1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

বিপদ জেনেও বিষাক্ত বর্জ্য দূষণ এলাকায় ফিরছে হাঙ্গেরির মানুষ

ছয় মাস আগে বুদাপেস্টের ১৬০ কিলোমিটার পশ্চিমে, আজকা’র একটি অ্যালুমিনিয়াম কারখানার দেয়াল ভেঙে বিষাক্ত বর্জ্য নদীতে মিশে ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি করায়, যে শত শত মানুষ নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধানে চলে গিয়েছিলেন, তাঁরা এবার ফিরছেন৷

default

ফাইল ছবি

গত অক্টোবর মাসে ঐ বিষাক্ত লাল রঙের কাদার কারণে সৃষ্ট দুর্যোগকে বলা হয় হাঙ্গেরির স্মরণকালের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় দুর্ঘটনা৷ অ্যালুমিনিয়াম কারখানার এই বিষাক্ত লাল কাদা, প্রথমে রাবা নদীতে গিয়ে মিশে যায়৷ পরে সেই নদীর প্রবাহিত ধারা দানিয়ুব নদীতে মিশে পুরো নদী এবং নদী সংলগ্ন এলাকাকে বিষাক্ত করে তোলে৷ আশেপাশের এলাকা ভেসে যায় সেই বিষাক্ত পদার্থযুক্ত পানিতে৷ অন্তত ১০ ব্যক্তি ঐ ঘটনায় প্রাণ হারান৷ আহত হন কম করে হলেও ১৫০ জন৷

ঐ ঘটনার পরপরই বিষাক্ত জায়গা ছেড়ে নিরাপদে চলে যান শত শত গ্রামবাসী৷ ছয় মাস পর তাঁরা আবার ফিরতে শুরু করেছেন নিজ নিজ বাস্তুভূমিতে৷ এর মধ্যে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত কোলোনতার গ্রামের মানুষ এসে দেখতে পাচ্ছেন, তাঁদের বাড়ি, বাড়ির উঠোন, বাগান সর্বত্র লাল রঙের সেই বিষাক্ত শুকনো কাদা জমে রয়েছে৷ প্রত্যক্ষদর্শীরা জানাচ্ছেন, অন্তত ৪০ বর্গ কিলোমিটার এলাকায় এই ধরণের দূষিত পদার্থের প্রলেপ পড়ে রয়েছে৷ উল্লেখ্য, এই বিষাক্ত লাল কাদা অ্যালুমিনিয়াম কারখানার বর্জ্য হিসেবেই আধারটিতে রাখা হতো৷ এটি ভয়াবহ রকমের বিষাক্ত৷ এই বর্জ্যে আর্সেনিক, ক্রোমিয়াম, ক্যাডমিয়ামের মত মারাত্মক সব ক্ষতিকর উপাদান আর ভারি ধাতু রয়েছে - যা সার্বিকভাবে পরিবেশ দূষণ ঘটায়৷

নিজ বাস্তুভূমিতে তাঁরা ফিরে আসছেন, এটা শুনতে ভালো লাগলেও পরিবেশ বিজ্ঞানীরা বলছেন, সেখানে ঐ দুর্ঘটনা পরবর্তী অবস্থা প্রাণিকুলের জন্য মোটেই সুবিধার নয়৷ বর্তমানে তো বটেই, ভবিষ্যতেও সেখানে এর ক্ষতিকারক প্রভাব রয়ে যাবে৷ সেখানকার সরকার ঐ এলাকার মানুষদের জমিতে কোন ধরণের শাকসবজি না লাগানোরও পরামর্শ দিয়েছেন৷

সেখানকার দুর্যোগ বিষয়ক কমিশনার গিয়োর্গি বাকোনডি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরা এখনো ঐ এলাকার সুদূর প্রসারী নেতিবাচক প্রভাব কী হতে পারে - তা জানি না৷ এ নিয়ে গবেষণা চলছে৷'' তিনি আরও জানান যে, সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার অন্তত ৬০টি পরিবারকে অন্যত্র আবাস গড়ে দেয়া হচ্ছে৷ কারণ, তাদেরকে বাড়িতে ফিরিয়ে নেয়া সম্ভব নয়৷

প্রতিবেদন: সাগর সরওয়ার

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

সংশ্লিষ্ট বিষয়