1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

বিদেশে বাংলাদেশিদের জিম্মি করে ‘বিকাশের’ মাধ্যমে অর্থ আদায়

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ইউরোপে প্রবেশে আগ্রহী বাংলাদেশি শরণার্থীদের লিবিয়া ও তুরস্কের মতো দেশে জিম্মি করে বিকাশের মাধ্যমে মুক্তিপণ আদায়ের অভিযোগ উঠেছে৷ এরকম পরিস্থিতির শিকার এক ব্যক্তি ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন তাঁর অভিজ্ঞতা৷

ভিডিও দেখুন 10:53

‘নগ্ন করে নির্যাতন করা হয় শরণার্থীদের’

বাংলাদেশে মোবাইলে অর্থ লেনদেনের জনপ্রিয় ব্যবস্থা ‘বিকাশ' ব্যবহার করে মানব পাচারকারীদের মুক্তিপন আদায়ের অভিযোগ উঠেছে৷ ইউরোপে প্রবেশের সময় পাচারকারীদের নির্যাতনের শিকার একাধিক বাংলাদেশি ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন এই তথ্য৷ তাঁরা দাবি করেছেন, মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে থাকা বাংলাদেশিদের সস্তায় ইউরোপে নিয়ে যাওয়ার লোভ দেখায় মানবপাচারকারীদের একটি চক্র৷ সেই প্রস্তাবে রাজি হয়ে লিবিয়া, ইরান বা তুরস্কে পৌঁছানোর পর শরণার্থীদের জিম্মি করা হয় বাড়তি অর্থ আদায়ের উদ্দেশ্যে৷

দুবাই থেকে দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে জার্মানিতে পৌঁছানো এক বাংলাদেশি শরণার্থী ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, শরণার্থীদের জিম্মি করার পর বাংলাদেশে থাকা তাদের আত্মীয়স্বজনদের কাছে ফোন করে টাকা চাওয়া হয়৷ প্রত্যাশামতো টাকা শরণার্থীর পরিবার ‘বিকাশের' মাধ্যমে পাঠানোর পর মুক্তি পান তিনি৷ কিন্তু পরিবার টাকা দিতে গড়িমসি করলে অকথ্য গালাগালি এবং নগ্ন করে গায়ে ঠাণ্ডা পানি ঢেলে নির্যাতন করা হয় শরণার্থীকে৷ এতে মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে বলেও দাবি করেছেন তিনি৷

নিরাপত্তার কারণে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এই শরণার্থী বর্তমানে জার্মানির বন শহরে অবস্থান করছেন৷ তুরস্কে মানবপাচারকারীদের হাতে সাত মাস জিম্মি ছিলেন তিনি৷ বাংলাদেশের নোয়াখালীর এই বাসিন্দা জানান, বাংলাদেশি মানবপাচারকারীরা তুরস্ক এবং লিবিয়ার স্থানীয়দের সঙ্গে মিলে শরণার্থীদের জিম্মি করে অর্থ আদায় করছে৷ ‘বিকাশের' মাধ্যমে ক্যাশ টাকা লেনদেন সহজ এবং ক্যাশ টাকা তুলে নেয়ার সুযোগ থাকায় জিম্মিকারীরা সেটি ব্যবহার করে বলে দাবি করেন তিনি৷

তাঁর পুরো সাক্ষাৎকারটি দেখতে ক্লিক করুন এখানে

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়