1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

বিপন্ন স্বর্গোদ্যান

উগান্ডার মাউন্ট এলগন পর্বতমালার জ্যাকসন পুল এলাকার মানুষজনকে স্থানান্তরিত করে একটি ন্যাশনাল পার্ক গঠন করা হয়েছে৷ বাকি রয়েছে মানুষজনকে পরিবেশ সংরক্ষণ সম্পর্কে সচেতন করে তোলার কাজ৷

আগে এখানে অনেক বড় বড় জীবজন্তু থাকতো, বলছিলেন রেঞ্জার অ্যান্ড্রু: চিতাবাঘ, বুনো মহিষ, হাতি৷ আজ শুধু কিছু কিছু বাঁদর দেখা যায়৷ বাকি বড় জন্তুজানোয়ার মানুষের হাতে মরেছে অথবা এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে৷ অ্যান্ড্রু বললেন, ‘‘হাতি শিকার করলে যেমন হয়৷ হাতিদের স্মৃতিশক্তি খুব ভালো৷ তাদের একজনকে যদি মারা হয়, তাহলে অন্যরা কখনো ভুলবে না, তাদের বন্ধুকে কোথায় মারা হয়েছে৷ বাকিরা আর কোনোদিন সে জায়গায় ফিরবে না৷ কাজেই ঐ হাতিরা আর কখনো উগান্ডায় ফিরবে বলে আমার মনে হয় না৷''

সাড়ে তিন হাজার মিটার উচ্চতায় আমরা তাঁবু গাড়লাম৷ বেশ ভালোমতো ঠান্ডা, মাত্র আট ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড৷ তবে অগ্নিকুণ্ডটা আছে৷ পরের দিন ভোরবেলা ট্রেকিং-এর চূড়ান্ত চড়াই৷ মাউন্ট এলগন পর্বতমালার ৪,১৬৫ মিটার উঁচু জ্যাকসন শিখরের পাদদেশে যে হ্রদ আছে, সেখানেই যাব আমরা৷ যতো ওপরে উঠছি, বাতাস ততোই যেন আরো পাতলা হয়ে আসছে৷ শেষমেষ দেখা গেল সেই হ্রদ: জ্যাকসন পুল৷ উগান্ডার বহু মানুষের কাছে এটি একটি মায়াবী স্থান – জানালেন অ্যান্ড্রু৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘ওদের বিশ্বাস, এখানে এসে এই জলে স্নান করলে, দেবতার আশীর্বাদ পাওয়া যায়৷''

পুনর্বাসন

দৃশ্যটা অপরূপ৷ অপরদিকে এই ন্যাশনাল পার্ক সৃষ্টির জন্য যে সব মানুষকে বিতাড়ন করা হয়েছে, তারা যে কী বলবেন, তারাই জানেন৷ তাদের কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলার জন্য পাহাড় ছেড়ে নীচে নামতে হবে৷ হঠাৎ দেখা গেল আগুনের ধোঁয়া৷ কিন্তু এই জঙ্গলে তো আগুন জ্বালানোরই কথা নয়৷ অ্যান্ড্রু বললেন, ‘‘ওরা জঙ্গল থেকে কাটা বাঁশে ধোঁয়া লাগায়, পরে সেই আগুন নেভায় না৷ তার ফলে পার্কে অগ্নিকাণ্ড ঘটে৷ ওরকম কোনো লোককে গ্রেপ্তার করলেও, তাকে মাত্র একদিনের জন্য জেলে রাখা যায়৷ পরের দিন সেই একই লোককে জঙ্গলে ঘুরতে দেখা যাবে৷''

জঙ্গলের জন্য আইনকানুন আর একটু কড়া হলে অ্যান্ড্রু-র কোনো আপত্তি ছিল না৷ অপরদিকে যাদের এই এলাকা ছেড়ে যেতে হয়েছে, তারা পুরনো দিনের স্মৃতিমন্থন করেন৷ এই জঙ্গলের সাবেক বাসিন্দা ওয়ানিয়ালা বোনিফাস বললেন, ‘‘আমরা যখন পাহাড়ের ওপরে থাকতাম, তখন সময়টা ভালোই ছিল৷ আমাদের অনেকটা করে জমি ছিল, তাতে নানা রকমের ফসল হতো, কৃত্রিম সার ছাড়াই৷ কিন্তু হঠাৎ একদিন আমাদের বলা হল, আমাদের এখান থেকে চলে যেতে হবে৷ আমাদের খুব ভয় হয়েছিল৷ আমরা জানতাম না, এবার কী করে দিন চলবে৷''

পুনর্বাসনের ফলে আরো ত্রিশ হাজার মানুষের গ্রাসাচ্ছাদনের ব্যবস্থা করতে হয়েছে৷ কালে জমির উর্বরতা কমে আসে৷ বৃষ্টির পর ধস নামার ঘটনাও বেড়েই চলেছে৷

কর্মসূচি

চার বছর ধরে ইউএনডিপি-র প্রোগ্রাম চলছে৷ মাউন্ট এলগন-এর চারপাশের মানুষদের জন্য নিয়মিতভাবে ওয়ার্কশপ করা হয়, চাষবাস শেখানো হয় – বিশেষ করে নানা ধরনের ফসল লাগানো, কিংবা জলসেচের নালা কাটা, ইত্যাদি৷ কেননা এই অঞ্চলে খুব বৃষ্টি হয়৷ চাষিদের মুখপাত্র স্যাম মাসা বললেন, ‘‘অধিকাংশ চাষিই জানতেন না, কী ভাবে পরিবেশ রক্ষা করতে হয়৷ কিন্তু ইউএনডিপি এখানে কাজ শুরু করা পর্যন্ত অনেক কিছু বদলেছে৷ মানুষজন এখন তাদের জমি রক্ষা করতে, জমির ক্ষয় রোধ করতে শিখেছে৷''

২০১৫-র শেষে ইউএডিপি-র কর্মসূচি শেষ হচ্ছে৷ কিন্তু কর্মকর্তাদের ধারণা, ভবিষ্যতে এলাকার মানুষজন নিজেদের সমস্যা নিজেরাই সমাধান করতে পারবেন৷ ইউএনডিপি'র প্রতিনিধি পল এনতেজা বললেন, ‘‘যেহেতু আমরা স্বল্পমেয়াদে মানুষজনের জীবিকার উন্নতি করতে পেরেছি, সেহেতু আমরা দীর্ঘমেয়াদে সব দিক সামলাতে পারব বলেই আমাদের আশা৷ আমরা নিশ্চিত করতে পারব যে, আমরা যে সব গতিবিধি, ধ্যানধারণার সূচনা করতে পেরেছি, সেগুলো আগামীতেও এই মানুষদের জীবনে একটা ভূমিকা রাখবে৷''

প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ পর্যটন শিল্পের সম্প্রসারণ ঘটাতে এবং পর্যটকদের মাউন্ট এলগন অঞ্চলে আসার উৎসাহ দিতে চান৷ সেক্ষেত্রে বাসিন্দাদের জন্য অর্থোপার্জনের একটি নতুন পন্থা খুলে যাবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক