1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

বিপদ এড়িয়ে চলে ‘বুদ্ধিমান’ গাড়ি

মোটর গাড়ির চকচকে নতুন দুনিয়ায় গাড়িরাও আজ দেখতে শিখছে, শুনতে শিখছে৷ তাদেরও আজ সেন্সর, রাডার, ক্যামেরা লাগানো থাকে৷ ডিজিটাল নেটওয়ার্কিং-এর কারণে গাড়িরাও ক্রমেই আরো বুদ্ধিমান হয়ে উঠছে৷

প্রযুক্তিগত নানা সুবিধা ব্যবহার করে চালক বিনা ভুলে এবং বিনা বিপদে গাড়ি চালাতে পারেন৷ যেমন ‘ব্লাইন্ড স্পট' বা অদৃশ্য কোণ থেকে কোনো গাড়ি এলে গাড়িই চালককে সাবধান করে দেয়৷ অথবা গাড়ি তার লেন ছাড়বার উপক্রম করলে স্টিয়ারিং হুইল কাঁপতে শুরু করে এবং নিজে থেকেই ঘুরে গিয়ে ভুলটা ঠিক করে নেয়৷ এ সব ব্যবস্থা ইতিমধ্যেই আছে এবং আরো নির্ভরযোগ্য হচ্ছে৷ এমনকি চালক ক্লান্ত হয়ে পড়লে, গাড়ি তাও বুঝতে পারে৷ মার্সিডিজ-বেনৎস কোম্পানির ইয়খেন হ্যার্মান বলেন, ‘‘চালকের ক্লান্তি ধরার জন্য প্রধান সেন্সরটি হলো ‘স্টিয়ার অ্যাঙ্গল সেন্সর'– অর্থাৎ চালক যেভাবে স্টিয়ারিং ঘোরায় তা থেকে তার গাড়ি চালনার ধরন আন্দাজ করা যায়৷ আবার একই মানুষ নানাভাবে গাড়ি চালায়, যেমন মোটরওয়ে-তে চালানোর সময়৷ চালক ক্লান্ত হয়ে পড়লে আগে আমরা তাকে সাবধান করে দিতাম না৷ আজ গাড়িগুলো ন্যাভিগেটরের সঙ্গে যুক্ত থাকায় চালককে বলে দেওয়া যায়, কয় কিলোমিটারের মধ্যে থামার জায়গা আছে৷''

আন্তর্জাতিক গাড়ি প্রদর্শনীতে স্বচক্ষে দেখা যায়, বিপদ দেখা দিলে একটা গাড়ি ৫০ কিলোমিটার গতিতে কীভাবে আচমকা ব্রেক করতে পারে৷ লেজার আর ক্যামেরা স্বল্প দূরত্ব থেকেও লক্ষ্যটা চিনে নেয়৷ গাড়ির পার্টস সরবরাহকারী কোম্পানি কন্টিনেন্টালের মার্কুস স্নাইডার সিটি ট্র্যাফিকে এমার্জেন্সি ব্রেক সিস্টেমের উপযোগিতা নিয়ে গবেষণা করছেন৷

স্নাইডার বলেন, ‘‘ধরুন আপদকালীন ব্রেক সিস্টেমটা যদি সম্ভাব্য দুর্ঘটনার অনেক আগে থেকেই সক্রিয় হয়, তাহলে চালক একদিন না একদিন ভাববেন, আমার ও প্রযুক্তির দরকার নেই, কেননা স্টিয়ারিং ঘুরিয়ে পাশ কাটিয়ে যাওয়ার কিংবা ব্রেক করার জন্য আমার হাতে যথেষ্ট সময় থাকছে৷ কাজেই এ ধরনের চালক-সহকারী-প্রণালী খুব সাবধানে অ্যাডজাস্ট করতে হয়, যাতে তা ঠিক তখনই ব্রেক কষবে, যখন চালকের দুর্ঘটনা এড়ানোর আর কোনো পথ নেই৷''

অভিনব এই সব নতুন প্রযুক্তি প্রথমে আসে দামি মডেলগুলোতে, পরে কমদামি মডেলগুলোও তা থেকে লাভবান হয়৷ জার্মান অটোমোবাইল ক্লাব এডিএসি দেখেছে, চালক-সহকারী-প্রণালীগুলির ফলে দুর্ঘটনা সত্যিই কমে যায়৷ কিন্তু এই নতুন ডিজিটাল জগতের সব খুঁটিনাটি সামলানো চালকের পক্ষে কঠিন হয়ে পড়তে পারে৷ এডিএসি-র পরীক্ষা ও প্রযুক্তি বিভাগের বেটিনা হিয়েরাট বলেন, ‘‘চালক-সহকারী-প্রণালীর কাজ হলো চালককে সংকটের মুহূর্তে সাহায্য করা৷ কাজেই চালককে বিক্ষিপ্ত না করাটা জরুরি: সতর্কতামূলক আলো খুব চকমকে হলে চলবে না; খুব তাড়াতাড়ি জ্বললে-নিভলে চলবে না৷ তাহলে চালক গাড়ির কথা ভুলে প্রণালী নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়বে৷''

চালককে বিক্ষিপ্ত করার আরেকটি সহজ পন্থা হলো স্মার্টফোন৷ সে বিপদ এড়াতে ইন্টারনেট-যুক্ত গাড়িগুলিতে অ্যাপ বসানোর ব্যবস্থা রয়েছে, যে অ্যাপ দিয়ে গান শোনাও চলে আবার চালককে সতর্ক করাও চলে৷

ব্রিটেনের নামি-দামি বেন্টলে গাড়ির কোম্পানি-ম্যানেজার গোত্রীয় গ্রাহকদের জন্য গাড়ির ভিতরেই ইন্টারনেট ছাড়া একটি ট্যাবলেট রাখা আছে, যা দিয়ে ড্যাশবোর্ডের রেডিও-র প্রোগ্রামও বদলানো চলে৷ এ ধরনের গাড়িতে সামনে বসে ড্রাইভার, পিছনে মালিক বা ম্যানেজার সাহেব৷ যাবতীয় কম্ফর্ট আর লাক্সারি নিয়ে এই গাড়িতে লম্বা পথ পাড়ি দেওয়া যায়৷

বাকিদের ক্ষেত্রে থাকছে এমন একটি গাড়ির স্বপ্ন, যা নিজেই নিজেকে চালাতে পারে৷ সে গাড়ি সেন্সর আর রাডারের মাধ্যমে পারিপার্শ্বিকের সঙ্গে যুক্ত এবং সুবিশাল পরিমাণ ডাটা মুহূর্তে বিশ্লেষণ করতে সক্ষম৷ মার্সিডিজ বেনৎস কোম্পানির ইয়খেন হ্যার্মান বলেন, ‘‘মানুষ এমন সব পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে পারে, যেগুলোর সঙ্গে সে প্রথমবার মুখোমুখি হচ্ছে৷ এ কাজটা আজকের কোনো বুদ্ধিমান যন্ত্রের পক্ষেও করে ওঠা সম্ভব নয়৷''

এছাড়া ভবিষ্যতের বুদ্ধিমান গাড়িও গাড়ি চালানোর মজাটা বুঝতে পারবে কিনা সন্দেহ!

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়