বিদ্যুৎ সংকট নিরসনে সৌরজাতির স্বপ্ন | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 27.09.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

বিদ্যুৎ সংকট নিরসনে সৌরজাতির স্বপ্ন

আন্তর্জাতিক জ্বালানি কাউন্সিলের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, সৌরবিদ্যুতে বিনিয়োগ দাঁড়িয়েছে অন্তত ৪ হাজার কোটি ডলার৷ সৌর বিদ্যুৎ উৎপাদন ৫ বছরে বেড়েছে ৬ গুণ, আর বিনিয়োগ বেড়েছে প্রায় পৌনে দুইশ গুণ৷

default

সৌর বিদ্যুত উৎপন্ন হচ্ছে

উন্নত দেশগুলো প্রযুক্তিতে অনেক এগিয়ে থাকলেও, সৌর বিদ্যুতের জনপ্রিয়তা বেশি বেড়েছে এশিয়ার উন্নয়নশীল দেশগুলোতে৷ বিশেষভাবে চীন, ভারত ও বাংলাদেশে৷ এবার বাংলাদেশ দেখছে সৌর জাতি গড়ার স্বপ্ন৷

রাতে ঘুম ভালো হচ্ছিলো না কেরামত আলীর৷ ঢাকার মগবাজারে একটি ছোট্ট বাসায় থাকেন তিনি৷ একদিকে গুমোট গরম, অন্যদিকে বিদ্যুতের যাওয়া আসার খেলা৷ হাতের তালপাতার পাখাটি জোরে জোরে দুলিয়েও কোন বাতাস পাওয়া যায়নি৷ ফলে কোনোমতে চোখ বুজে ছিলেন৷ সকালে আধোঘুম যখন ভাঙলো, তাকিয়ে দেখলেন ... না ছাদের সঙ্গে ঝোলানো পাখাটি দুলছে না... মন খারাপ হলো কেরামত আলীর৷

Palästina Solar Solaranlage Windkraft Mini-Windrad Flash-galerie

ফিলিস্তিনের একটি গ্রামে সৌর প্যানেল

এবার চলুন সুদূর পার্বত্য চট্টগ্রামে৷ রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়ি৷ দিপা চাকমা মাত্র স্কুল থেকে ফিরেছেন৷ অনেকখানি পথ হাঁটতে হাঁটতে তিনি ক্লান্ত৷ ঘরে ঢুকেই সুইচটি টিপে দিলেন৷ চালু হয়ে গেলো ফ্যানটি৷ আহা কি আনন্দ!

আগেই বলেছি কেরামত আলী থাকেন ঢাকায়৷ জাতীয় গ্রিডের মাধ্যমে তিনি বিদ্যুৎ পান৷ আর দিপা চাকমার বাড়ির সংযোগ জাতীয় গ্রিড থেকে নয়, আসে সৌর বিদ্যুৎ থেকে৷ একটি এনজিওর মাধ্যমে তিনি পেয়েছেন এই প্যানেল৷ মাসে মাসে পরিশোধ করছেন এই সৌর প্যানেলের দাম৷

ইউরোপের সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদনকারীদের সংগঠন ইপিআইএ জানিয়েছে, ২০০৯ সালে বিশ্বজুড়ে সৌরবিদ্যুতের ব্যবহার বেড়েছে ৪৪ ভাগ৷ সৌরবিদ্যুতের উৎপাদন বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২০ হাজার মেগাওয়াট৷ এর মধ্যে গত বছরেই বেড়েছে ৬ হাজার ৪০০ মেগাওয়াট৷ এবছরও বিশ্বে সৌরবিদ্যুতে প্রবৃদ্ধি হবে ৪০ শতাংশের বেশি৷ সৌর বিদ্যুৎ ব্যবহারকারিদের তালিকাতেও দেশ হিসেবে শীর্ষে আছে জার্মানি৷

বাংলাদেশের সৌর বিদ্যুৎ আন্দোলনের অন্যতম যে ব্যক্তি তার নাম দিপাল চন্দ্র বড়ুয়া৷ গ্রামীন শক্তির সাবেক প্রধানের এখন নিজের প্রতিষ্ঠান, নাম ব্রাইট গ্রিন এনার্জি ফাউন্ডেশন৷ তাঁর মতে সৌর বিদ্যুতের জন্য বাংলাদেশ হচ্ছে সবচেয়ে সম্ভাবনাময় একটি দেশ৷ কারণ এখানে বছরে তিনশো দিনেরও বেশি রোদ থাকে৷ তিনি দেখছেন এক সৌর জাতির স্বপ্ন৷ দিপাল চন্দ্র বড়ুয়া বললেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতি মোকাবিলায় বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে সৌর বিদ্যুৎ৷ তিনি বলেন, প্রতি মাসে বাংলাদেশে ৩০ হাজার সৌর প্যানেল বিক্রি হচ্ছে৷ সরকার এবং তাদের পরিকল্পনা হল সাড়ে সাত কোটি মানুষকে সৌর বিদ্যুতের আওতায় নিয়ে আসা৷ আর তাঁর এই স্বপ্ন বাস্তব হতে হয়তো সময় লাগবে ২০১৫ সাল পর্যন্ত৷ এই সময়ের মধ্যে নবায়নযোগ্য বিদ্যুৎ খাতের বিপ্লবটি বাস্তবায়িত হবে বলেই তাঁর আশা৷ এখন সেই কাজ শুরু হয়ে গেছে, বললেন দিপাল চন্দ্র বড়ুয়া৷

কৃষির বিকাশে সৌর বিদ্যুতে সেচ পাম্প চালানো হচ্ছে বাংলাদেশে৷ নওগাঁর সাপাহারে স্থাপন করা ১১.২ কিলোওয়াটের একটি সেচ পাম্প প্রতিদিন প্রায় তিন লাখ লিটার পানি সেচ করতে পারে৷ সেচ পাম্প চলছে যশোরের বানিয়ালিতে৷

বিদ্যুৎ উৎপাদনে চাহিদা এবং তার সাথে পাল্লা দিতে না পারায় ক্রমবর্ধমান ঘাটতিতে দেশ যখন ভয়াবহ সংকটে তখন সৌর বিদ্যুতের প্রয়োজনীয়তার দিকটি আলোচিত হচ্ছে জোরেশোরে৷ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে স্থাপন করা হয়েছে সৌর বিদ্যুতের প্যানেল৷ সম্প্রতি নিজেদের ছাদে দেশের সবচেয়ে বড় সৌর প্যানেল স্থাপন করে চমক দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক৷ গ্রাম থেকে সৌর বিদ্যুৎ এবার ঢাকায়৷

সৌরশক্তির বিদ্যুত প্লান্ট এর দাম গত কয়েক বছরে কিছুটা কমলেও এখনও তা সাধারণের নাগালের বাইরে, বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক ব্যবস্থায় এটা ব্যবহার করাও ব্যয়সাধ্য৷

প্রতিবেদন: সাগর সরওয়ার

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সংশ্লিষ্ট বিষয়