1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

বিদেশি শিক্ষার্থীদের প্রিয় বিশ্ববিদ্যালয় উমেয়ো

ইউরোপের সাংস্কৃতিক রাজধানী বলে খ্যাত সুইডেনের উমেয়ো শহরের বিশ্ববিদ্যালয়টির সুনাম শিক্ষা জগতে ছড়িয়ে পড়েছে৷ বিভিন্ন দেশ থেকে আসা শিক্ষার্থীদের বিশেষভাবে তত্ত্বাবধান করা হয় এই শিক্ষালয়ে৷ শিক্ষার্থীরাও এতে খুব সন্তুষ্ট৷

ছুটিতে জনশূন্য

জার্মান ছাত্রী আন-কাট্রিন বেক উমেয়োতে এসে কাউকে না দেখে প্রথমে একটি ঘাবড়েই গিয়েছিলেন৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘আমি উমেয়োতে এলাম, কিন্তু কোনো মানুষজন নেই৷ ইউনিভার্সিটি থেকে হোস্টেলের পথে কারো সঙ্গে দেখা হয়নি৷''

রাষ্ট্র ও প্রশাসন বিজ্ঞানের এই ছাত্রী সেমিস্টার শুরু হওয়ার এক সপ্তাহ আগেই উত্তর সুইডেনের উমেয়ো শহরে এসে পৌঁছান৷ সত্যি বিস্ময়ের ব্যাপার৷ কেননা বিশ্বের নানা দেশ থেকে আসা ৩৮,০০০ শিক্ষার্থী ও কর্মীর পদচারণায় মুখর থাকে ইউনিভার্সিটির ক্যাম্পাস৷ কিন্তু সেমিস্টারের ছুটি বলে একেবারে জনশূন্য৷ বলা বাহুল্য, ৮০,০০০ বাসিন্দার উমেয়ো শহরটি ইউনিভার্সিটিকে কেন্দ্র করেই আবর্তিত৷ সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিক সব দিক থেকেই৷

প্রাণ চঞ্চল বিশ্ববিদ্যালয়

সেমিস্টার চলাকালে অবশ্য দেখা যায় সম্পূর্ণ ভিন্ন চিত্র৷ সব ফ্যাকাল্টিই প্রাণ চঞ্চল৷ মূল ভবনের করিডোরে তরুণ-তরুণী, প্রফেসর ও শিক্ষকরা দ্রুত পায়ে ক্লাস রুমে ঢোকেন৷ শোনা যায় নানা ভাষায় কলকাকলি৷

জার্মানির দক্ষিণাঞ্চলের ছোট্ট শহর বাড বুখাউ থেকে এসেছেন আন-কাট্রিন৷ তাঁর সহপাঠিনী আনা রাইখ এসেছেন হেসেন রাজ্যের আরেক ছোট শহর হের্বশ্টাইন থেকে৷ ইতোমধ্যে দু'জনেরই এই বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের রকম-সকম সম্পর্কে একটা ধারণা হয়েছে৷

Schweden Umea Kulturhauptstadt 2014 Umeå Studenten Bibliothek

ক্যান্টিনের খাবারের দামটা বেশি৷এটা বিবেচনা করে অনেকগুলি মাইক্রোওয়েভ রাখা হয়েছে ক্যান্টিনে৷

২১ বছর বয়সি আন-কাট্রিন বলেন, আমি সুইডেনে যেতে চেয়েছি, যেহেতু স্ক্যান্ডিনেভিয়ায় আমি কখনও যাইনি এবং শিক্ষা ক্ষেত্রে সুইডেনের সুনাম রয়েছে৷''

চরম কিছু করা

কিন্তু রাজধানী স্টকহোলম বা দক্ষিণের শহরগুলি তাঁকে আকৃষ্ট করেনি৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘আমি চরম কিছু করতে চেয়েছি৷ ম্যাপে দেখলাম সুইডেনের একেবারে উত্তরের শহর উমেয়ো৷ ভাবলাম নিশ্চয়ই সেখানে একঘেয়ে লাগবে না৷''

তাঁর সহপাঠী ২৩ বছর বয়সি আনা বিশেষ করে ইংরেজি ভাষার মাধ্যমে পড়ানো হয় বলে সুইডেনের এই শহরটি নির্বাচন করেন৷ তবে অন্য ভাষা শেখার ব্যাপারেও তাঁর আগ্রহ রয়েছে৷ তাই সুইডিশ শেখার সুযোগটা তিনি নিয়েছেন৷

‘লাইফ লং লার্নিং' প্রোগ্রাম

দু'জনেই ইউরোপীয় ইউনিয়নের ‘লাইফ লং লার্নিং' প্রোগ্রামের এরারমুস কর্মসূচির আওতায় সুইডেনে পড়াশোনা করতে এসেছেন৷

বিদেশি শিক্ষার্থীদের বিশ্ববিদ্যালয়ে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্যে তথাকথিত এক ‘বাডি প্রোগ্রামে'-র উদ্যোগ নেন কর্তৃপক্ষ৷ বাডিরা হলেন সুইডিশ ছাত্রছাত্রী৷ তারা বিদেশি সহপাঠীদের সুইডিশ সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন৷ প্রথমে অনেকে একত্রিত হন৷ তারপর ছোট ছোট দল গড়ে ওঠে৷ সুইডিশ বাডিরা নানা ধরনের কর্মকাণ্ডের আয়োজন করেন৷ করেন এক সঙ্গে রান্নাবান্না, যেমন সুইডেনের ঐতিহ্যবাহী শটবুলার বা ছোট ছোট মাংসের বল৷ কিংবা তৈরি করেন ক্র্যানবেরির জেলি৷ ‘‘না চাইলে কেউ এখানে একাকিত্বে ভুগবে না'', বলেন আনা রাইখ৷

ইউনিভার্সিটির পক্ষ থেকে দিক নির্দেশনা ও ভাষা কোর্স দেওয়া হয়৷ এছাড়া উমেয়ো অঞ্চল ও কোর্স সম্পর্কে বহু ভাষায় হোম পেজ রয়েছে৷

বিস্তৃত এলাকা জুড়ে হোস্টেল

আর শুরু থেকেই হোস্টেলে সিট ঠিক করে রাখা হয় বিদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য৷ শহরের একটা অংশের পুরোটা জুড়েই রয়েছে ছাত্র হোস্টেল৷ বাথরুমসহ ২৪ বর্গমিটারের প্রশস্ত কক্ষ পাওয়া যায়৷ শিক্ষার্থী, বিশেষ করে বিদেশি ছাত্রছাত্রীদের সুযোগ-সুবিধার দিকে বিশেষ নজর দেওয়ার কারণে ২০১২ সালে দ্বিতীয় বারের মতো ‘সুইডেনের ইউনিভার্সিটি' হিসাবে নির্বাচিত হয়েছে উমেয়ো বিশ্ববিদ্যালয়, যেখানে আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীরা সবচেয়ে বেশি সন্তুষ্ট৷ অন্যান্য মূল্যায়নেও ওপরের দিকে রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টি৷

এটির ক্যাম্পাসে রয়েছে চারটি অনুষদ: কলা, মেডিসিন, কারিগরি ও বিজ্ঞান এবং সমাজ বিজ্ঞান৷ শহরের এক প্রান্তে ১৯৬৫ সালে স্থাপিত হয়েছে উমেয়ো বিশ্ববিদ্যালয়টি৷ আধুনিক ভবনের পাশ ঘেঁষে বয়ে গেছে টলটলে জলাশয়৷ মনোরম এক পরিবেশ৷

তবে ক্যান্টিনের খাবারের দামটা বেশি৷ এটা বিবেচনা করে অনেকগুলি মাইক্রোওয়েভ রাখা হয়েছে ক্যান্টিনে৷ শিক্ষার্থীরা সাথে আনা খাবার সেখানে গরম করতে পারেন৷

শুরুটা কনকনে শীতে না হলেই ভালো

তবে বিদেশি শিক্ষার্থীরা কোর্সের শুরুটা উত্তর সুইডেনের এই অঞ্চলে শীতকালীন সেমিস্টারে না করলেই ভালো করবেন৷ সেপ্টেম্বর থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত প্রায়ই অনবরত তুষারপাত হতে থাকে৷ এক মিটারেরও বেশি উঁচু বরফ ডিঙিয়ে চলাচল করতে হয় সবাইকে৷ দুপুর একটাতেই আঁধার নেমে আসে৷ তবে কর্তৃপক্ষ এটা বিবেচনা করেই দিবালোকের অনুকরণে ৩০ বর্গমিটার আয়তনের আলোকোজ্জ্বল একটি কক্ষ ঠিক করেছেন৷ ঘরটির ছাদ থেকে মেঝে পর্যন্ত সবই শ্বেত বর্ণের৷ এমনকি আসবাবপত্রও সাদা রঙের৷ ঘরে ঢুকলেই পাখির কিচির মিচির শোনা যাবে সিডি প্লেয়ার থেকে৷

দুই জার্মান ছাত্রীই খুশি

উমেয়ো বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক পরিবেশে পড়াশোনা করতে পারায় আন-কাট্রিন ও আনা রাইখ – এই দুই জার্মান ছাত্রীই খুশি৷ আন কাট্রিন বলেন, ‘‘আমি হেসেনের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে এসেছি৷ সেখানে তুর্কি সম্প্রদায়ের লোকজনও খুব বেশি নেই৷ আর এখানে তো এক তুর্কি ছাত্রীর সঙ্গে বসবাসই করি আমি৷ এখানে এসে মনে হচ্ছে আমি সত্যি সত্যি ইউরোপীয়৷ আমার মতে, আরো বেশি শিক্ষার্থীর বিদেশে যাওয়া এবং এই ধরনের অভিজ্ঞতা অর্জন করা উচিত৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন