1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

বিদেশেও জঙ্গি কার্যক্রমে জড়াচ্ছে বাংলাদেশিরা

শুধু দেশে নয়, বিদেশেও জঙ্গি কার্যক্রমে জড়িয়ে পড়ছে বাংলাদেশিরা৷ সাম্প্রতিতে সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, ভারতসহ বিভিন্ন দেশে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে বেশ কয়েকজন বাংলাদেশি গ্রেপ্তার হয়েছে৷ এতে সুনাম ক্ষুণ্ণ হচ্ছে বাংলাদেশেরই৷

গ্রেপ্তারকৃত এ সমস্ত বাংলাদেশিদের মধ্যে সিঙ্গাপুরেই দু'দফায় ৩৫ জন নাগরিক আটক হয়েছে৷ এই ৩৫ জনের মধ্যে আবার ৩৩ জনকে দেশে ফেরত পাঠিয়েছে সেদেশের সরকার৷ এর বাইরে সর্বশেষ জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট বা আইএস-এর সঙ্গে সম্পৃক্তার অভিযোগে মালয়েশিয়ায় দুই বাংলাদেশি নাগরিককে গ্রেপ্তার করেছে দেশটির পুলিশ৷ এছাড়া ভারতের বিভিন্ন রাজ্যেও বেশ কয়েকজন বাংলাদেশি নাগরিককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷

পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক নুরুল হুদা ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘যারা দেশের বাইরে অবস্থান করছেন, তারা যদি এই ধরনের কোনো কার্যক্রমের সঙ্গে সম্পৃক্ত হন, তাহলে তাৎক্ষণিকভাবে আমাদের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর বা সরকারের কিছু করার নেই৷ এমতাবস্থায় সেদেশের সরকার তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারে৷ তাদের গ্রেপ্তার করে দেশে ফেরত পাঠাতে পারে৷ আর আমাদের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীও যথাযথ প্রক্রিয়ায় ঐ সব দেশের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের ফেরত আনতে পারে৷ পাশাপাশি তাদের মাধ্যমে অন্য কেউ জঙ্গি সম্পৃক্ত হচ্ছে কিনা, তাও তদন্ত করতে পারে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী৷ এটাই তাদের কাজ৷ তবে তারা এটা করে ঢাক-ঢোল পিটিয়ে নয়, গোপনে৷''

অডিও শুনুন 02:10

‘দেশের বাইরে কেউ জঙ্গি কার্যক্রমের সঙ্গে সম্পৃক্ত হলে আমাদের কিছু করার নেই’

সর্বশেষ সোমবার মালয়েশিয়ায় তথাকথিত ইসলামিক স্টেটের সাথে জড়িত সন্দেহে দু'জন বাংলাদেশিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ৷ কুয়ালালামপুর ও সাবাহ প্রদেশে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়৷ দেশটির নিউ স্ট্রেইটস টাইমস পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়, মালয়েশীয় পুলিশ বাহিনীর সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ শাখার সদস্যরা আইএস-এর একটি আস্তানা গুঁড়িয়ে দিয়েছে৷ এ ঘটনায় চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়৷ গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে দু'জন বাংলাদেশি৷ তবে তাদের নাম-পরিচয় প্রকাশ করেনি পুলিশ৷ পুলিশ শুধু জানায় যে, গ্রেপ্তার হওয়া চারজনের মধ্যে একজন ফিলিপাইন্সের ও একজন মালয়েশিয়ার নাগরিক৷ বাকি দু'জন বাংলাদেশি৷ এই দু'জনের বয়স আনুমানিক ২৭-২৮ বছর৷ তারা বিক্রয়কর্মী হিসেবে কাজ করছিল৷ এর আগে গত ২২ সেপ্টেম্বর গুলশানের হামলাকারীদের সঙ্গে যোগাযোগ থাকার অভিযোগে এবং জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস সন্দেহে মালয়েশিয়ায় আন্দালিব নামের এক শিক্ষার্থীকে আটক করেছিল পুলিশ৷

এর আগে গত বছরের জানুয়ারি মাসে জঙ্গি কর্মকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে সিঙ্গাপুরে কর্মরত ২৭ জন বাংলাদেশিকে গ্রেপ্তার করে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী৷ এদের মধ্যে ২৬ জনকে দেশে ফেরত পাঠানো হয়৷ অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা আইন বা আইএসএ অনুযায়ী, ২০১৫ সালের ১৬ নভেম্বর থেকে ১ ডিসেম্বরের মধ্যে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছিল৷ জানা গেছে, এরা সবাই পুরুষ ও দেশটিতে নির্মাণ শ্রমিক হিসেবে কাজ করত৷ শুধু তাই নয়, এরা সকলেই আল-কায়েদা ও ইসলামিক স্টেটের মতো জঙ্গি সংগঠনের মতাদর্শে বিশ্বাসী ছিল৷ এদের মধ্যে কয়েকজন বিদেশে জিহাদে অংশ নেওয়ার কথাও ভাবছিল৷ তবে সিঙ্গাপুরের ভেতরে সন্ত্রাসী হামলা পরিচালনার কোনো পরিকল্পনা তাদের ছিল না৷

অডিও শুনুন 01:43

‘যাদের ফেরত পাঠানো হয়েছে তাদের বিষয়ে আমরা তদন্ত করেছি’

ঐ ঘটনার দু'মাস পর, অর্থাৎ মার্চ মাসে, সিঙ্গাপুর পুলিশ সেদেশে কর্মরত আরো আটজন বাংলাদেশি শ্রমিককে আটক করে৷ আটক শ্রমিকরা জঙ্গি সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত এবং বাংলাদেশে ফিরে সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা করছিল বলে জানায় দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়৷ আটককৃতদের বয়স ২৬ থেকে ৩৪ বছরের মধ্যে ছিল৷ তারা নিজেদের ইসলামিক স্টেট ইন বাংলাদেশ বা আইএসবি-এর সদস্য বলে দাবি করে৷ আইএস-এর পক্ষে যুদ্ধ করার জন্য বিদেশি যোদ্ধা হিসেবে ইরাক ও সিরিয়ায় যাওয়ারও চেষ্টা করছিলেন তারা৷ এদের মধ্যে সাতজনকে তখন ফেরত পাঠানো হয়৷

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার ছানোয়ার হোসেন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘যাদের ফেরত পাঠানো হয়েছে তাদের বিষয়ে আমরা তদন্ত করেছি৷ এদের সবাই জঙ্গি সম্পৃক্ত ছিল, এটা বলা যাবে না৷ তাই আমাদের তদন্তে আমরা যাদের সঙ্গে জঙ্গি সম্পৃক্ততা পেয়েছি, তাদের কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে৷ অন্যদের আমরা ছেড়ে দিয়েছি৷ পাশাপাশি এদের সঙ্গে যারা সম্পৃক্ত ছিল, তাদের বিষয়েও আমরা তদন্ত করেছি৷ এছাড়া দেশের বাইরে যারা আছে, তাদের কারো জঙ্গি সম্পৃক্ততা পাওয়া গেলে যথাযথ প্রক্রিয়ায় তাদের ফেরত আনার চেষ্টাও করছি আমরা৷''

গত জুনে গুলশানের হোলি আর্টিজান বেকারিতে হামলায় জড়িত সন্দেহে গত ৭ জানুয়ারি ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ধরা পড়ে জেএমবি জঙ্গি রিপন শেখ ওরফে লায়ন ওরফে রিপন৷ তিনি বাংলাদেশি নাগরিক৷ তার বিরুদ্ধে পশ্চিমবঙ্গে জাল নোটের ব্যবসা করারও অভিযোগ রয়েছে৷ গ্রেপ্তারের পর ভারতের সর্বোচ্চ গোয়েন্দা সংস্থা এনআইএ রিপনকে কলকাতায় নিয়ে যায়৷ বর্তমানে আদালতের নির্দেশে রিপন শেখ এনআইএ হেফাজতে রয়েছে৷

অডিও শুনুন 01:13

‘দেশি জঙ্গিদের সঙ্গে বিদেশে থাকে এমন বাংলাদেশিদের সম্পৃত্ততা পায়নি ব়্যাব’

এর আগে গত বছরের জুলাই মাসে ভারত অধ্যুষিত জম্মু-কাশ্মীরের সীমান্ত অঞ্চল থেকে জঙ্গি সন্দেহে এক বাংলাদেশি নাগরিককে আটক করেছে সেদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী৷ ঐ ব্যক্তির নাম সোহেল রানা৷ তখন ভারতের পত্র-পত্রিকা খবর দিয়েছিল, সীমান্ত এলাকা দিয়ে পাকিস্তানে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন তিনি৷ তবে কী ধরনের জঙ্গি তিনি সেটা তখন জানা যায়নি৷ বর্তমানে সোহেল রানা ভারতের একটি কারাগারে বন্দি রয়েছেন বলে জানা গেছে৷

র‌্যাবের ইন্টেলিজেন্স উইংয়ের পরিচালক লে. কর্ণেল আবুল কালাম আজাদ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘দেশ থেকে যেসব জঙ্গিকে ফেরত আনা হয়, তাদের বিষয়গুলো পুলিশই দেখে৷ তাছাড়া বিদেশে কোনো জঙ্গি গ্রেপ্তার হলে আমরা তার সঙ্গে কারা সম্পৃক্ত তাদের ব্যাপারে খোঁজ নেই৷ র‌্যাবও তদন্ত করতে গিয়ে দেশি জঙ্গিদের সঙ্গে বিদেশে অবস্থানকারী বাংলাদেশি কোনো জঙ্গির সম্পৃক্ততা পায়নি৷''

বন্ধু, বিষয়টি নিয়ে আপনার কিছু বলার থাকলে জানান আমাদের৷ লিখুন নীচে, মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়