1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

বিবর্তনের রহস্য বিরল সামুদ্রিক জীবের মধ্যে

মহাকাশের গভীরে রকেট পাঠালেও পৃথিবীর অনেক রহস্য এখনো মানুষের অজানা রয়ে গেছে৷ থেকে গেছে অনেক ‘মিসিং লিংক’৷ মানবজাতির বিবর্তন সম্পর্কে এমনই কিছু রহস্য উন্মোচনের চেষ্টা চলছে জার্মানির এক গবেষণাগারে৷

default

হাইডেলবার্গের গবেষণা কেন্দ্রে ল্যান্সলেট

হাইডেলবার্গে ইউরোপীয় মলিকিউলার বায়োলজি ল্যাব৷ এই বিখ্যাত গবেষণা প্রতিষ্ঠানে বিজ্ঞানীরা বিরল এক জীবের জন্য স্বাভাবিক পরিবেশ গড়ে তুলেছেন৷ প্রায় ৮০০ ল্যান্সলেট বা অ্যাম্ফিয়ক্সাস-এর এই কলোনি রয়েছে এখানে৷ এশিয়ায় মানুষ ও প্রাণীর খাদ্য হিসেবে এই জীবের চাষ হয়৷

গবেষকদের জন্য ক্ষুদ্র এই জীব খুবই গুরুত্বপূর্ণ৷ কারণ এদের মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ বছর ধরে মানুষ সহ মেরুদণ্ডী জীবের বিবর্তন সম্পর্কে অনেক কিছু জানা যায়৷ অর্থাৎ পৃথিবীতে মানুষের আবির্ভাবের হদিসও হয়তো এর মধ্যেই লুকিয়ে রয়েছে৷

এই বিশেষ কলোনির অস্তিত্ব ও রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব পালন করছেন স্পেনের তরুণ বিজ্ঞানী এলিয়া বেনিতো গুতিয়েরেস৷ তিনি ল্যাবে খাদ্যও প্রস্তুত করেন৷ এলিয়া বলেন, ‘‘এখানে আমরা প্রায় ৭০০ লিটার সমুদ্রের স্বাভাবিক পানি দিয়ে একটি কমপ্লেক্স গড়ে তুলেছি৷ দিন-রাত সেটি চালু আছে, অর্থাৎ আমরা সমুদ্রের স্রোতের নকল করার চেষ্টা করছি৷ অ্যালজি-প্ল্যাংকটন-এর মতো তাজা খাদ্যও সেখানে তৈরি হচ্ছে৷ তাদেরও তাজা খোরাক দেয়া হয়৷ পুরোপুরি অ্যান্টিবায়োটিক মুক্ত ব্যবস্থা৷''

ল্যান্সলেট অসাধারণ এক জীব, যারা সমুদ্রতলের বালির গভীরে লুকিয়ে থাকে৷ বিজ্ঞানীদের বিশ্বাস, প্রায় ৫২ কোটি বছর আগে মাছের মতো দেখতে এই জীবের আবির্ভাব ঘটেছিল৷

হাইডেলবার্গে ইউরোপীয় মলিকিউলার বায়োলজি ল্যাবে গবেষক দলের প্রধান অধ্যাপক ডেটলেভ আরেন্ট মনে করেন, এই গবেষণা মানবজাতির বিবর্তনের অন্যতম প্রধান রহস্য উন্মোচন করতে পারবে৷ ইউরোপীয় আণবিক বায়োলজি ল্যাবের অধ্যাপক ডেটলেভ আরেন্ট বলেন, ‘‘এটা এমন কোনো জন্তু নয়, যা বাগানে পাওয়া যায়৷ প্রথমত, এটি সমুদ্রের জীব৷ মানবজাতির বিবর্তন সম্পর্কে, সুদূর অতীতের কথা জানতে হলে মহাসাগরে যেতে হবে৷''

যেমন ভারত মহাসাগর৷ এলিয়া ৩ বছর আগে মালদ্বীপে গিয়ে ল্যান্সলেট-এর নতুন এক প্রজাতি আবিষ্কার করেছিলেন৷ এর অস্তিত্বের কথা আগে কেউ জানতো না৷ তিনি বলেন, ‘‘যখন এগুলি পেলাম, মনে হলো জীবন্ত কিংবদন্তী হাতে এলো৷ বহু বছর ধরেই এটি বিলুপ্ত বলে জানা ছিলো৷ তারপর হঠাৎ চোখের সামনে এসে পড়লো – একেবারে অবিশ্বাস্য ব্যাপার৷''

ল্যাবে ফিরে এলিয়া তাদের জিনোম পরীক্ষা করেছেন, যার মধ্যে বিবর্তনের রহস্য লুকিয়ে রয়েছে৷ বিশেষ করে মানুষ সহ মেরুদণ্ডী প্রাণীরা কীভাবে পুরানো জিন ব্যবহার করে হাড় তৈরির মতো নতুন বৈশিষ্ট্য যোগ করেছিলো, তা হয়তো জানা যেতে পারে৷

হাইডেলবার্গের ল্যাব এই গবেষণার জন্য উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করেছে৷ লেনা বলেন, ‘‘আমাদের প্রতিষ্ঠান চিরকালই আন্তর্জাতিক মিলনকেন্দ্র৷ সারা বিশ্ব থেকে মানুষকে আমরা এখানে নিযুক্ত করেছি৷ মনে হয়, বর্তমানে প্রায় ৭০টি দেশের মানুষ এখানে কাজ করছেন৷ ২০টি সদস্য দেশ আর্থিক অনুদান দিলেও আমরা সারা বিশ্বের বিজ্ঞানীদের এখানে আনতে পারি৷''

এই নীতির সুফলও পাওয়া যাচ্ছে৷ সেরা মগজ একত্র করার ফলে এখানকার বিজ্ঞানীরা দু-দুটি নোবেল পুরস্কার জিতে নিয়েছেন৷ গবেষকদের আশা, ল্যান্সলেটদের নিয়ে কাজের সুবাদে এই পুরস্কার আবার তাঁদের কপালে জুটবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক