1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বিদ্রোহীদের সঙ্গে গাদ্দাফি বাহিনীর ব্যাপক সংঘর্ষ

রাতে যৌথ বাহিনীর অভিযান, দিনে গাদ্দাফি সমর্থিত বাহিনীর হামলা৷ এই হলো লিবিয়াবাসীর বর্তমান দিনকালের হালহকিকত৷ এদিকে যৌথবাহিনীর নেতৃত্ব অ্যামেরিকার কাছ থেকে ন্যাটো নেবে কিনা, সেটা এখনো পরিষ্কার নয়৷

default

লিবীয় এই মহিলার হাতে আরবিতে লেখা ‘আমি লিবিয়াকে ভালবাসি’

সবশেষ পরিস্থিতি

মিস্রাতা আর আজদাবিয়াতে গাদ্দাফি বাহিনীর সঙ্গে বিদ্রোহীদের ব্যাপক সংঘর্ষের খবর পাওয়া যাচ্ছে৷ ত্রিপোলি আর বেনগাজির পর মিস্রাতা হলো সবচেয়ে বড় শহর৷ সেখানকার এক অধিবাসী বলছেন, মিস্রাতার বন্দরটির দখল নিয়ে নিয়েছে গাদ্দাফি বাহিনী৷ জানা গেছে, রাতে যৌথবাহিনী মিস্রাতা শহরের বাইরে থাকা গাদ্দাফি বাহিনীর ট্যাঙ্ক লক্ষ্য করে হামলা করেছে৷ কিন্তু শহরের মধ্যে থাকা ট্যাঙ্কগুলো অক্ষত রয়েছে৷ ফলে দিন শুরু হওয়ার পর ঐ ট্যাঙ্কগুলো থেকেই বিদ্রোহীদের উপর হামলা শুরু করা হয়৷ আরেক শহর আজদাবিয়াতেও গোলাগুলির শব্দ পাওয়া যাচ্ছে৷ সেখানকার ঘরবাড়িতে আগুন জ্বলছে বলে জানা গেছে৷ লোকজন ভয়ে শহর ছেড়ে যাচ্ছেন৷

শুধু স্থলে হামলা

গাদ্দাফি বাহিনী এখন শুধু স্থলে হামলা করছে৷ কারণ লিবিয়ার বিমানবাহিনীর উপর যৌথ বাহিনীর ব্যাপক হামলা৷ যৌথ বাহিনীর অভিযান শুরু হয়েছে পাঁচ দিন আগে৷ এতদিন খুঁজে খুঁজে বিমানবাহিনীর স্থাপনার উপর হামলা করেছে যৌথ বাহিনী৷ ফলে লিবিয়ার বিমানবাহিনীর ক্ষমতা প্রায় ধ্বংস হয়ে গেছে বলে যৌথ বাহিনীর কর্মকর্তারা বলছেন৷ ফ্রান্সের পররাষ্ট্রমন্ত্রীও বিমান হামলা নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন৷ তিনি বলছেন, লিবিয়ার সামরিক বাহিনীকে শেষ করে দিতে এক মাসও সময় লাগবে না৷

নিরীহ মানুষ

জাতিসংঘের যে সিদ্ধান্তের কারণে যৌথ বাহিনী অভিযান চালাতে পারছে তাতে বলা ছিল, লিবিয়ার নিরীহ মানুষকে বাঁচাতেই অভিযান প্রয়োজন৷ কিন্তু এখন লিবিয়া সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, যৌথ বাহিনীর অভিযানে নিরীহ লোকও মারা যাচ্ছে৷ কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের যে মিশন লিবিয়া অভিযানের সঙ্গে জড়িত তার প্রধান বলছেন যে, তাদের অভিযানে কোনো বেসমারিক লোক নিহত হয়নি৷

অভিযানের নেতৃত্ব

যুক্তরাষ্ট্র এই অভিযানের নেতৃত্বে থাকতে চাইছে না৷ তাই দায়িত্ব নেবার কথা ন্যাটোর৷ যদিও এ ব্যাপারে কয়েকটি দেশ, বিশেষ করে তুরস্কের অনুমতি পাওয়া যাচ্ছে না৷ তবে এক কূটনীতিক বলেছেন, চেষ্টা চলছে সবার কাছ থেকে অনুমতি পাওয়ার৷ এ ব্যাপারে আজই আর একটু পরে ন্যাটোর একটি বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে৷ গত তিন দিন ধরে এই বৈঠক চলছে৷ এদিকে আরেকটি সূত্রে জানা গেছে, যৌথ বাহিনীর নেতৃত্ব নেয়ার পর কীভাবে, কোথা থেকে কাজ পরিচালিত হবে সেই পরিকল্পনা করা হয়ে গেছে৷

প্রতিবেদন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

নির্বাচিত প্রতিবেদন