায়৷

কিন্তু পাইলট যদি মনে করেন, বিমান হাইজ্যাক হয়েছে এবং হাইজ্যাকাররা জোর করে কেবিন ক্রুদের দিয়ে দরজা খোলার চেষ্টা করছে, তখন তিনি সেই ত্রিশ সেকেন্ডের মধ্যে দরজার ‘লক' ফাংশন অন করে দিতে পারেন৷ আর তখন, এয়ারবাসের ভিডিও অনুযায়ী, পরবর্তী পাঁচ মিনিটের জন্য দরজা পুরোপুরি লক হয়ে যাবে৷ তবে একজন এভিয়েশন বিশেষজ্ঞ ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, বর্তমানে পাঁচ মিনিট নয়, এধরনের পরিস্থিতিতে বিশ মিনিট দরজা বন্ধ থাকে৷

তবে আরেকটি পরিস্থিতিতে দরজা নিজে থেকে খুলে যেতে পারে৷ যদি ককপিটের এয়ার প্রেসার স্বাভাবিকের চেয়ে কমে যায়, তাহলে৷ ককপিটের উপরে প্রেসার মাপার একটি সেন্সর রয়েছে৷ সেই সেন্সর বিষয়টি শনাক্ত করতে পারে৷ কিন্তু এই নিয়ম সেই ‘বিশ মিনিটের' ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়