1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বিদ্রোহের বিরুদ্ধে যাবে না মিশরের সেনাবাহিনী

মিশরের আন্দোলনের আরেক বড়দিন আজ৷ লক্ষ লক্ষ মানুষকে পথে নামার ডাক দিয়েছে এই গণজাগরণ৷ কায়রো, আলেকজান্দ্রিয়া, সুয়েজের পথে আজ দেখা যাবে বিশালতর মিছিল৷ সেনাবাহিনীর প্রতিশ্রুতি, তারা এই বিপ্লবের বিরোধিতা করবে না৷

default

এরপর আর কিছু বলার অপেক্ষা রাখে কী?

মানুষের নৈতিক অধিকারকে লঙ্ঘন করবে না সেনাবাহিনী

দীর্ঘ তিন দশক ধরে মিশরের প্রেসিডেন্ট পদে থাকা হোসনি মুবারকের পদত্যাগের দাবিতে আজ সবচেয়ে বড় আকারের মিছিল বের হবে কায়রো থেকে আলেকজান্দ্রিয়া সর্বত্র৷ বিক্ষোভের আয়োজকরা সারারাত কায়রোর তাহরির স্কোয়্যারে বসে আছেন৷ চলছে গানবাজনা, মুবারক বিরোধী স্বতঃস্ফূর্ত স্লোগান৷ চলছে হাতে হাতে লিফলেট বিলি৷ যাতে লেখা আছে, দেশের সেনাবাহিনীর প্রতি সাধারণ মানুষের আহ্বান৷ লেখা আছে, ‘এসো, তোমরাও সামিল হও এই বিপ্লবে৷ ভাইয়ের রক্তে হাত রাঙিও না তোমার৷' এই আহ্বানে সাড়াও দিয়েছে সেনাবাহিনী৷ তাদের জবাব, যে স্বতঃস্ফূর্ত বিপ্লব প্রত্যক্ষ করছে তাদের দেশ, তার টুঁটি টিপে মারতে তারা রাজি নয়৷ মানুষের নৈতিক অধিকারকে সম্মান করতে চায় সেনারা৷ তাই এই বিপ্লবকে কামানের মুখে উড়িয়ে দিতে তারা আগুয়ান হবে না৷

মুবারক বিলিয়ে চলেছেন প্রতিশ্রুতির পর প্রতিশ্রুতি

মুবারক নিজে করেন নি তবে বাস্তবে নবনিযুক্ত ভাইস প্রেসিডেন্ট সুলাইমানকে দিয়ে বলিয়েছেন কী কী দিতে তৈরি তাঁর সরকার৷ বলা হয়েছে, আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই মিশরের বেকার সমস্যা, দুর্নীতি, দারিদ্র ইত্যাদি দূর করতে নতুন পরিকল্পনা ঘোষণা করা হবে৷ চাঙ্গা করা হবে অর্থনীতিকে যাতে আয় ও ব্যয়ের মধ্যে সমতা খুঁজে পায় মানুষ৷ কমবে দ্রব্যমূল্য৷ এমনকি গত

NO FLASH Proteste in Ägypten gegen Mubarak Regime gehen weiter Tahrir Square Platz

গণজাগরণ প্রত্যক্ষ করছে সুপ্রাচীন সভ্যতার দেশ মিশর

নভেম্বরের নির্বাচনে যেসব জায়গায় মুবারকের দল ৮৩ শতাংশ ভোট পেয়েছিল, সেসব জায়গায় পুনর্নির্বাচনও হবে৷ কিন্তু, এসব কথায় কান দিচ্ছে না মিশরের উত্তাল গণজাগরণ৷ তাহরির স্কোয়্যারে কারফিউ-র মধ্যেও জমায়েত থাকা হাজার হাজার মানুষ একযোগে মুবারক সরকারের এইসব প্রতিশ্রুতিকে ‘ছেঁদো কথা' বলে উড়িয়ে দিয়েছে৷ তাদের বক্তব্য, ‘ভীরু কাপুরুষ' এই সরকারের পতন না ঘটিয়ে এই জমায়েত থেকে কেউ নড়বে না৷

আন্তর্জাতিক মহলের চাপও ক্রমশ বাড়ছে

যাকে বলে ক্রমবর্দ্ধমান৷ মুবারকের দীর্ঘদিনের ‘বন্ধু' দেশ অ্যামেরিকা বেশ বেঁকে বসেছে৷ মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রক বিশেষ দূত নিয়োগ করেছে কায়রোয়৷ মিশরে অতীতে মার্কিন রাষ্ট্রদূত পদে কাজ করে যাওয়া ফ্রাঙ্ক ওয়াইজনার নামের সেই প্রভাবশালী ব্যক্তি চেষ্টা করছেন রাজনৈতিক পরিবর্তন মেনে নেওয়ার জন্য মিশরের নেতাদের, বিশেষ করে মুবারককে বোঝাতে৷ ইসরায়েল কিন্তু এখনও মুবারকের সঙ্গ ছাড়েনি৷ তাদের আশঙ্কা, মিশরে মুবারকের পতন হলে ইরানের মত কোন ইসলামিক শাসনতন্ত্র সেদেশে কায়েম হবে৷ যা কিনা ইহুদি রাষ্ট্রের জন্য সুখকর না হতেও পারে৷ এদিকে মিশরের পরিস্থিতিকে কেন্দ্র করে বিশ্ব বাজারে তেলের দাম বাড়ছে৷ কমছে শেয়ারবাজারের সূচক৷ তাই আন্তর্জাতিক মহল চায়, অস্থিরতার অবসান হোক যত দ্রুত সম্ভব৷ আর তার জন্য যদি মুবারককে গদি ছাড়তে হয়, তো তাই সই৷

প্রতিবেদন: সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়

সম্পাদনা : সাগর সরওয়ার

সংশ্লিষ্ট বিষয়