1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

বিবর্তনবাদী তেলাপোকার সাথে পাল্লা দেয়া কঠিন

তেলাপোকারা কয়েক কোটি বছর ধরে এই দুনিয়ার বাসিন্দা৷ কিন্তু তাদের বিবর্তনের এখনও অন্ত ঘটেনি৷ যাকে বলা যায় স্বল্পমেয়াদি বিবর্তন৷ মিষ্টিতে বিষ মিশিয়ে তেলাপোকা মারার চেষ্টা করলে তারা শিগগিরই মিষ্টি খাওয়া ছাড়ে, সেটা জানতেন?

মিষ্টি-ময়দার সঙ্গে কীটনাশক মিশিয়ে ছোট ছোট বল তৈরি করে সেগুলো চৌকাঠের আশেপাশে রেখে দিলে পরদিন সকালে মৃত এবং মৃতপ্রায় তেলাপোকাদের যুদ্ধক্ষেত্রে সৈনিকদের মতো পড়ে থাকতে দেখা যায়৷ এ তো আমরা অনেকেই ছেলেবেলায় দেখেছি৷

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় একটি অ্যাপার্টমেন্টের টেস্ট কিচেনে সেই ধরনের কোনো বিষের পরীক্ষা চালানো হচ্ছিল৷ হঠাৎ দেখা যায়, বিষে আর কাজ হচ্ছে না৷ তেলাপোকারা বহাল-তবিয়তে বংশবৃদ্ধি করে চলেছে৷ ব্যাপারটা কী হল? খুঁজে-পেতে, ভেবে-চিন্তে দেখা গেল, তেলাপোকারা সাবধান হয়ে গেছে৷ তারা বুঝতে পেরেছে, মেপল সিরাপ যতোই মিষ্টি হোক না কেন, তা খেলে প্রাণপাখি খাঁচাছাড়া হবার সম্ভাবনা৷

Riesenkakerlake Küchenschabe

বুদ্ধিমান তেলাপোকা

কাজেই তাদের মিষ্টির উপর বিরাগ জন্মে গেছে৷ ডায়াবেটিসের রোগীদের এতোটা আত্মসংযম থাকলে দুনিয়া থেকে ডায়াবেটিস রোগটাই উঠে যেতো!

ডিএনএ'র স্কুল

শুধু যে এক-আধটা বুদ্ধিমান তেলাপোকা মিষ্টি ছেড়েছে, এমন নয়৷ বছর পাঁচেকের মধ্যে এই তেলাপোকারা মিষ্টির যম থেকে এমনভাবে দলে দলে মিষ্টিবিদ্বেষী হয়ে পড়েছে যে, আদত বিষটার আর কোনো কার্যকারিতা নেই বললেই চলে৷ ওদিকে তোলাপোকাদের ছেলেমেয়েরা তো আর কিছু ইস্কুলে গিয়ে, পড়াশুনো করে এ সব জিনিষ শেখে না৷ তাদের স্কুল হল প্রথমে বড়দের কাছ থেকে দেখে; দ্বিতীয়ত যা শিখেছে, সেটা ডিএনএ'র মধ্যে ঢুকিয়ে দিয়ে খালাস, যাতে সন্তান-সন্ততি এমএ-বিএ পাশ করেই জন্ম নেয়! একেই বলে বিবর্তন৷

নর্থ ক্যারোলাইনা স্টেট ইউনিভার্সিটির এনটোমোলজিস্ট বা কীট বিশেষজ্ঞ জুলস সিলভারম্যান তেলাপোকাদের এই সর্বাধুনিক বিবর্তনের রহস্য ভেদ করেছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘তেলাপোকারা নিজেদের মানিয়ে নেওয়ার ওস্তাদ৷ আমাদের সঙ্গে অস্ত্র প্রতিযোগিতায় তারা ভালোই লড়ছে৷'' অস্ত্র প্রতিযোগিতার কথাই যখন উঠল, কতোবারই তো শোনা যায়, তেলাপোকারা নাকি পারমাণবিক যুদ্ধেও লুপ্ত হবে না, তাদের বাঁচার ক্ষমতা এমন৷

কী মজা! আরে থুঃ!

‘সায়েন্স' জার্নালে সিলভারম্যান ও তাঁর সহকর্মীরা তেলাপোকাদের এই জেনেটিক মিউটেশন দেখিয়েছেন৷

Küchenschaben-Rennen

বিবর্তনবাদী তেলাপোকার সাথে পাল্লা দেয়া কঠিন

সাধারণ তেলাপোকাদের মধ্যে মেপল সিরাপের গ্লুকোজ এক ধরনের নিউরনকে সক্রিয় করে, যা মগজকে বলে, ‘‘কী মজা! মিষ্টি!'' বিবর্তনবাদী তেলাপোকাগুলোর ক্ষেত্রে যে নিউরনগুলি সক্রিয় হয়, তারা কিন্তু মগজকে বলে: ‘‘আরে থুঃ! ও একেবারে অখাদ্য!'' এই বিশেষ স্নায়ুটি শুধু ফ্লোরিডার তেলাপোকাদের মধ্যেই নয়, সুদূর পুয়ের্তো রিকো'র তেলাপোকাদের মধ্যেও পাওয়া গিয়েছে৷

কীট বিজ্ঞান যদি অত সোজা হতো, তা'হলে তো পৃথিবী কবেই তেলাপোকা মুক্ত হয়ে যেতো৷ কিন্তু নানা ফ্যাকড়া থেকে যাচ্ছে৷ তেলাপোকাদের ১৯টি দল অনুসন্ধান করে মাত্র একটি দলের মধ্যে এই মিষ্টিতে অরুচি দেখা গিয়েছে৷ সেটা বংশগত বৈশিষ্ট্যে পরিণত হতে তেলাপোকাদের ক' প্রজন্ম সময় লাগে, তাও জানা নেই৷ গ্লুকোজ-ত্যাগী তেলাপোকারা স্বচ্ছন্দে অন্য বিষ খেয়ে ফেলে৷ তেলাপোকাদের মধ্যে সাধারণভাবে কীটনাশক প্রতিরোধের শক্তি গড়ে উঠছে, ইত্যাদি, ইত্যাদি৷

ও হ্যাঁ, একটা শেষ খবর না দিলেই নয়৷ এই বিবর্তনবাদী তেলাপোকারা কিন্তু বড় অ্যামেরিকান তেলাপোকা নয়৷ এরা হল ছোট ‘জার্মান' তেলাপোকা, যারা সহজেই বাজারের থলেতে করে বাড়ি বা রান্নাঘরে গিয়ে হাজির হতে পারে৷ যেমন আমার বা আপনার!

এসি / এসবি (এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন