1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ১৫৩ জন সাংসদদের নির্বাচন বৈধ

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়া বৈধ৷ এতে সংবিধানের কোনো লঙ্ঘন হয় না৷ ৫ই জানুয়ারির একতরফা নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ১৫৩ জনের নির্বাচনের বৈধতা নিয়ে করা রিট আবেদন খারিজ করে দিয়ে হাইকোর্ট এ কথা বলেছে৷

৫ই জানুয়ারির নির্বাচনের পর, বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ১৫৩ জন সংসদ সদস্যদের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেন আইনজীবী হাসান এম এস আজিম৷ এরপর হাইকোর্ট এ নিয়ে রুল জারি করে গত ১৫ই ফেব্রুয়ারি৷ শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার ও বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকার সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রুল বাতিল করে আদেন খারিজ করে দেন৷

আদালত তার আদেশে কোনো সংসদীয় আসনে একক প্রার্থী থাকলে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার ঘোষণা দেয়ার গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের (আরপিও) ১৯ ধারার বৈধতা নিয়ে করা রিট আবেদন খারিজ করে দেয়ার পাশাপাশি গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশে ‘না ভোটের বিধান' সংযোজনের নির্দেশনা চেয়ে করা অপর রিটটিও খারিজ করে দেয়৷

রায়ে আদালত বলে, সংবিধানের সঙ্গে আরপিও-র সংশ্লিষ্ট ধারাটি সাংঘর্ষিক নয়৷ সংবিধানের সঙ্গে কোনো আইন সরাসরি সাংঘর্ষিক হলে, আদালত তা বাতিল করতে পারেন৷ বর্তমান আইনি কাঠামোতে ১৫৩ জনের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়া নিয়ে প্রশ্ন তোলার অবকাশ নেই৷ আর ‘না ভোটের বিধান' নিয়ে আদালত বলে যে, না ভোটের বিধান আইনে নির্ধারণ করা সংসদের এখতিয়ার৷

রায়ের পর অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘এই রায়ের মাধ্যমে একটি বহুল বিতর্কিত বিষয়ের নিষ্পত্তি হয়েছে বলে আমি মনে করছি৷ হাইকোর্টের এই রায়ের পর এখন ১৫৩ জনের নির্বাচনের বৈধতা নিয়েও আর কোনো প্রশ্ন তোলার অবকাশ নেই৷''

তিনি বলেন, ‘‘আরপিও-তে কোনো কিছু সংযোজন বা বিয়োজন করা সম্পূর্ণ পার্লামেন্টের এখতিয়ার৷ এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ একমাত্র পার্লামেন্টই নিতে পারে৷''

রিটকারী আইনজীবী হাসান এম এস আজিম জানান, ‘‘সবার সঙ্গে আলোচনা করে আপিলের বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে৷''

এই মামলার শুনানিতে আদালত মতামত নেয়ার জন্য ১২ই মার্চ অ্যামিকাস কিউরি হিসেবে ছয় আইনজীবীসহ সাতজনের নাম ঘোষণা করে৷ তাঁদের মধ্যে আইনজীবী ড. কামাল হোসেন, রফিক-উল হক, আজমালুল হোসেন কিউসি, রোকনউদ্দিন মাহমুদ, মাহমুদুল ইসলাম এবং সুশাসনের জন্য নাগরিক বা সুজন-এর সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার মতামত দেন৷

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা শুনানি করেন৷ এছাড়া নির্বাচন কমিশনের পক্ষে আইনজীবী তৌহিদুল ইসলাম এবং রিটকারীদের পক্ষে আইনজীবী হাসান এম এস আজিম ও রেদোয়ান আহমেদ অংশ নেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়